জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর সঙ্গে যুক্ত হলো ‘আব্বাস’

জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর সঙ্গে যুক্ত হলো ‘আব্বাস’

ন্যাশনাল ইমার্জেন্সি সার্ভিস বা জাতীয় জরুরি সেবা ‘৯৯৯’। এই সেবার মাধ্যমে নাগরিকের জরুরি প্রয়োজনে সম্পূর্ণ টোল ফ্রি ভাবে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস প্রদান করে থাকে। এবার জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ যুক্ত হলো সাইফ চন্দন পরিচালিত ‘আব্বাস’- ছবির সঙ্গে।

সম্প্রতি জাতীয় জরুরি সেবার কার্যালয়ে একটি আনুষ্ঠানিক চুক্তি হয়েছে দুই পক্ষের মধ্যে। সেখানে জাতীয় জরুরি সেবার পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় জরুরি সেবা বিভাগের পুলিশ সুপার মো. তবারক উল্লাহ ও অন্য কর্মকর্তাগণ। আব্বাস সিনেমার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন পরিচালক সাইফ চন্দন ও নায়ক নিরব হোসেন।

এই চুক্তি নিয়ে নির্মাতা সাইফ চন্দন বলেন, ‘দিন রাত এক করে অনেক মানুষ জাতীয় সেবা ৯৯৯ এর মাধ্যমে জনগণকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে দেশজুড়ে দারুণ সাড়া পেয়েছে এই সেবার কার্যক্রম। তাদের সফল পথচলায় যুক্ত হতে পেরে ‘আব্বাস’ পরিবার আনন্দিত ও কৃতজ্ঞ। জনগণকে জাতীয় সেবা ৯৯৯ এর সেবা নিতে আগ্রহী করতে ভূমিকা রাখতে চেষ্টা করবে ‘আব্বাস’। পাশাপাশি ‘আব্বাস’ সিনেমাও জাতীয় সেবার হাত ধরে সব শ্রেণির দর্শকের কাছে খুব সহজেই পৌঁছে যাবে বলে প্রত্যাশা করছি।’

এ বিষয়ে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তবারক উল্লাহ বলেন, ‘জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ জনগণের সেবার জন্য পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুলেন্স সেবা দিয়ে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে ৯৯৯-এর সঙ্গে ‘আব্বাস’ চলচ্চিত্রটি যুক্ত হয়েছে। আপনারা ‘আব্বাস’ চলচ্চিত্রটির সঙ্গে থাকুন। একই সঙ্গে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এর সঙ্গে থাকুন।’

সাইফ চন্দন পরিচালিত এই সিনেমায় মূল ভূমিকায় অভিনয় করেছেন নিরব। চুক্তি অনুষ্ঠানেও উপস্থিত ছিলেন তিনি।

নিরব দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘৯৯৯ হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ একটি জাতীয় সেবা। ‘আব্বাস’ ছবিটি মুক্তির আগে জাতীয় জরুরি সেবা-৯৯৯ আমাদের সঙ্গে যুক্ত হলো। এটা আমাদের জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি। আমি বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানাতে চাই জাতীয় জরুরি সেবা বিভাগের পুলিশ সুপার মো. তবারক উল্লাহ স্যারকে।’

উল্লেখ্য, ১৬ জুন আনকাট সেন্সর পেয়েছে ‘আব্বাস’। জানা যায়, সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ৫ জুলাই ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেতে পারে।

পুরান ঢাকায় ‘আব্বাস’ নামে এক ছেলের বেড়ে ওঠা ও সংগ্রামকে উপজীব্য করে গড়ে উঠেছে এ চলচ্চিত্রটির কাহিনি। এই ছবিতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করছেন নিরব। আর সোহানা সাবাকে দেখা যাবে ‘চুটকি’ চরিত্রে। এ ছাড়াও ছবিতে ডালিয়া চরিত্রে দেখা যাবে সূচনা আজাদকে।

নিজের চরিত্র নিয়ে নিরব বলেন, ‘ছবিতে আমাকে একজন ক্যাডারের ভূমিকায় দেখা যাবে। আমার জন্য এই চরিত্রটি চ্যালেঞ্জিং ছিল। সেন্সর বোর্ড সদস্যদের প্রশংসা পাওয়ার পর মনে হচ্ছে আমি উতরে গেছি। এর জন্য পরিচালক সাইফ চন্দনকে ধন্যবাদ জানাব। কারণ সব অবদান তারই।’

লাইভ টেকনোলজিসের ব্যানারে নির্মিতব্য এ ছবিটির চিত্রনাট্য লিখেছেন জসিম উদ্দিন। ছবিতে আরও অভিনয় করেছেন অ্যালেকজান্ডার বো, ডন, ইলোরা গওহর, সমাপ্তি মাসুক, জয় রাজ, সূচনা আজাদ, তাসনিয়া, নুসরাত পাপিয়া, শিমুল খান প্রমুখ। ছবিটি প্রযোজনা করেছে ঢাকা ফিল্মস অ্যান্ড এন্টারটেইনমেন্ট।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট