উবারের পর এবার বাংলাদেশে আসছে ‘ওলা’

উবারের পর এবার বাংলাদেশে আসছে ‘ওলা’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্র্যান্সিসকোভিত্তিক অনলাইন ট্র্যান্সপোর্টেশন নেটওয়ার্ক কোম্পানি উবারের পর এবার বাংলাদেশে আসছে ভারতের আরেক জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠান ‘ওলা ক্যাব’। ভারতীয় প্রভাবশালী গণমাধ্যম এনডিটিভি এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। এনডিটিভি জানিয়েছে, প্রথমবারের মতো ওলা আন্তর্জাতিক ব্যবসায়িক কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে প্রতিবেশি দেশ বাংলাদেশ, নেপাল এবং শ্রীলঙ্কাতে।

এ জন্য ইতোমধ্যেই ওলার অ্যাপে আন্তর্জাতিক ফোন নম্বর প্রবেশ করানোর সুবিধা সংযুক্ত করা হয়েছে। তবে ঠিক কবে থেকে এ কার্যক্রম বাংলাদেশে শুরু হচ্ছে সে ব্যাপারে ওই প্রতিবেদনে কোনো কিচ্ছু উল্লেখ করা হয়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওলার শীর্ষ একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এশিয়া এবং উত্তর আফ্রিকাতে ওলা শিগগির তাদের কার্যক্রম শুরু করবে। তবে আনুষ্ঠানিক এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠানের কেউই মন্তব্য করতে রাজি হননি।

বাংলাদেশে অ্যাপভিত্তিক এই ব্যবসায়িক কার্যক্রম কতটা সফল হবে সে বিষয়ে জানতে কিছুদিন আগেই বাংলাদেশে একটি প্রতিনিধি দল পাঠিয়েছিল ওলা। বাংলাদেশের বাজারে ওলার ব্যবহারকারীদের জন্য অ্যাপে আলাদা ইন্টারফেস, এসএমএস ও মুদ্রা বিনিময়ের জন্য সম্ভাব্য করণীয় নিয়ে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। বাংলাদেশ এবং শ্রীলঙ্কাতে উবার আগে চলে গেলেও নেপালসহ এই তিনটি দেশ দ্রুত নিজেদের কব্জায় নিতে চায় ওলা।

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, উবার সাম্প্রতিক সময়ে সিরিয়াস স্ক্যান্ডালে জড়িয়ে পড়েছে। নিজেদের দেশেই সেক্সচুয়াল হ্যারেজমেন্টের কারণে সমালোচিত হয়েছে। সর্বশেষ ৬ মাস ধরে কো-ফাউন্ডার, সিইওসহ উবারের শীর্ষ পদে রদবদল এসেছে। দিল্লির ধর্ষণ ইস্যুতে উবারকে বারবার কাঠগড়ায় উঠতে হয়েছে। এসব নানান কারণে ভারতের স্থানীয় স্টার্ট-আপ ওলা জনপ্রিয়তার কাতারে উঠে এসেছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

প্রসঙ্গত, ওলার মূল প্রতিষ্ঠানের নাম এএনআই টেকনোলজিস প্রাইভেট লিমিটেড। ভারতে এটি ওলা নামেই জনপ্রিয়। ভাবিশ আগরওয়াল এবং অঙ্কিত ভাটি মিলে ২০১০ সালের ৩ ডিসেম্বর ওলা প্রতিষ্ঠা করেন। ভাবিশ সিইও এবং অঙ্কিত সিটিও হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

২০১০ সালে তারা এ প্রতিষ্ঠান চালু করেন। ২০১৪-১৫ সালে প্রতিষ্ঠানটি ১৫০ মিলিয়ন ডলার রেভিনিউ আয় করেছে। ওলা বর্তমানে ভারতের ১১০টি শহরে ৬ লক্ষাধিক গাড়ির মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তবে উবার ভারতজুড়ে মাত্র ২৯টি শহরে সেবা দিচ্ছে।

ড্রাইভারদের আয়ের ১৫ শতাংশ নেয় ওলা। প্রতিষ্ঠানটি অনেক ড্রাইভারকে গাড়ি কেনার জন্যও প্রয়োজনীয় ব্যাংক ঋণের ব্যবস্থা করে দেয় এবং পরে তাদের সাথে রেভিনিউ শেয়ারিং পদ্ধতিতে গাড়ির টাকা উঠিয়ে নেয়।

ট্যাক্সি সার্ভিস ওলার মূল ব্যবসা হলেও এর পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটি লজিসটিক্স সেবাও প্রদান করছে। এর পাশাপাশি ওলা ক্যাফে নামে একটি ফুড ডেলিভারি প্রতিষ্ঠান চালু করেছে যার মাধ্যমে খাবার ডেলিভারি দেয়া হয়।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট