জীবনসঙ্গী হিসেবে ভুল মানুষ বেছে নেওয়ার কয়েকটি কারণ

জীবনসঙ্গী হিসেবে ভুল মানুষ বেছে নেওয়ার কয়েকটি কারণ

একটি সম্পর্কে জড়ালে দুজন মানুষের মধ্যে মতের মিল-অমিল হবেই। কোনো সম্পর্কই একেবারে পারফেক্ট হতে পারে না। অবশ্য, কিছু জুটি থেকে থাকে যারা সত্যিকার অর্থেই একে অপরের জন্য ভুল মানুষ। একই ধরণের দুটো মানুষ যেমন নিজেদের জন্য ভুল মানুষ তেমনই পুরোপুরি বিপরীত মানুষও একে অপরের জন্য ভুল। সঠিক সম্পর্কও সেখানেই সম্ভব যেখানে দুজন মানুষের মধ্যে কিছুটা অমিল থাকলেও চিন্তায় সামান্য মিল রয়েছে। বিশেষ করে যখন তা বৈবাহিক সম্পর্ক হয়। ভুল মানুষের সাথে সম্পর্কে জড়ালে বা ঘর বাঁধলে পুরো জীবনটাই সে ভুলটাকে সঙ্গে নিয়ে পার হয়ে যায়। জীবনটাই হয়ে যায় ছন্নছাড়া ধরণের। কয়েকটি কারণে সম্পর্কে জড়ানোর ক্ষেত্রে আমরা ভুল মানুষকে বেছে নেই। আর সে কারণগুলো হচ্ছে-

নিজেকে না বুঝতে পারা যখন আমরা একজন মানুষকে পছন্দ করি তখন প্রথমেই আমাদের পছন্দ হয় এমন মানুষ যিনি অনেক বেশি হাসিখুশি, দেখতে সুন্দর এবং কথা বার্তায় বেশ পটু। প্রাথমিক পর্যায়ে মনে হয় মানুষটির সাথে হাসতে হাসতেই জীবন পার করে দেওয়া যাবে। কিন্তু যখন সম্পর্ক গড়ে ওঠে, বিয়ে হয় তখন মতের অমিল, চিন্তাধারার পার্থক্য এবং আমরা কি চাই তা সঠিক ভাবে বুঝে উঠতে না পারার যন্ত্রণা আমাদের সামনে তুলে ধরে যে আমরা ভুল মানুষটিকে পছন্দ করেছি।

বিপরীতজনকে সঠিকভাবে বুঝতে না পারা যার সাথে সম্পর্ক হয়েছে তার মাঝেও নিজেকে না বোঝার ব্যাপারটি কাজ করে। তখন দুপক্ষই চেষ্টা করেন একে অপরকে বোঝার। তাড়াহুড়ো করতে থাকেন জীবনটাকে সহজ করে নেওয়ার জন্য, যার ফলে সঙ্গীকে বুঝতে পারা যায় না। তখন মনে হতে থাকে এ মানুষই আমাদের জন্য সঠিক মানুষ। তখন তাড়াহুড়ো করে বুঝে নেওয়ার মধ্যে যে ভুলটি করা হয় তা প্রকাশ পায় সম্পর্কে যাওয়ার পর।

সঠিক মানুষকে ভুল মনে হওয়া অনেক সময় একজন সঠিক মানুষকে আমরা দূরে ঠেলে দেই শুধুমাত্র এ কারণে যে, তিনি অনেক বেশি পারফেক্ট, অনেক বেশি ম্যাচিওরড ও অনেক বেশি নিয়ন্ত্রিত। আমাদের কাছে এ নিয়ন্ত্রিত জীবন বেশ যান্ত্রিক মনে হতে থাকে। মনে হতে থাকে আমাদের জন্য তিনি সঠিক নন, আর তাই আমরা সুখে থাকার জন্য যে যার দিকে পা বাড়াই তিনি হন ভুল একজন মানুষ।

একাকীত্ব সবচেয়ে যন্ত্রণাদায়ক মনে হওয়া মানুষ একেবারেই একা থাকতে পারেন না। একাকীত্বের যন্ত্রণা অনেক বেশি মনে হয় সকলের কাছে। বিশেষ করে আশেপাশের মানুষদের জুটিবদ্ধ জীবন, নিজের বয়স বেড়ে যাওয়ার যন্ত্রণা ইত্যাদি যখন আরো সামনে আসতে থাকে তখন একাকীত্বের যন্ত্রণা আরো বেড়ে যায়। এ যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে অনেকেই খুঁজে নেন সঙ্গী। বিয়ে করে ফেলেন। কিন্তু তখন ব্যাপারটি সম্পর্ক গড়া বা ভালোবাসার জন্য হয়ে উঠে না। ব্যাপারটি একাকীত্ব ঘোচানোর জন্য হয়। এ সময়টাতে ভুল মানুষ বেছে নিয়ে থাকেন অনেকেই।

শুধুমাত্র আবেগটাকে প্রশ্রয় দেওয়া আগেকার যুগে বিয়ে হতো সবদিক চিন্তা ভাবনা করে। সব কিছু মিলিয়ে নিয়ে। কিন্তু বর্তমানে আমরা শুধুমাত্র প্রশ্রয় দিয়ে থাকি ভালোবাসা নামক আবেগটিকে। যে আবেগের কারণে অন্ধ হয়ে বাদ বাকি সব দিক আমরা ভুলে যাই। এরপর যখন বাস্তবতা সামনে আসতে থাকে তখন নিজেদের ভুলটি বোঝা যায়। তখন বোঝা যায় ভুল মানুষকে পছন্দ করা হয়েছিল।

ব্যক্তি সম্পর্কে সঠিকভাবে না জানা অজ্ঞাত, রহস্যময় সবকিছুই আমাদের কাছে আকর্ষণীয় মনে হয়। এটি আমাদের সাইকোলজিক্যাল একটি ব্যাপার এবং এ ব্যাপারটিই কাজ করে যখন আমরা ভুল মানুষকে পছন্দ করি জীবনসঙ্গী হিসেবে। সব সময় তাকে নিয়ে চিন্তা করা, কতোটা সময় তার সাথে কাটানো যায়, সে কতোটা সুন্দর ইত্যাদি ভাবতে ভাবতে বিয়ে করে ফেলা হয়। যার ফলে মূল বিষয়গুলো, যেমন, তার পরিবার কেমন, তার ব্যাকগ্রাউন্ড কি, তার অর্থনৈতিক অবস্থা কি ধরণের, দুজনের মধ্যে মিল কতোটুকু ইত্যাদি বাদ পড়ে যায়।

সুখটাকে ধরে রাখার চেষ্টা কাছাকাছি থাকা, সময় কাটানো, দুজনের বিশেষ কিছু মুহূর্ত, স্মৃতি যা আমাদের আবেগে আচ্ছন্ন করে রাখে এ ধরণের ছোটোখাট সুখগুলো ধরে রাখতে। সবকিছু বাদ দিয়ে সেই সুখের পেছনে ছুটে চলা হয়। যার ফলে আমরা নিজেদের ভুল বুঝতে পারি না। সবকিছু বিসর্জন দিয়ে আমরা বিয়ে করে ফেলি সেই ছোটো ছোটো স্মৃতিময় সুখগুলোকে ধরে রাখার জন্য। কিন্তু বিয়ের পর জীবনের তাগিদে ভাটা পড়ে আসে সেই সুখগুলোতে। যে সুখটাকে ধরে রাখার জন্য সবকিছু বাদ দেওয়া হয় তা হারিয়ে যেতে থাকে। তখন বোঝা যায় ভুল মানুষের সাথে ঘর করা হয়েছে।

নিজেকে অন্যদের তুলনায় ভিন্ন ভেবে নেওয়া যখন আমরা ভালোবাসা নামক আবেগে আচ্ছন্ন থাকি তখন নিজেকে অনেক স্পেশাল ভাবতে থাকি। আশেপাশে নানা উদাহরণ দেখেও আমরা নিজেকে এবং নিজের অবস্থানকে ভিন্ন ভেবে নিয়ে নিজের মতো সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি। কিন্তু বিয়ের পর একই ধরণের এবং একই পরিস্থিতিতে পরার পরে বোঝা যায় আবেগটা অনেক ক্ষতিকারক বিষয়।

অতীতে বেদনাদায়ক স্মৃতি ভুলতে চাওয়া অনেকের জীবনেই বিয়ের আগে ভালোবাসার অনেক বেদনাদায়ক স্মৃতি থাকতে পারে। অনেকেই মনে করেন এ বেদনাদায়ক স্মৃতিগুলো ভোলার একমাত্র পথ হচ্ছে বিয়ে করে ফেলা। শুধুমাত্র একটি ব্যাপার চিন্তা করে অন্য কিছু না ভেবে হুট করে নেওয়া সিদ্ধান্ত অনেক ক্ষেত্রেই ভুল মানুষ নির্বাচনের প্রবণতা তৈরি করে। এ কারণেও জীবনে চলে আসেন একজন ভুল মানুষ।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট