জর্ডানে বন্দুকধারী-পুলিশ গোলাগুলিতে নিহত ৭

জর্ডানে বন্দুকধারী-পুলিশ গোলাগুলিতে নিহত ৭

জর্ডানে সশস্ত্র বন্দুকধারীদের সঙ্গে পুলিশের গোলাগুলিতে চার নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যসহ ৭ জন নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে বাকি ৩ জন জঙ্গি সদস্য। বন্দুকধারীরা বোমা দিয়ে নিজেদের ভবন উড়িয়ে দিলে এই হতাহতের ঘটনা ঘটে।

শনিবার রাতে দেশটির সল্ট শহরের একটি ভবনে থাকা সশস্ত্র জঙ্গিগোষ্ঠীর সঙ্গে ওই বন্দুকযুদ্ধ হয় পুলিশের। খবর কাতারভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আলজাজিরার।

জর্ডান সরকারের মুখপাত্র জুমানা ঘুনাইমাত-এর বরাত দিয়ে আলজাজিরা জানায়, রোববার এই বন্দুকযুদ্ধ শেষে ৫ জঙ্গিকে আটক করে পুলিশ।

যে ভবনটিতে এই গোলাগুলি হয় সেটি জঙ্গিদের একটি আস্তানা ছিলো বলে সন্দেহ দেশটির পুলিশের। তিন তলা ওই ভবনটিতে থাকা জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের সুযোগ দেওয়া হলেও জঙ্গিরা তা প্রত্যাখ্যান করে বলে দাবি করেন জুমানা।

তিনি জানান, ‘সন্দেহভাজন জঙ্গিরা আত্মসমর্পণ করতে অস্বীকৃতি জানায়। উল্টো তারা নিরাপত্তা বাহিনীর একটি যৌথ দলের ওপর গুলিবর্ষণ শুরু করে। এরপরই পুলিশ ভবনটি লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে’।

এক পর্যায়ে যৌথবাহিনী ভবনটিতে অভিযান শুরু করলে জঙ্গিরাই বোমা দিয়ে ভবনটি উড়িয়ে দেয়। তবে এখনও ধ্বংসস্তূপকে ঘিরে অভিযান চালানো হচ্ছে এবং সেখানে কোন বেসামরিক লোক আটকা পরেছেন কি-না, তা দেখা হচ্ছে বলে জানান জুমানা।

এই ঘটনায় এখনও কোন সংগঠন দায়ভার স্বীকার করেনি। তবে দেশটির সামরিক শাখার একটি নিউজ ওয়েবসাইট ‘দ্য হালা আকবার’ থেকে বলা হয় যে, সন্দেহভাজন জঙ্গিদের সকলেই জর্ডানের নাগরিক।

এদিকে এই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন জর্ডানের প্রধানমন্ত্রী ওমর আল রাজ্জাজ। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘জঙ্গিবাদ এবং গোঁড়া চিন্তাধারণার বিরুদ্ধে যুদ্ধে জর্ডান সবসময়ই আগে থাকবে। যারা নিরাপত্তা এবং স্থিতিশীলতা ক্ষুণ্ণ করে তাদের বিরুদ্ধে জর্ডান নমনীয় হবে না’।

সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি জঙ্গি হামলার শিকার হয়েছে জর্ডান। সিরিয়া এবং ইরাকের সীমান্তবর্তী অঞ্চলে জঙ্গি সংগঠন আইএস এর সাথে সমঝোতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল জর্ডান।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট