চর্বিযুক্ত মাছ উপকারী নাকি ক্ষতিকর?

চর্বিযুক্ত মাছ উপকারী নাকি ক্ষতিকর?

প্রোটিনের অন্যতম উৎস মাছ কমবেশি সবাই পছন্দ করে। ছোট মাছ নিয়ে তেমন কোনো সমস্যা না থাকলেও বড় মাছের ক্ষেত্রে অনেকেই চর্বিযুক্ত মাছ একদম পছন্দ করেন না। আবার অনেকে মনে করেন, মাছে একটু চর্বি থাকলে তাতে স্বাদটা বরং বাড়ে।অনেকে আবার আছেন, যারা চর্বিযুক্ত মাছকে ক্ষতিকর বলে মনে করেন।তাদের ধারণা, চর্বিযুক্ত মাছ স্বাস্থ্যের জন্য হুমকি, চর্বিযুক্ত মাছের কোনো উপকারিতা নেই।তবে পুষ্টি বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের মতে, মাছের চর্বিতে ক্ষতিকর উপাদান নয়, বরং রয়েছে উপকারী নানা গুণাগুণ। তাই চর্বিযুক্ত মাছ খাওয়ারই পরামর্শ তাদের।

গবেষকরা বলছেন, চর্বিযুক্ত মাছে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা থ্রি পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা আর্থারাইটিস, হৃদরোগ ও ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।এছাড়া চর্বিযুক্ত মাছ খেলে এসব রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও অনেক গুণ কমে যায়। ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড রিউমাটয়েড আর্থারাইটিসের আশঙ্কা কমিয়ে দেয় অনেকখানি।এছাড়া চর্বিযুক্ত বা তৈলাক্ত মাছ বিভিন্ন কার্ডিওভ্যাসকুলার রোগ প্রতিরোধ করতে পারে বলেও দাবি গবেষকদের। তারা বলছেন, চর্বিযুক্ত বা তৈলাক্ত মাছ মানসিক চাপ কমিয়ে হৃদরোগ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধেও তৈলাক্ত বা চর্বিযুক্ত মাছ ভূমিকা রাখতে পারে বলে উঠে এসেছে এক সমীক্ষায়। এতে বলা হয়েছে, যেসব নারী নিয়মিত চর্বিযুক্ত বা তৈলাক্ত মাছ খান, তাদের স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক কমে যায়।এসব ছাড়াও মাছের চর্বিতে থাকা খাদ্য উপাদান স্মৃতিভ্রংশ প্রতিরোধের পাশাপাশি স্মৃতিশক্তি ও দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে অবদান রাখে বলেই মত গবেষকদের। তারা আরও বলছেন, তৈলাক্ত বা চর্বিযুক্ত মাছে রয়েছে মুখ ও ত্বকের ক্যানসার প্রতিরোধের উপাদান। এছাড়া ছোট বয়স থেকে চর্বিযুক্ত মাছ খেলে হাঁপানির ঝুঁকি অনেক কমে যায় বলেও মত তাদের। সূত্র: হেলথলাইন

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট