জোহানেসবার্গ টেস্টে নিষিদ্ধ স্মিথ, ব্যানক্রফটকে জরিমানা

জোহানেসবার্গ টেস্টে নিষিদ্ধ স্মিথ, ব্যানক্রফটকে জরিমানা

বল টেম্পারিংয়ের অভিযোগে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ এক টেস্ট নিষিদ্ধ হয়েছেন। তাকে ম্যাচ ফির ১০০ শতাংশ জরিমানা করার পাশাপাশি একটি ডিমেরিট পয়েন্টও দিয়েছে আইসিসি।

ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থার প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন জানান, স্মিথের নামের পাশে আগে থেকেই তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট থাকায় চার ডিমেরিট পয়েন্ট মিলে পরের টেস্টে নিষিদ্ধ থাকবেন।

শাস্তি পেয়েছেন টেম্পারিংয়ের আরেক হোতা ক্যামেরন বেনক্রফটও। তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট যোগ হয়েছে তার নামের পাশে। সঙ্গে ম্যাচ ফির ৭৫ শতাংশ জরিমানা।

এই শাস্তিতে সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে জোহানেসবার্গ টেস্টে খেলতে পারবেন না স্মিথ। কেপটাউন টেস্টে দলীয়ভাবে টেম্পারিংয়ে জড়ানোর অভিযোগ ওঠার পর স্মিথ ও ওয়ার্নার ম্যাচের চতুর্থদিনের খেলা শুরুর আগেই অধিনায়ক এবং সহ-অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন।

অধিনায়কত্ব ছাড়ার দিনে স্মিথ মাঠে নেমেছেন আপদকালীন নেতৃত্ব পাওয়া টিম পেইনের অধীনে। পরে জানলেন নিষিদ্ধের সংবাদ। তবে কোন জরিমানা বা শাস্তি পেতে হচ্ছে না আরেক অভিযুক্ত ওয়ার্নারকে।

অধিনায়ক হওয়ায় অভিযোগের সমস্ত দায় স্মিথের কাঁধেই বর্তায়। তাই তার শাস্তিও বড় হওয়া উচিত বলে মনে করেন রিচার্ডসন, ‘একজন অধিনায়ক হিসেবে স্টিভেন স্মিথকে তার দলের খেলোয়াড়দের দায় নিজের কাঁধেই নিতে হবে। আর তার নিষেধাজ্ঞা একটি যথাযথ শাস্তি।’

পুরো দল মিলে বল টেম্পারিং করাকে একটি জঘন্য অপরাধ বলে মত দিয়েছেন রিচার্ডসন, ‘অস্ট্রেলিয়া দলের লিডারশিপ গ্রুপ মিলে যে কাজ করেছে তা খেলাধুলার চেতনার সম্পূর্ণ পরিপন্থী। ম্যাচ, খেলোয়াড় ও খেলার আদর্শ ধ্বংস হয়েছে এতে। আর এটি একটি জঘন্য অপরাধ।’

কেপটাউন টেস্টে শনিবার পকেট থেকে কিছু একটা বের করে বল ঘষতে দেখা যায় ক্যামেরুন বেনক্রফটকে। তিনি নিজে স্বীকার করেছেন অধিনায়ক স্মিথ আগে থেকেই এই ব্যাপারটি জানতেন।

আইসিসির নীতিমালা অনুযায়ী, হাত কিংবা কোনো কৃত্রিম পদার্থ দিয়ে বলের রং চটানো কিংবা কোনো প্রকার পরিবর্তন নিষিদ্ধ। ক্রিকেটাররা বড়জোর ট্রাউজারের সঙ্গে বল ঘষতে পারেন।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট