কোহলিদের খাবার পছন্দ না হওয়ায় চাকরি হারাল ক্যাটারিং

কোহলিদের খাবার পছন্দ না হওয়ায় চাকরি হারাল ক্যাটারিং

 

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে সাদা পোশাকে পারেনি, কিন্তু ওয়ানডে সিরিজে ঠিকই ২৫ বছরের প্রতিশোধটা নিয়ে নিয়েছে ভারত ক্রিকেট দল। ছয় ম্যাচের ওয়ানডেতে ৫-১ ব্যবধানে দাপটের সাথে জিতেছে বিরাট কোহলিরা। কিন্তু মাঠে এমন দাপটের পাশাপাশি মাঠের বাইরে বেশ ঝামেলায় আছে কোহলি বাহিনী। এমনকি তাদের অসুবিধার জন্য চাকরিও হারাতে হয়েছে দুটি ক্যাটারিং প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের।

ঘটনার শুরু দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের শুরু থেকেই। প্রথম থেকেই খাবারের সমস্যায় ভুগছিলেন ভারতীয় দলের খেলোয়াড় ও সাপোর্টিং স্টাফরা।

কেপটাউন টেস্টে খাবার আর ব্যবহারের পানির ব্যাপক অভাবে পড়েছিল ভারত দল। সে সময় ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমগুলোতে এ নিয়ে বেশ লেখালেখি হয়। অবশ্য দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক জানানো হয়, বছরের এ সময় কেপটাউনে কিছুটা সমস্যা হয়।  পানির সমস্যার সাথে যোগ হয় পছন্দের খাবার না পাওয়ার সমস্যা। খাবারের মান ভালো না হওয়ায় দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ক্যাটারিং সংস্থাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

দুই দেশের একাধিক সংবাদ মাধ্যম থেকে জানা যায়, এই সব ক্যাটারিংয়ের খাবার নিয়ে শুরু থেকেই অসন্তোষ প্রকাশ করে আসছিল ভারতীয় ক্রিকেটাররা। শেষ পর্যন্ত তাদের সরিয়ে দেওয়া হয়। তাদের পরিবর্তে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রিটোরিয়ায় অবস্থিত ভারতীয় রেস্টুরেন্ট ‘গীত রেস্তোরা’ কে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

এই রেস্টুরেন্টের ম্যানেজার সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘স্থানীয় সংস্থার খাবারে আপত্তি ছিল ভারতীয় ক্রিকেটারদের। তাই আমাদের ভাড়া করা হয়েছে। আমরা আশা করি, কোহলিদের মুখে হাসি ফোটাতে পারবো। কেবলমাত্র ভারতীয় ক্রিকেটার এবং দলের অফিসিয়ালদেরই খাবার দিচ্ছি আমরা।’

রেস্টুরেন্টের ম্যানেজার কোহলিদের খাবারের তালিকায় কী কী আছে তাও জানিয়েছেন।  সকালের নাস্তা হিসেবে ভারতীয় দল খাবে ঘরে তৈরি দধি, পুস্টিকর আটার রুটি, ফল, শুকনা ফল, বাদাম, ভারতীয় পদ্ধতিতে বানানো ডিম অমলেট ও চা বা কফি।

দুপুরের খাবারে খাবে চিকেন রেজালা, ডাল মাখনি, ল্যাম্ব সেয়াল ( ভারতীয় ঝাল তরকারি), পালং পনির, বাটার নান ও বাসমতি চালের ভাত। রাতে খুব বেশি কিছু খান না ক্রিকেটাররা। তাই রাতের খাবার সরবারহ করবে না গীত রেস্তোরা।

এর আগেও ২০১৪-১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া সফরে খাবার নিয়ে অসন্তোস প্রকাশ করেছিল ভারতীয় দল। এমনকি পছন্দের খাবার না পাওয়ায় গ্যাবায় টেস্ট ম্যাচ চলাকালেই ইশান্ত শর্মা ও সুরেশ রায়না খাবার কিনতে বের হয়ে গিয়েছিল।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট