‘ইরানের উন্নতি মেনে নিতে পারছে না যুক্তরাষ্ট্র’

‘ইরানের উন্নতি মেনে নিতে পারছে না যুক্তরাষ্ট্র’

জ্ঞান-বিজ্ঞানে ইরানের উন্নতি যুক্তরাষ্ট্রকে ক্ষুব্ধ ও ভীত করে তুলেছে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে সদ্য ইরানে প্রত্যাবর্তনকারী বিজ্ঞানী ড. মাসুদ সোলেইমানি। রোববার সোলেইমানিকে তার কর্মস্থল ‘তারবিয়াত মোদাররেস’ বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেয়া হয় এবং সেখানে তিনি এ মন্তব্য করেন। খবর পার্সটুডে’র।

ইরানের এই স্টেম সেল বিশেষজ্ঞ বলেন, একটি দেশের জন্য পুরোপুরি নিজের পায়ে দাঁড়ানোর চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আর কোনও বিষয় থাকতে পারে না এবং কেবল জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিকাশের মাধ্যমে সেটি সম্ভব। যুক্তরাষ্ট্রে আটক থাকার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, সাম্রাজ্যবাদী মানসিকতার কারণে মার্কিন প্রশাসন তাকে আদালতে তুলতে ভয় পাচ্ছিল। কারণ তারা জানে আদালতে তারা কোনও দলিল-প্রমাণ উপস্থাপন করতে পারবে না।

তিনি জ্ঞান-বিজ্ঞান ও গবেষণার কাজে যত দ্রুত সম্ভব ইরানকে অনেক উঁচু অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার জন্য ইরানি তরুণ বিজ্ঞানী ও গবেষকদের প্রতি আহ্বান জানান। মাসুদ সোলেইমানি যুক্তরাষ্ট্রের কারগার থেকে তার মুক্তির লক্ষ্যে প্রচেষ্টা চালানোর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ছাত্র-শিক্ষকের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

এর আগে গত ৭ ডিসেম্বর একজন মার্কিন গুপ্তচরকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তরের বিনিময়ে ড. সোলেইমানিকে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। তিনি একটি গবেষণার কাজে যুক্তরাষ্ট্র সফরে গিয়েছিলেন কিন্তু ২০১৮ সালের অক্টোবরের শেষ দিকে শিকাগো বিমানবন্দরে পৌঁছার পর তাকে আটক করা হয়।

ড. সোলেইমানি দেশে ফিরে বলেন, মার্কিন কারাগারে তাকে গুরুতর অপরাধীদের সঙ্গে থাকতে দেয়া হয়েছিল এবং তার সহবন্দিদের জানানো হয়েছিল তিনি একজন সন্ত্রাসী।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ বলেন, জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় তার দেশের বিজ্ঞানীদের অভাবনীয় সাফল্য সহ্য করতে না পারে যুক্তরাষ্ট্র ইরানি বিজ্ঞানীদের আটক রাখার মতো অমানবিক পদক্ষেপের আশ্রয় নিয়েছে।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট