জার্মানিকে হারিয়ে ব্রাজিলের মধুর প্রতিশোধ

জার্মানিকে হারিয়ে ব্রাজিলের মধুর প্রতিশোধ

২০১৪ বিশ্বকাপে চোটের কারনে ব্রাজিলের হয়ে সেমিফাইনালে জার্মানির বিপক্ষে খেলতে পারেনি নেইমার। নেইমারহীন ব্রাজিলের ঘরের মাঠে লজ্জার সেই স্মৃতি ফুটবলপ্রেমীদের মনে এখনো সতেজ।

চার বছর পর এবার আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে আবারও মুখোমুখি ব্রাজিল ও জার্মানি। পায়ের চোটের কারণে এবারও ব্রাজিল দলে ছিলেন না নেইমার। তবে পিএসজি এ সুপারস্টারকে ছাড়াই ঘরের মাঠে জার্মানিকে হারিয়ে প্রতিশোধ নিয়েছে সেলেসাওরা। ব্যবধানটা জার্মানির মতো খুব একটা বড় না হলেও চার বছর আগের ৭-১ গোলে হারের ক্ষতে কিছুটা হলেও মলপ লেপন করতে পেরেছে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

ম্যাচটা যতটা না ছিল ব্রাজিল-জার্মানির তার থেকে বেশি ছিল বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে জার্মানির কাছে ১-৭ গোলের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিয়ে। ব্রাজিল কি পারবে প্রতিশোধ নিতে?

এমন কথাই ঘুরপাক খাচ্ছিল ফুটবলপাড়ার সর্বত্র। জার্মানির অসাধারণ দলকে টপকে সেই অসাধ্য কাজটাই সাধ্য করলেন ব্রাজিলের ফুটবলাররা। জার্মানিকে তাদের মাটিতেই ০-১ গোলের মধুর পরাজয়ের স্বাদ দিল সেলেসাওরা।

এই হারে ২২ ম্যাচ পর পরাজয়ের স্বাদ পেল জার্মানি। শেষবার ২০১৬ সালে ফ্রান্সের কাছে হেরেছিল জোয়াকিম লোর দল।

মঙ্গলবার বার্লিনের অলিম্পিক স্টেডিয়ামে প্রীতি ম্যাচে দুদলের জমাট রক্ষণে প্রথম ৩০ মিনিট অনেকটা ম্লানই ছিলেন জার্মানি-ব্রাজিল ফরোয়ার্ডরা। আক্রমণ থাকলেও বলার মত কাজের কাজটাই যেন হচ্ছিল না।

সেখান থেকে ম্যাচের প্রথম সুযোগটা বের করেন গ্যাব্রিয়েল জেসাস। তবে কাজে লাগাতে পারেননি। ৩৬ মিনিটে দুই ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়েও গোলবারের উপর দিয়েও মাঠের বাইরে বল পাঠান ম্যানসিটি ফরোয়ার্ড।

তবে এক মিনিট পরেই সুযোগ হারানোর প্রায়শ্চিত্ত করেন জেসাস। উইলিয়ানের উড়িয়ে দেয়া পাসে জেসাসের হেড জার্মান গোলরক্ষক কেভিন ট্র্যাপ ঠেকিয়ে দিয়েও বিপদমুক্ত করতে পারেননি, বল ঢুকে যায় বিপদসীমার ভেতরে। রিভিউ থেকে নিশ্চিত হয় গোলটি সেলেসাওদেরই।

দ্বিতীয়ার্ধে জার্মানদের বিপদ আরও বাড়ানোর সুযোগ পেয়েছিলেন জেসাস। ৫৬ মিনিটে ফর্মে থাকা এই ফরোয়ার্ডের নিচু শট কোনরকমে ঠেকিয়ে দেন স্বাগতিক গোলরক্ষক কেভিন ট্র্যাপ। দুই মিনিট পর কৌতিনহোর জোরাল শটও ফিরিয়ে দেন এ গোলরক্ষক।

ম্যাচের শেষ সময় পর্যন্ত সমতায় ফেরার চেষ্টা চালিয়ে গেছে জার্মানি। যোগ করা সময়ে উইলিয়ান ড্রাক্সলারের বুলেট গতির শট ফিরিয়ে দিয়ে জাল অক্ষত রাখার পাশাপাশি জয় নিশ্চিত করেন ব্রাজিল গোলরক্ষক অ্যালিসন।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট