চা বা কফি খাওয়ার আগে জল না খেলে কিন্তু হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে!

চা বা কফি খাওয়ার আগে জল না খেলে কিন্তু হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে!

বেশ কিছু কেস স্টাডিতে দেখা গেছে যারা চা পানের আগে জল খান না, তাদের শারীরের অন্দরে এমন কিছু পরিবর্তন হতে শুরু করে যে একাধিক রোগ মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। এমনকী বেশ কিছু জটিল রোগের প্রকোপও বৃদ্ধি পায়। তাই তো চায় পানের আগে জল না খেলে বিপদ। আসলে জল না খেয়ে চা বা কফি পান করলে শরীরে অ্যাসিডের মাত্রা বেড়ে যেতে শুরু করে। ফলে গ্যাস-অম্বল, বদ-হজম সহ একাধিক পেটের সমস্যা মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। শুধু তাই নয়, আলসারের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও বৃদ্ধি পায়। তাই সাবধান! তবে এখানেই শেষ নয়, চা বা কফির মতো পানীয় খাওয়ার আগে এক গ্লাস জল না খেলে দেখা দেয় আরও বেশ কিছু শারীরিক সমস্যা। যেমন ধরুন…

১. স্টামাক আলসারের মতো রোগের প্রকোপ বাড়ে: যেমনটা আগেও আলোচনা করা হয়েছে যে চা বা কফির মতো পানীয় খাওয়ার আগে যদি জল খেয়ে পেটকে ঠান্ডা করা না হয়, তাহলে শরীরের অন্দরে অ্যাসিডের মাত্রা বাড়তে শুরু করে, যার প্রভাবে স্টামাক আলসারের মতো রোগ মাথা চাড়া দিয়ে ওঠার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। আর এমন রোগে আক্রান্ত হলে দৈনন্দিন জীবন যে অনেকাংশেই ব্যাহত হয়, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

২. হজম ক্ষমতার মারাত্মক ক্ষতি হয়: খাবার খাওয়ার পর পরই স্টমাক থেকে অ্যাসিডের ক্ষরণ শুরু হয়ে যায়। এই অ্যাসিড, খাবার যাতে ঠিক মতো হজম হয় সেদিকে খেয়াল রাখে। বারে বারে চা খাওয়া শুরু করলে কোনও কারণ ছাড়াই স্টমাক অ্যাসিডের ক্ষরণ বেড়ে যায়। ফলে এক সময়ে গিয়ে হজমে সহায়ক এই অ্যাসিডের ক্ষমতা এতটাই কমে যায় যে কথায় কথায় বদ-হজম হওয়ার মতো শারীরিক অসুবিধা হতে শুরু করে। তবে কেউ যদি জল খাওয়ার পর চা পান করেন, তাহলে ক্ষতির মাত্রা কম হয়। সেই সঙ্গে কমে বদ-হজমের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমে।

৩. দেহের অন্দরে জলের ঘাটতি দেখা দেয়: চা এবং কফিতে ক্যাফিনের মাত্রা খুব বেশি থাকে। আর ক্যাফিনে এমন একটি উপাদান থাকে যা শরীরে প্রবেশ করা মাত্রা ইউরিনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। ফলে চা বা কফি পান করলেই বারে বারে প্রস্রাব চাপতে শুরু করে। আর তত শরীর থেকে জল বেরিয়ে যায়। শরীর থেকে বেশি মাত্রায় জল বেরিয়ে গলে একাধিক সমস্যা দেখা দেয়। সেই কারণেই তো চা খাওয়ার আগে মনে করে এক গ্লাস জল খাওয়া পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা।

৪. ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি হয়: বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে চা বা কফির মতো পানীয় খালি পেটে খেলে শরীরে অ্যাসিডের মাত্রা বাড়তে শুরু করে, যার প্রভাব ত্বকের উপরও পরে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ত্বকের সৌন্দর্য কমতে শুরু করে। কিন্তু এই ধরনের পানীয় খাওয়ার আগে যদি অল্প করে জল খেয়ে নেওয়া যায়, তাহলে দেহের অন্দরে অ্যাসিডের পরিমাণ বাড়ার সম্ভাবনা কমে। ফলে ত্বকের স্বাস্থ্য়ের অবনতি ঘটার আশঙ্কাও হ্রাস পায়।

৫. দাঁতের ক্ষতি হয়: যেমনটা আগেও আলোচনা করা হয়েছে, চা এবং কফি হল প্রকৃতিতে অ্যাসিডিক। ফলে এমন জিনিস বারে বারে খেলে শরীরের পাশাপাশি মুখ গহ্বরের অন্দরের অ্যাসিডের মাত্রা বাড়তে থাকে। ফলে ধীরে ধীরে দাঁতের উপরিঅংশ অর্থাৎ এনামেলে ক্ষয় ধরে। আর এক সময়ে গিয়ে ক্ষয় এতটাই বেড়ে যায় যে দাঁতের চিহ্নই মুছে যায়। তখন আর কিছুই করার থাকে না। এক্ষেত্রে জল পানের পর চা খেলে এই ধরনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা চোখে পরার মতো কমে যায়। এবার বুঝতে পারছেন তো চা বা কপি খাওয়ার আগে জল খাওয়ার পরামর্শ কেনও দেওয়া হয়ে থাকে।

৬. শরীরে অ্যাসিডের মাত্রা বৃদ্ধি পায়: চায়ের পি এইচ লেভেল হল “৬”। অর্থাৎ সহজ ভাষায় এই পানীয়টি হল অ্যাসিডিক। আর অ্যাসিডের ক্ষতি করার ক্ষমতা কমাতে পারে একমাত্র জল। তাই তো জল পানের পর চা খেতে বলা হয়। এমনটা করলে চায়ের অ্যাসিডিক এলিমেন্ট জলে মিশে যায়। ফলে শরীরে অ্যাসিডের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার আর কোনও আশঙ্কাই থাকে না। আর যদি জল না খেয়ে চা খাওয়া হয়, তাহলে শরীরের অন্দরে হাইড্রোক্লরিক অ্যাসিডের মাত্রা খুব বেড়ে যায়। ফলে অ্যাসিডিটি এবং গ্যাস-অম্বলের মতো সমস্যা দেখা দেয়।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট