অর্থবছরের প্রথমার্ধের মুদ্রানীতি ঘোষণা ৩০ জুলাই

অর্থবছরের প্রথমার্ধের মুদ্রানীতি ঘোষণা ৩০ জুলাই

আগামী ৩১ জুলাই (বুধবার) সকাল সাড়ে ১১টায় বাংলাদেশ ব্যাংকের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স হলে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের প্রথমার্ধের মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হবে। রোববার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ডিপার্টমেন্ট অব কমিউনিকেশন্স এন্ড পাবলিকেশন্স প্রকাশিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

মুদ্রানীতি ঘোষণা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির।

প্রতিবছর দুইবার মুদ্রানীতি ঘোষণা করে বাংলাদেশ ব্যাংক। একবার বছরের শুরুতে অর্থাৎ জানুয়ারিতে। আরেকবার বছরের মাঝামাঝিতে অর্থাৎ জুলাই মাসে।

মুদ্রানীতি দেশের দারিদ্র্য বিমোচন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়াতে বড় ভূমিকা রাখে। তবে, মুদ্রানীতির আরেকটা কাজ হলো দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা রক্ষা করা। মুদ্রানীতির বিভিন্ন সূচকের লক্ষ্যমাত্রা প্রক্ষেপনের মাধ্যমে পরবর্তী ছয় মাসে দেশের সার্বিক গতি প্রকৃতি নির্ধারণ করা হয়।

২০১৮-১৯ অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের (জানুয়ারি-জুন) মুদ্রানীতিতে সরকারি খাতের প্রবৃদ্ধি বাড়িয়ে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ১০ দশমিক ৯ শতাংশ। অন্যদিকে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবাহের প্রবৃদ্ধি জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদের মুদ্রানীতির ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ ধরা হয়।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ২০১৮-১৯ অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের (জানুয়ারি-জুন) ঘোষিত মুদ্রানীতির লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধি অনেক কম হয়েছে। সর্বশেষ জুন মাসে বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১১ দশমিক ২৯ শতাংশ। এ খাতের ঋণ জোগানের প্রক্ষেপণ করা হয়েছিল ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ।

অন্যদিকে, জুলাই থেকে মে পর্যন্ত ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকারের ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৯ দশমিক ১৭ শতাংশ। জুন পর্যন্ত সরকারি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১০ দশমিক ৯০ শতাংশ।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ