ইতিহাসের সামনে দাঁড়িয়ে ফেদেরার

ইতিহাসের সামনে দাঁড়িয়ে ফেদেরার

টেনিসের উন্মুক্ত যুগে সর্বোচ্চ ১৮ গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপা জিতে এমনিতেই সবার ওপরে রজার ফেদেরার। এবার নিজেকে আরো উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার সামনে সুইজারল্যান্ডের এ টেনিস তারকা। আজ তার সামনে গ্র্যান্ড স্লামের ১৯তম শিরোপা জয়ের সুযোগ। চার গ্র্যান্ড স্লাম টুর্নামেন্টের মধ্যে গ্রাস কোর্টের উইম্বলডনকে ফেদেরারের সবচেয়ে ফেভারিট মনে করা হয়। এখানে সর্বাধিক সাত গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপা জিতেছেন তিনি। যদিও এর সর্বশেষটি ছিল ৫ বছর আগে ২০১২ সালে। তবে উইম্বলডনে এবার সবাইকে ছাড়িয়ে যাওয়ার পথে ফেদেরার। অল ইংল্যান্ড ক্লাবের এই টুর্নামেন্টে পুরুষ এককে সর্বোচ্চ সাতবার শিরোপা জেতার রেকর্ড আছে তিনজনের। তারা হলেন, রজার ফেদেরার, পিট সাম্প্রাস ও উইলিয়াম রেনশ’। তবে এবার ব্যক্তিগত অষ্টম শিরোপা জিতলে সবাইকে ছাড়িয়ে যাবেন তিনি।

শিরোপার লড়াইয়ে আজ ফেদেরারে প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়ার মারিন সিলিচ। গ্র্যান্ড স্লামে যার শিরোপা মাত্র একটি। সেটা ছিল ২০১৪ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেনে। সেবার জাপানের কেই নিশিকোরিকে হারিয়ে গ্র্যান্ড স্লামে নিজের একমাত্র শিরোপা জেতেন। এবার তিনি সেমিফাইনালে যুক্তরাষ্ট্রের স্যাম কুয়েরিকে ৬-৭ (৬-৮), ৬-৪, ৭-৬ (৭-৩), ৭-৫ গেমে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছেন। ক্রোয়েশিয়ার দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে উইম্বলডনের ফাইনালে উঠলেন তিনি। এর আগে তার স্বদেশি গোরান ইভানিসেভিচ ২০০১ সালে ফাইনালে উঠে শিরোপা জেতেন। এছাড়া দ্বিতীয়বার কোনো গ্র্যান্ড স্লাম টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠলেন মারিন সিলিচ।

অন্য সেমিফাইনালে ১১ নম্বর বাছাই টমাস বার্ডিচকে সরাসরি সেটে ৭-৬ (৭-৪), ৭-৬ (৭-৪), ৬-৪ গেমে হারিয়ে উইম্বলডনে নিজের ১১তম ফাইনালে ওঠেন রজার ফেদেরার। সব মিলিয়ে গ্র্যান্ড স্লামে এটি তার ২৯তম ফাইনাল। ফেদেরার এখন দ্বিতীয় বয়োজেষ্ঠ হিসেবে উইম্বলডনের শিরোপা জয়ের সামনে। তার বয়স এখন ৩৫ বছর। অল ইংল্যান্ড ক্লাবে সর্বোচ্চ ৩৯ বছর বয়সে শিরোপা জয়ের রেকর্ড আছে কেন রোজওয়ালের। তিনি ১৯৭৪ সালে এই কীর্তি গড়েন।

এক বছর আগে টেনিসে আলোচনার বাইরে চলে গিয়েছিলেন ফেদেরার। নোভাক জকোভিচ ও অ্যান্ডি মারের দাপটে খুঁজে পাওয়া যেত না ফেদেরারকে। কিন্তু ২০১৭ সালে তিনি যেন নবজীবন ফিরে পেয়েছেন। বছরের শুরুতে অস্ট্রেলিয়ার ওপেনের শিরোপা জিতে তাক লাগিয়ে দেন তিনি। এরপর জেতেন ইন্ডিয়ান ওয়েলস ও মিয়ামি মাস্টার্সের শিরোপা। এরপর বিশ্রামে থাকার জন্য খেলেননি ফ্রেঞ্চ ওপেনে। নিজেকে পূর্ণ প্রস্তুত করে ফেরেন ফেভারিট উইম্বলডনে। আর সেখানেই ‘বুড়ো’ বয়সে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন তিনি। ফাইনালে উঠে ফেদেরার বলেন, ‘সেন্টার কোর্টে আরো একবার সুযোগ পেয়ে আমি খুশি। বিশ্বাস করতে পারছি না, সত্যিই কি আমি আরেকবার ফাইনালে উঠেছি! সত্যিই আমি অনেক খুশি।’

ফেদেরার এবং সিলিচ এ পর্যন্ত মোট ৭ বার মুখোমুখি হয়েছেন। এরমধ্যে ফেদেরারের জয় ৬ বার। সিলিচের কাছে ফেদেরারের একমাত্র হার ছিল ২০১৪ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেনের সেমিফাইনালে। সেবার সিলিচ শিরোপা জেতেন। উইম্বলডনে এই নিয়ে তারা দ্বিতীয়বার মুখোমুখি হবেন। গত বছর কোয়ার্টার ফাইনালে মুখোমুখি হন তারা। সিলিচকে পাঁচ সেটের লড়াইয়ে হারিয়ে সেমিফাইনালে ওঠেন ফেদেরার।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট