‘কনডম দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়েছিলেন পরিচালক’

‘কনডম দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়েছিলেন পরিচালক’

কাস্টিং কাউচ নিয়ে এখন সরব গোটা সিনে দুনিয়া। হলিউড থেকে শুরু হওয়া এই প্রতিবাদ এখন ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিতেও। সিনেমায় সুযোগ করিয়ে দেয়ার নামে প্রযোজক-পরিচালকরা অভিনেত্রীদের যৌন হয়রানি করার ঘটনাগুলো অভিনেত্রীরা সাহসের সঙ্গেই প্রকাশ করছেন। পরবর্তীতে এই ধরণের যৌন হয়রানি কমানোর লক্ষে বিভিন্ন প্রতিবাদি কর্মসূচিও পালন করছে হলিউডের অভিনেত্রীরা।

এদিকে অস্কারজয়ী মার্কিন অভিনেত্রী মিরা সরভিনো জানিয়েছেন তার অভিজ্ঞতার কথা। মাত্র ১৬ বছর বয়সেই তিনি ভয়ংকর এক অভিজ্ঞতার শিকার হয়েছেন। যা তিনি সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন।

মিরা বলেন, যখন আমার বয়স ১৬ বছর ছিল তখন প্রথম অডিশন দিই আমি। তখনই এক কাস্টিং ডিরেক্টর আমার সঙ্গে অশালীন ব্যবহার করেছিল। আমাকে ভৌতিক সিনেমার একটি সিন দেয়া হয়েছিল। সেই সিন করার সময় আমাকে একটি চেয়ারে বসতে হয়। তখনই সেই কাস্টিং ডিরেক্টর আমাকে চেয়ারের সঙ্গে বেঁধে দেন। তারপর কনডম দিয়ে আমার গলায় ফাঁস লাগিয়ে দেন।

মিরা আরো বলেন, পরে এমন কাজের জন্য ক্ষমা চেয়ে নেন ওই কাস্টিং ডিরেক্টর। বলেন, সিনটি ভয়ের ছিল। তাই আমি যাতে ভয় পাই, তাই ওই কাজ করা হয়েছিল।

মিরা জানান, তখন তিনি অনেকটাই ছোট ছিলেন। কনডমের ‘স্বাদ’ বুঝতেন না। কিন্তু আজও তিনি এটা বোঝেন না, একজন কাস্টিং ডিরেক্টর কেন নিজের পকেটে কনডম নিয়ে ঘুরতেন। বিশেষ করে অডিশনের সময় তো আর কনডমের প্রয়োজন হয় না!

প্রথম জীবনে স্ট্রাগল করার সময় অনেকেই এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়। তখন অনেকেই মনে মনে ভাবেন, এই সময় এমন কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি তো হতেই হবে। কিন্তু মিরা জানিয়েছেন, এই মনোভাবের ফায়দা তোলে অনেকে। যার ফলে বিশ্বব্যাপী সিনে ইন্ডাস্ট্রিগুলোতে যৌন হয়রানি বেড়ে চলেছে।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট