কান পরিষ্কারে কটন বাডকে না বলুন

কান পরিষ্কারে কটন বাডকে না বলুন

আপনি কি প্রতি দিন কটন বাড দিয়ে কান পরিষ্কার করেন? ছোটবেলা থেকে শুনে আসছি, কানে পানি ঢোকার সমস্যা দূর করতে বা কান ভাল রাখতে নিয়মিত তা পরিষ্কার করা উচিত। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এই কটন বাড থেকেই হতে পারে ছোট থেকে বড় ধরণের ক্ষতি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওহিও’র ন্যাশনাল চিলড্রেন’স হসপিটালের গবেষক ক্রিস জাটানা বলেন, কান খোঁচানো নিয়ে দুটো ধারণা রয়েছে। আমরা মনে করি বাড়িতেই নিয়মিত কান পরিষ্কার করা উচিত এবং কটন বাডই কান খোঁচানোর জন্য সবচেয়ে নিরাপদ। দুটো ধারণাই ভুল।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ১৯৯০-২০১০ সাল পর্যন্ত টানা ২১ বছর ধরে একটি গবেষণা করেন। এই সময়ের মধ্যে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ২ লাখ ৬৩ হাজার অপ্রাপ্তবয়স্ক রোগীর চিকিৎসা করা হয় যারা কটন বাড থেকে হওয়া কানে ক্ষতের সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে এসেছিল।

গড় করলে দাঁড়ায় বছরে সাড়ে ১২ হাজার বা দিনে ৩৪ জন ওই সমস্যা নিয়ে এসেছিল। এর মধ্যে ৭৩ শতাংশ ঘটনাই ঘটেছিল কান পরিষ্কার করতে গিয়ে। ১০ শতাংশ ক্ষেত্রে কটন বাড নিয়ে খেলতে খেলতে ক্ষত হয়েছিল এবং ৯ শতাংশ ক্ষেত্রে কানে কটন বাড থাকাকালীন শিশু পড়ে যাওয়ার কারণে ক্ষত হয়েছিল।

কিন্তু কটন বাড খারাপ কেন? জাটানা বলেন, ইয়ার ক্যানাল বা কর্ণ গহ্বরের আপনা থেকেই পরিষ্কার রাখার ক্ষমতা রয়েছে। কটন বাড কানের ময়লা বের করে আনার বদলে আরও দূরে, কানের পর্দার কাছে ঠেলে দেয়। ফলে কানে ক্ষত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।

সাধারণত কানের পর্দা ও নরম টিস্যুতে আঘাত লাগার ঝুঁকি থাকে। গুরুতর আঘাতের ক্ষেত্রে কানের পর্দা ফেটে যাওয়া, হাড় ভেঙে যাওয়ার মতো ঘটনাও ঘটতে পারে।

শ্রবণশক্তি নষ্ট হয়ে যাওয়া, শরীরের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যাওয়ার মতো ভয়াবহ দুর্ঘটনাও ঘটে যেতে পারে। জার্নাল অব পেডিয়াট্রিকসে এই গবেষণার ফল প্রকাশিত হয়েছে।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট