খালেদার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করছে: কাদের

খালেদার অসুস্থতা নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করছে: কাদের

কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপাসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে দলটির নেতারা মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তি করছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘কারগারে গিয়ে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা দেখে ঢাকার সিভিল সার্জনও জানিয়েছে, তিনি আগের মতোই আছেন।’

শনিবার টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের আশুলিয়ার জিরাবোতে সড়কের সার্বিক অবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

সাভার সফরে যাওয়া সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের কাছে সাংবাদিকরা জানতে চান বিএনপি নেত্রীকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানো হচ্ছে কি না।

জবাবে ঢাকার সিভিল জেলা সিভিল সার্জন কারাগারে খালেদা জিয়াকে দেখে এসেছেন জানিয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতা বলেন, ‘বেগম জিয়ার শারিরীক অবস্থা আগে যেমন ছিল এখনও তেমনি আছে। চিকিৎসকরা যে ভাবে বলবে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা সে ভাবেই প্রদান করা হবে। প্রয়োজনে চিকিৎসকদের নিয়ে মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হবে।’

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেন, কারাগারে খালেদা জিয়া অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তিনি তাকে বিদেশে চিকিৎসা করানোর সুযোগ দেয়ার দাবি তোলেন।

কিছুক্ষণ পর এক দলীয় কর্মসূচিতে ওবায়দুল কাদের বলেন, খালেদা জিয়াকে প্রয়োজনে বিদেশে চিকিৎসা করানো হবে।

দুই নেতার এই বক্তব্যের পর বিএনপি নেত্রী দেশের বাইরে চলে যাচ্ছেন কি না, এ নিয়ে নানা কথা ছড়ায়। বিএনপির কর্মী সমর্থকরাও বিষয়টি নিয়ে জানতে নানাভাবে যোগাযোগ করছেন দলের নেতাদের সঙ্গে। আর এই আলোচনার মধ্যে গুঞ্জনে কান না দেয়ার পরামর্শ এসেছে বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভীর পক্ষ থেকে।

এ সময় বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদের একটি বক্তব্যেরও প্রতিক্রিয়া জানান কাদের।

গত ২৯ মার্চ বিএনপি মহাসচিবের নিজ জেলা ঠাকুরগাঁওয়ে জনসভা করে  এসেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল গলা ফুলিয়ে ফুলিয়ে মিথ্যা বলেন। আর সারাক্ষণ মিথ্যা বলায় তার গলা খারাপ হয়।

এর প্রতিক্রিয়ায় পরদিন রাজধানীতে এক আলোচনায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে ফখরুলের ভোট বেড়েছে।

এ বিষয়ে কাদেরের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘মওদুদ আহমেদের পরামর্শ যত কম শুনবেন ততই ভালো আপনাদের (বিএনপি) জন্য। আর মওদুদ আহমেদের পরামর্শে মামলা করেই নিজ বাড়ি হারিয়েছেন খালেদা জিয়া।’

ঈদে ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-টাঙ্গাইল সড়কে যানজট থাকবে না’

কাদের সাভারের আশুলিয়ার জিরাবোতে গিয়েছিলেন টঙ্গী-আশুলিয়া-ডিইপিজেড সড়কের উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করতে। এ সময় তিনি মহাসড়কে যানজট নিয়েও কথা বলেন।

সড়ক মন্ত্রীর দাবী ঈদ-উল-ফিতরে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে কোন যানজট হবে না।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ৫০ কিলোমিটার চার লেন করার কাজ ঈদের আগেই শেষ হবে বলে নিশ্চয়তা দেন সড়ক মন্ত্রী। আর বাকি সড়কের কাজ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে শেষ হবে।

ঈদের আগে এই মহাসড়কে ২৪টা সেতু ও ৬০ টি কালভার্টের মধ্যে ৫৮টি দিয়ে যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে নির্মাণাধীন দ্বিতীয় মেঘনা, কাঁচপুর ও তৃতীয় গোমতী সেতুর কাজ নির্ধারিত সময়ের ছয় মাস আগে নভেম্বর-ডিসেম্বরে শেষ হবে বলেও জানান মন্ত্রী। তিনটি সেতু নির্মাণে আট হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ থাকলেও ৭০০ কোটি টাকা কম লাগবে বলেও জানান তিনি।

অন্য এক প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, টঙ্গী-আশুলিয়া-ডিইপিজেড সড়কে ‘এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে’র নির্মাণ কাজ চলতি বছরের জুলাই/অগাস্টে শুরু হবে। এক্সপ্রেসওয়ের নিচের সড়কও চার লেন করা হবে।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট