জহির রায়হানের ৪৮তম অন্তর্ধান দিবস উপলক্ষে চিন্তা ও কর্মের বিশ্লেষণমূলক আলোচনার আয়োজন

জহির রায়হানের ৪৮তম অন্তর্ধান দিবস উপলক্ষে চিন্তা ও কর্মের বিশ্লেষণমূলক আলোচনার আয়োজন

বাংলাদেশের গুণী ও সৃজনশীল চলচ্চিত্রকার হিসেবে জহির রায়হানের অবস্থান নিঃসন্দেহে সকল ধরনের বিতর্কের ঊর্ধ্বে। চলচ্চিত্রকার হিসেবে জহির রায়হান চলচ্চিত্রে ১৯৬০ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত তাঁর নিজস্বতার স্বাক্ষর উৎকীর্ণ করার জন্য মাত্র ১১ বছর সময় পেয়েছিলেন। চলচ্চিত্র পরিচালনা কিংবা প্রযোজনা ছাড়াও তিনি কথাসাহিত্যিক হিসেবে নন্দিত ছিলেন; অংশগ্রহণ করেছেন রাজনৈতিক ক্ষেত্রে সরাসরি প্রতিবাদী ভূমিকায়। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে তিনি ক্যামেরা হাতে চলচ্চিত্রকারদের নেতৃত্ব দিয়েছেন। ‘স্টপ জেনোসাইড’, ‘কাঁচের দেয়াল’, ‘জীবন থেকে নেয়া’- চলচ্চিত্রগুলো বাংলাদেশে চলচ্চিত্র নির্মাণকলার ক্ষেত্রে মাইলফলক হয়ে রয়েছে।

সদ্যস্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭২ সালের ৩০ জানুয়ারি ঢাকার মিরপুরে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের অভিভাবক জহির রায়হান নিখোঁজ বা নিহত হন। আগামীকাল ৩০ জানুয়ারি জহির রায়হানের অর্ন্তধান বা নিখোঁজ বা নিহত হওয়ার ৪৮তম দিবস। এই দিনটিকে স্মরণে রেখে ম্যুভিয়ানা ফিল্ম সোসাইটি মুক্তিযোদ্ধা, চলচ্চিত্রকার ও কথাসাহিত্যিক জহির রায়হান স্মরণ ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী এবং জহির রায়হানের চিন্তা ও কর্মের বিশ্লেষণমূলক আলোচনার আয়োজন করেছে। আয়োজনটি আগামীকাল ৩০ জানুয়ারি ২০২০, বৃহস্পতিবার, বিকাল ৬টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার ইন্টারন্যাশনাল ডিজিটাল কালচারাল আর্কাইভ কক্ষে অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া বিকাল ৪টায় জহির রায়হান নির্মিত চলচ্চিত্র ‘কখনও আসেনি’ প্রদর্শিত হবে।

জহির রায়হান স্মরণ এবং জহির রায়হানের চিন্তা ও কর্মের বিশ্লেষণমূলক আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন বিশিষ্ট চলচ্চিত্রকার সৈয়দ সালাহউদ্দিন জাকী, বিশিষ্ট চলচ্চিত্র গবেষক ও লেখক অনুপম হায়াৎ, বিশিষ্ট চলচ্চিত্র সমালোচক মাহমুদা চৌধুরী, জহির রায়হানের জেষ্ঠ্যপুত্র নির্মাতা বিপুল রায়হান এবং ম্যুভিয়ানা ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি চলচ্চিত্র নির্মাতা ও লেখক বেলায়াত হোসেন মামুন।

আলোচনা, স্মরণ ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট