চীনে চালক-যাত্রীর হাতাহাতি, বাস নদীতে : নিহত ১৫ (ভিডিও)

চীনে চালক-যাত্রীর হাতাহাতি, বাস নদীতে : নিহত ১৫ (ভিডিও)

চীনের চংকিং শহরে ৪৮ বছর বয়সী এক নারী যাত্রী তার আকাঙ্খিত স্টপেজে নামতে না পারায় ক্ষুব্ধ হয়ে মুঠোফোন ছুড়ে মারে চালকের গায়ে, ডান হাত দিয়ে চালক পালটা আঘাত করতে গিয়ে বাম হাতে গাড়ির স্টিয়ারিং চেপে ধরে, নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রেলিং ভেঙে বাস গিয়ে সোজা নদীতে পড়লে বাসের সব আরোহী নিহত হয়।

চালক ও যাত্রীর মারামারির কারণে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ইয়াংশি নদীতে পড়ার ভিডিও প্রকাশিত হয় যেখানে দেখা যায় বাসের ভেতরে যাত্রীরা চিৎকার করছিল। বাসে থাকা ১৫ যাত্রীর সবাই এই দুর্ঘটনায় মারা যায়।

শুক্রবারে চীনা কর্তৃপক্ষের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে ১০ সেকেন্ডের এক ভিডিওতে দেখা যায় যে, রবিবার (২৮ অক্টোবর) স্থানীয় সময় রাত ১০ টার দিকে এক নারী যাত্রী তার গন্তব্যে নামতে ব্যর্থ হওয়ায় চালককে তাৎক্ষণিক গাড়ি থামাতে বলেন কিন্তু ৪৩ বছর বয়সী চালক বাস থামাতে রাজি হননি। পরে ওই নারী চালকের সঙ্গে চিল্লাচিল্লি শুরু করে।

উদ্ধারকৃত বাসের ব্ল্যাক-বক্স রেকর্ডিং ডিভাইস থেকে জানা যায়, লিউ নামের ৪৮ বছর বয়সী নারী যাত্রী রেগে গিয়ে তার হাতে থাকা সেলফোন দিয়ে চালকের মাথায় আঘাত করেন। যখন সে আবার তাকে আঘাত করল, চালক পালটা আঘাত করতে গিয়ে হঠাৎ স্টিয়ারিং হুইলটি বামে পরিণত করে, সেতুর পাশে রেলিংয় ভেঙে ইয়াংশি নদীতে পড়ে যায়।

উদ্ধারকৃত বক্সের ভিডিও ক্লিপটিতে বাস পড়ে যাওয়ার আগ মুহূর্তে যাত্রীদের আর্তনাদ শোনা যায়। তদন্ত কর্তৃপক্ষ প্রকাশিত ভিডিও ক্লিপটি মুক্তির ফলে মারাত্মক দুর্ঘটনার পেছনের রহস্যের অবসান ঘটেছে। প্রকাশিত তদন্ত প্রতিবেদন চীনের গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে এনিয়ে হৈচৈ পড়ে যায় দেশজুড়ে।

বুধবার (৩১ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাসটি নদী থেকে তোলা হয়। এদিন বাসটি থেকে ব্ল্যাক-বক্স রেকর্ডিং ডিভাইস উদ্ধার করা হয় এবং তা স্থানীয় সরকারি নিরাপত্তা ব্যুরোর কাছে হস্তান্তর করা হয়। দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে এখনও তদন্ত চলছে।

বাসটি ছোট এবং নদীর পানির গভীরতা অনেক বেশি হওয়ায় উদ্ধার কাজ পরিচালনা করা খুবই কঠিন ছিল বলে জানা যায়। এই দুর্ঘটনায় ঝাও হু নামের একজন আইনজীবী বলেছেন, বাস অপারেটর এবং চালকের সঙ্গে মারামারি করা এই নারীর পরিবারের কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ পাবার অধিকার আছে নিহতদের পরিবারের।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট