ছোট বাচ্চাদের যে সব জিনিসের কাছ থেকে দূরে রাখবেন

ছোট বাচ্চাদের যে সব জিনিসের কাছ থেকে দূরে রাখবেন

ছোট বাচ্চাদের অনেক বেশি সতর্ক ভাবে দেখে রাখতে হয়। যখন নাকি তাদের বয়স ৬ মাস থেকে ৫/৬ বছর, তখনই নানা ধরনের বিপদের সম্মুখীন হয়ে থাকে বাচ্চারা। এসময় বাচ্চারা অনেক বেশি চঞ্চল আর দুরন্ত হয়ে থাকে। তাই এই সময়টা বাচ্চাদের জন্য বেশ ঝামেলার একটা সময়। আসুন জেনে নিই এই সময়ে বাচ্চাদের আসন্ন বিপদ এবং তা থেকে তাদের নিরাপদ রাখার ব্যাপারে।

ফার্নিচার থেকে : বাচ্চারা যখন একটু একটু হামাগুড়ি এবং হাঁটতে শেখে তখন তাদের উঁচু ফার্নিচার থেকে কিছুটা সতর্ক করেই রাখা উচিৎ। অথবা একটু বড় হলেও বাচ্চারা এসব ফার্নিচারের উপরে উঠে খেলতে বেশ পছন্দ করে। এসময় নানা ধরনের বিপদ বাচ্চাদের সামনে আসতে পারে। তাই এইসব ঝুঁকিপূর্ণ ফার্নিচার থেকে বাচ্চাদের দূরে রাখাই শ্রেয়।

সিঁড়ি : সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা বাচ্চাদের জন্য বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। আর এই বিষয়টিতেও খেয়াল রাখা দরকার। বাচ্চারা সিঁড়ি বেয়ে ওঠানামা করে বেশ মজা পায় এবং তারা এতে খেলা করতে বেশ পছন্দ করে। এসময়ে সিঁড়ি থেকে পড়ে গিয়ে নানা ধরনের বিপদ হতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে বাচ্চাদের সবসময় এমন ঝুঁকিপূর্ণ সিঁড়ি থেকে দূরে রাখুন এবং বিষয়টিতে সতর্ক হোন।

গরম পানি : গরম পানি থেকে বচ্চাদের সবসময় সাবধানে রাখা উচিৎ। কেননা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা গেছে যে গরম পানি দিয়েই বচ্চারা দুর্ঘটনা ঘটিয়ে থাকে। তাই সবসময় খেয়াল রাখুন গরম পানি থেকে আপনার সন্তান দূরে অাছে কি না বা নিরাপদে আছে কিনা।

ভারী কোনো জিনিস : ভারী যেকোনো জিনিসের কাছ থেকে বাচ্চাকে সরিয়ে নিরাপদ দূরত্বে রাখুন। বাচ্চারা খেলতে অনেক পছন্দ করে কিন্তু কোন জিনিস তার জন্য বিপদজনক এই বিষয়ে তার ধারণা একেবারেই নেই। তাই ঘটে যেতে পারে যেকোনো ধরনের দুর্ঘটনা। আর তাই খেয়াল করুন আপনার সন্তান ভারী কোনো বস্তু নিয়ে খেলা করছে কি যা তার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। এসব ভারী বস্তু থেকে বচ্চাদের সবসময়ই নিরাপদ দূরত্বে রাখুন।

বিদ্যুৎ সামগ্রী : বাচ্চাদের জন্য বিদ্যুৎ অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ একটি বস্তু। বাচ্চাদের এই বিষয়গুলো সম্পর্কে একেবারেই ধারণা নেই। দেখা যায় যে আপনি কাপড় ইস্ত্রি করে আয়রনটা কাছেই কোথাও রেখেছেন আর আপনার সন্তান এসে তাতে হাত রেখেছে। এর ফলে ঘটে যেতে পারে অপূরণীয় দুর্ঘটনা। এছাড়া বিদ্যুতের লাইনের পয়েন্টও ক্ষতির কারণ হতে পারে। এসব বিষয়গুলো থেকে বাচ্চাদের সাবধানে আর নিরাপদ দূরত্বে রাখুন।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট