জিম্বাবুয়ের মাটিতে পাকিস্তান-অস্ট্রেলিয়ার ত্রিদেশীয় সিরিজ

জিম্বাবুয়ের মাটিতে পাকিস্তান-অস্ট্রেলিয়ার ত্রিদেশীয় সিরিজ

আগামী কয়েক মাসে জিম্বাবুয়েতে গিয়ে টেস্ট সিরিজ খেলার কথা ছিল বড় দুই দল অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তানের আইসিসির এফটিপি অনুসারে। কিন্তু স্পন্সরের অভাবে ব্যয়বহুল টেস্ট সিরিজ আয়োজন করতে পারছে না জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড (জেডসি)। তাই টেস্টের ক্ষতি পোষাতে এ দুই দলকে নিয়ে একটি ত্রিদেশীয় টি-টুয়েন্টি সিরিজ আয়োজন করবে দেশটি। শুরু হবে আগামী জুলাইতে।

গত বছরের অক্টোবরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজ খেলে জিম্বাবুয়ে। তাতে বোর্ডের বেশ ক্ষতি হয়। তার উপর আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপেও জিম্বাবুয়ে নেই। তাই জেডসি চাইছে, লংগার ভার্সন বাদ দিয়ে শর্টার ভার্সনে বেশি গুরুত্ব দিতে।

জেডসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফয়সাল হাসনাইন ইএসপিএন-ক্রিকইনফোকে বলেন, ‘আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো পাকিস্তান সিরিজকে এগিয়ে নেয়ার জন্য সায় দিচ্ছে না। তাছাড়া টিভির চুক্তি থেকে আমরা অনেক বেশিকিছু পাই না এবং আয়-ব্যয়ের হিসাবে সিরিজ শেষে বিশাল ক্ষতি হয়। তাই যতদিন আমরা এই সমস্যা উতরাতে না পারছি, ততদিন লিমিটেড ওভারের সিরিজের দিকেই নজর দেবো।’

সাত ম্যাচের টি-টুয়েন্টি সিরিজ খেলবে জিম্বাবুয়ে, অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তান। জিম্বাবুয়েতে এবারই প্রথমবারের মত টি-টুয়েন্টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এই সিরিজ শুরু হবে ১ জুলাই, জিম্বাবুয়ে-পাকিস্তান ম্যাচ দিয়ে। রাউন্ড রবিন লিগের সিরিজের ফাইনাল হবে ৮ জুলাই। টি-টুয়েন্টি সিরিজের সব ম্যাচ হবে হারারে স্পোর্টস মাঠে।

ছোট ফরম্যাটের পরই পাকিস্তানের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজও খেলবে জিম্বাবুয়ে। ওয়ানডে সিরিজ হবে বুলাওয়েতে।

শুধু টেস্ট নয়, পুরো সময়টাই ভাল যাচ্ছে না জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের। ২০১৯ বিশ্বকাপে উঠতে পারেনি তারা। ব্যর্থতার দায়ে হিথ স্ট্রিকসহ পুরো কোচিং স্টাফ ছাটাই করেছে বোর্ড। দেশের ক্রিকেটকে পুরনো চেহারায় ফেরাতে তাই বড় দলগুলোর সঙ্গে সিরিজ আয়োজন করছে দেশটি।

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফয়সাল হাসনাইন বলেন, ‘জিম্বাবুয়েকে আবার শক্তিশালী পর্যায়ে নিতে যেতে যে পরিকল্পনা, সেটা বাস্তবায়নের জন্য এই বড় দুটি দলের বিপক্ষে খেলা আমাদের সহায়তা করবে।’

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট