‘জগ্গা জসুস’ বনাম ‘শব’, জিতবে কে? কী বলছে গুগল?

‘জগ্গা জসুস’ বনাম ‘শব’, জিতবে কে? কী বলছে গুগল?

একদিকে অনুরাগ বসুর ‘জগ্গা জসুস’। অন্য দিকে ওনিরের ‘শব’। শুক্রবার মুক্তি পেল দুটো ছবি। বক্স অফিসে নিজের মতো করে স্কোর করার চেষ্টা করবে দুটো টিমই। কিন্তু তুলনাটা বোধহয় অসম। কাস্ট, প্রোমোশন, মার্কেটিং, পরিচালনা সবেতেই ধারে-ভারে অনেকটাই এগিয়ে ‘জগ্গা জসুস’। গুগল ট্রেন্ডও সে ইঙ্গিতই দিচ্ছে।

গত সাত দিনের হিসেবে ভারতে গুগল সার্চে অনেক এগিয়ে ‘জগ্গা জসুস’। ‘জগ্গা জসুস’, ‘জগ্গা’, ‘জগ্গা জসুস সং’, ‘জগ্গা জসুস মুভি’…উঠে এসেছে রিলেটেড সার্চে। অন্য দিকে বেশ কিছুটা পিছিয়ে পড়েছে ‘শব’। ‘শব মুভি’, ‘শব সং’, ‘শব এমপিথ্রি’ এসেছে রিলেটেড সার্চে।

দুই পরিচালকই বাঙালি। তাই পশ্চিমবঙ্গে ‘শব’-এর একটা আলাদা ক্রেজ থাকবে, এটা হয়তো অনেকে ভেবেছিলেন। ‘শব’-ওর উপরি পাওনা অর্পিতা চট্টোপাধ্যায় স্বয়ং। কিন্তু বাংলার গুগল ট্রেন্ডও ‘শব’কে হতাশ করেছে।

দুটো আলাদা ধরনের ছবি। একদিকে অনুরাগ-রণবীরের যৌথ পরিকল্পনায় তুখোড় বাণিজ্যিক সিনেমা। অন্যদিকে ওনিরের চিত্রনাট্যের আলাদা ঘরানা। তাই তুলনা করা সম্ভব নয়। বরং দেখে নেওয়া যাক কার তূণে কী কী অস্ত্র রয়েছে?

একদিকে রণবীর কপূর, ক্যাটরিনা কইফের মতো টিম। রণবীর-অনুরাগের যৌথ প্রযোজনায় তুখোড় মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি, প্রোমোশন…। অন্যদিকে ওনিরের টিমে স্ট্রং ব্যাটসম্যান বলতে অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়। তবে এটাই তাঁর বলি ডেবিউ। ফলে একটা আলাদা প্রেশার থাকাটা অস্বাভাবিক নয়। তবে রবিনা ট্যান্ডনের মতো অভিজ্ঞ অভিনেত্রীও রয়েছেন।

যদিও পরিচালকদের নিয়ে সার্চ করলে দেখা যাচ্ছে ওনিরের রেজাল্ট কিছুটা ভাল। তবে এগিয়ে অবশ্যই অনুরাগ।

এ বার দেখা যাক নায়িকারা কে কোথায় দাঁড়িয়ে। গুগল সার্চের হিসেবে অবশ্যই অর্পিতার তুলনায় এগিয়ে ক্যাটরিনা কইফ। ক্যাটরিনা বলি মহলের পোড় খাওয়া ঘুঁটি। ফলে তার ওপর যেমন প্রচুর টাকার লগ্নি করেন পরিচালক, প্রযোজকরা তেমনই দর্শকদের প্রত্যাশাও থাকে অনেকটাই বেশি। তুলনায় অর্পিতা একেবারেই নতুন। তাই আক্ষরিক অর্থে এঁদের মধ্যে কোনও তুলনা চলে না। তবুও ঘরের মেয়ে বলি ডেবিউ নিয়ে পশ্চিমবাংলার উত্সাহ নিশ্চয়ই রয়েছে? গুগল সার্চ কিন্তু অন্য কথা বলছে। সেখানেও একই হাল। অর্থাত্ অনেকটাই এগিয়ে ক্যাটরিনা।

‘জগ্গা জসুস’-এর এগিয়ে থাকার পিছনে বেশ কিছু এক্স ফ্যাক্টরের সন্ধান দিচ্ছে ইন্ডাস্ট্রি:

১) প্রথমেই বলা যায়, রণবীর কপূর। এই মুহূর্তে বি-টাউনের অন্যতম সেরা বাজি। অভিনয় তো বটেই। এ ছবির প্রযোজকও তিনি। কেরিয়ারের তুঙ্গে থেকে কথা বলতে না পারা, তোতলা একটি ছেলের চরিত্র বেছে নেওয়াটাই বড় চ্যালেঞ্জ। রণবীর পাশ করলেন তো?

২) রণবীর-ক্যাটরিনা কেমিস্ট্রির কথা ভুললে চলবে না। এই ছবির শুটিং চলাকালীনই ২০১৬-এ নাকি তাঁদের ব্যক্তিগত প্রেমের সম্পর্ক ভেঙে গিয়েছিল। তারপরও পেশাদার মনোভাব বজায় রেখে গোটা ছবিটা শেষ করেছেন তাঁরা। তাই প্রেম ভেঙে গেলেও অনস্ক্রিন রোম্যান্স কতটা ক্লিক করল সেটা জানতে আগ্রহী দর্শকদের একটা বড় অংশ।

৩) গত চার বছর ধরে এই ছবিটার ওপর কাজ করেছেন পরিচালক অনুরাগ বসু। অন্য কোনও দিকে মন দেননি তিনি। আর যাঁর ঝুলিতে ‘বরফি’র মতো ছবি রয়েছে তাঁর কাছে প্রত্যাশা আকাশছোঁয়া। এ ছবির অন্যতম প্রযোজকও তিনি।

৪) ইতিমধ্যেই ছবির গান জনপ্রিয়। প্রীতমের সুরে বাকি ছবির গানগুলি কোন তারে বাঁধা তা নিয়ে কৌতূহল রয়েছে আমজনতার।

৫) ট্রেলারেই দেখা মিলেছে হাতি, এমু পাখির। তাই খুদে দর্শকরাও ছবি দেখে মজা পাবে বলেই মনে করছেন ইন্ডাস্ট্রির একটা বড় অংশ।

৬) শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় এ ছবির সেরা চমক। ছবিটা না দেখলে বলি মহলের ‘বব বিশ্বাস’-এর নতুন কীর্তি দেখা বাকি থেকে যাবে। এ ছবিকে সমৃদ্ধ করেছে রজতাভ দত্তর অভিনয়ও।

ওনিরও মনের মতো করে সাজিয়েছেন ‘শব’। টানটান চিত্রনাট্যে এ ছবিতেও রয়েছে বেশ কিছু চমক:

১) অর্পিতা চট্টোপাধ্যায় এই ছবির সেরা আকর্ষণ। এটাই তাঁর হিন্দি ডেবিউ। মাতৃত্ব পরবর্তী বিরতির পর ফের বড়পর্দায় ফিরছেন টলিউডের ‘ফার্স্ট লেডি’। রয়েছে কিছু সাহসী দৃশ্যও।

২) রবিনা টন্ডনকেও অন্য ভাবে এ ছবিতে দেখবেন দর্শক। নায়িকার কেরিয়ারের অন্যতম সেরা ছবি হতে চলেছে ‘শব’। অন্তত ট্রেলার দেখে এমনটাই দাবি বলিউডের একটা বড় অংশের।

৩) ‘শব’-এর গান ইতিমধ্যেই জনপ্রিয়। গুগল সার্চের হিসেব অন্তত সেটাই বলছে।

৪) ‘শব’-এর নতুন মুখ আশিস বিস্ত। টিম ‘শব’য়ের দাবি, তাঁর পরিমিত পারফরম্যান্স নাকি চমকে দেবে দর্শককে।

কোন ছবিটা কেন দেখবেন, তার আগাম আভাস দেওয়া হল। আপনারাই গুগল সার্চে কাকে কোন পজিশনে রেখেছেন দেওয়া হল তার হিসেবও। এ বার বিচারের ভার আপনার। কোন ছবিটা আগে দেখবেন, ঠিক করেছেন?

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট