‘আমাদের চোখের চোখের পানি কেউ দেখে না’

‘আমাদের চোখের চোখের পানি কেউ দেখে না’

সিলেট টেস্ট জিম্বাবুয়ের কাছে বাজে হারের পর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেছিলেন, ‘এভাবে টেস্ট খেলার কোন মানে হয় না’। অস্বস্তির কাঁটা নিয়ে মিরপুরে  নেমেছিলেন সিরিজ বাঁচানোর লড়াইয়ে। তাতে বড় ব্যবধানে জেতার পর অধিনায়ক যেন কিছুটা অভিমানী।

জিম্বাবুয়েকে এভাবে হারানো কি আনন্দের নাকি কেবল স্বস্তি পাচ্ছেন মাহমুদউল্লাহরা? ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এমন প্রশ্নে আগের ম্যাচের প্রসঙ্গ টেনে কিছুটা যেন অভিমান মাহমুদউল্লাহর,  ‘যদি আপনি ম্যাচ জয় করেন তাহলে অবশ্যই আপনার আনন্দ লাগা উচিত। ম্যাচ জিতলে ওতটুকু অধিকার থাকে আনন্দ প্রকাশ করার। আমরা যখন খারাপ খেলি, ড্রেসিং রুমে মনটা আমাদেরই বেশি খারাপ হয়। আমাদের চোখের পানিটা কেউ দেখে না। আমরা এটা কাউকে বলিও না।’

সিরিজ শুরুর আগে পাল্লা ছিল বাংলাদেশের দিকেই। ঘরের মাঠে অনেকখানি এগিয়ে থাকা বাংলাদেশ ২-০ তে জিতবে বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছিল। কিন্তু মাঠের খেলায় দেখা মিলল ভিন্ন কিছুরই। সিরিজে পিছিয়ে থেকে ফেরাতে হলো সমতা। সবার চাওয়ার সঙ্গে এই পার্থক্য হওয়ায় প্রতিপক্ষকেও বাহবা দিলেন তিনি,  ‘সবাই চাচ্ছিলো জিম্বাবুয়ের সঙ্গে বাংলাদেশ জিতুক। আমার মনে হয় জিম্বাবুয়েকেও কৃতিত্ব দিতে হবে, ওরা ভাল ক্রিকেট খেলেছে। ব্যাটিং ও বোলিং দুই বিভাগের ভাল করেছে। প্রথম টেস্টে কিছু শৃঙ্খলার ঘাটতি ছিল, যা টেস্ট ক্রিকেটে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ওই জিনিসটা আমরা করতে পারি নি, যা এই টেস্টে করতে পেরেছি। ‘

প্রথম টেস্ট হারের ধাক্কা সামালে ঘুরে দাঁড়াতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ছিল দল। ক্ষত থেকেই এসেছিল তুমুল কিছুর ভাবনা। যেন অনেকটা আহত বাঘের গর্জন, ‘প্রথম টেস্ট শেষে একটা কথা বলেছিলাম, আমাদের টিম ম্যানেজমেন্ট থেকে শুরু করে সবাই বেশ ডিটারমাইন্ড ছিলাম, প্রথম টেস্ট হারের পর আমরা খুব আহত হয়েছিলাম, আমরা চেয়েছিলাম তার বহিঃপ্রকাশ মাঠে দেখাতে। আমার মনে হয় আমরা কিছুটা হলেও করতে পেরেছি।’

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট