অটল বিহারি বাজপেয়ির শেষকৃত্য সম্পন্ন

অটল বিহারি বাজপেয়ির শেষকৃত্য সম্পন্ন

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ির শেষকৃত্য অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। ভারতের রাষ্ট্রীয় শ্মশান ঘাট-স্মৃতি স্থল এ সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর শেষকৃত্যু অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। বিজেপি কার্যালয়ে গার্ড অব অনার দেয়ার পর বিকেল চারটায় রাষ্ট্রীয় শ্মশান ঘাটে নেয়া হয় তার মরদেহ।

এর আগে শুক্রবার সকালে, অটল বিহারি বাজপেয়ির মরদেহ বিজেপি কার্যালয়ে নেয়া হয়। সেখানে সর্বস্তরের মানুষ সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

ভারতের সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর মৃত্যুতে সাতদিনের রাষ্ট্রীয় শোক পালন করছে ভারতবাসি। বাজপেয়ির মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ।

শেষকৃত্যানুষ্ঠানে অটল বিহারি বাজপেয়ির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীসহ অন্যান্য সার্কভুক্ত দেশগুলোর প্রতিনিধিরা উপস্থিত হন।

দীর্ঘ দিন কিডনি ও ফুসফুসের জটিলতায় ভুগে বৃহস্পতিবার বিকেলে মারা যান ভারতের তিনবারের প্রধাননমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ি। মৃত্যর সময় আর বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। ১৯২৪ সালে ২৫শে ডিসেম্বর মধ্য প্রদেশের গোয়ালিয়রে জন্মগ্রহণ করেন বাজপেয়ি।

বাজপেয়ি দীর্ঘদিন ধরে ডায়বেটিস ও কিডনি জটিলতায় ভুগছিলেন। ভারতের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ি রাজনীতির পাশাপাশি একজন কবিও ছিলেন। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, বাঁচার কোনো সুযোগ না থাকায়, মেডিকেল বোর্ড গঠন করে তাঁর লাইফ সাপোর্ট খুলে ফেলা হয়।

তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোভিন্দ, কংগ্রেসেপ্রধান রাহুল গান্ধী, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়, উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডু, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং, বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আদবানি, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জেপি নাড্ডা, রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল, বস্ত্রমন্ত্রী স্মৃতি ইরানিসু আরও অনেকে।

নয়াদিল্লি অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্স (এমস) এর বরাত দিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যম জানায়, দুর্ভাগ্যজনকভাবে গত ২৪ ঘণ্টায় তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল। ২০০৯ সালে স্ট্রোক হওয়ার পর থেকে তাঁর স্মৃতিশক্তিও অনেকটাই হ্রাস পায়। কিডনি, মূত্রনালী এবং বুকে সংক্রমণের জন্য গত ১১ই জুন এম- এ ভর্তি হন।

এর আগে, তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতির খবরে বুধবার সন্ধ্যায় এমস হাসপাতালে বাজপেয়িকে দেখতে যান ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ সময়, বাজপেয়ির শারীরিক পরিস্থিতির খবর নেন তিনি।

১৯৯৬ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত ভারতের প্রধানমন্ত্রী পদে তিনবার নির্বাচিত হয়েছিলেন বাজপেয়ি। এরপর ১৯৯৯-২০০৪ সাল পর্যন্ত প্রায় চার দশকের এই সাংসদ ছিলেন ভারতের প্রথম অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী যিনি পুরো পাঁচ বছরের মেয়াদ সম্পূর্ণ করেছিলেন। পরে আরএসএস-এ যোগ দেন। ভারত ছাড়ো আন্দোলনে যোগ দেয়ায় ব্রিটিশ আমলে তাঁকে কারাবাসেও যেতে হয়েছিল।

১৯৯৬ সালে তিনি প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন। এরপর ১৯৯৮ ও ১৯৯৯ সালে ফের প্রধানমন্ত্রী হন। ২০১৪ সালে তাঁকে ‘ভারতরত্ন’ সম্মানে ভূষিত করা হয়। মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ২০১৫ সালে বাজপেয়িকে বিশেষ সম্মাননা দেয়া হয়।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট