ধর্ষণের অভিযোগ: প্রধানমন্ত্রীকে পাশে পেলেন রোনালদো

ধর্ষণের অভিযোগ:  প্রধানমন্ত্রীকে পাশে পেলেন রোনালদো

এক মাস ধরে মাঠের চেয়ে মাঠের বাইরের কান্ড নিয়ে আলোচনায় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তার বিরুদ্ধে মার্কিন সাবেক এক মডেলকে ধর্ষণ অভিযোগের প্রতিবেদন প্রকাশ করে জামার্ন ক্রীড়া ম্যাগাজিন ডার স্পিজেল।

যেখানে বলা হয়, ২০০৯ সালে লাস ভেগাসের হোটেল রুমের শৌচাগারে ক্যাথরিন মায়োরগা নামের ওই মডেলের সঙ্গে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করেন রোনালদো। তবে এই দাবি ইতোমধ্যেই অস্বীকার করেছেন সিআর সেভেন। আর এমন দুঃসময়ে তার পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন পর্তুগালের প্রধানমন্ত্রী আন্তোনিও কস্তা।

জুভেন্টাসের তারকা ফুটবলারের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ভিত্তিহীনই মনে হয়েছে কস্তার কাছে। দেশের ইতিহাসের ¤্রষ্ঠে ক্রীড়াবিদের সমর্থনে পর্তুগিজ প্রধানমন্ত্রী বলেন, কাউকে দোষী সাব্যস্ত করার জন্য এই এতটুকু প্রমাণ যথেষ্ট নয়।

যদি কোনো কিছু থেকেও থাকে তবে আমাদের প্রমাণ আছে। সে অসাধারণ একজন ক্রীড়াবিদ, অসাধারণ ফুটবলার, পর্তুগালের সম্মান বয়ে আনা একজন সে। কোনো কিছুই তার অর্জনে কালিমা ছুড়ে দিতে পারবে না বলেই বিশ্বাস আমাদের। পর্তুগালের ফুটবল ফেডারেশনও রোনালদোকে সমর্থন দিচ্ছে।

ফেডারেশনের প্রধান ফার্নান্দো গোমেজ বলেন, আমি অনেক বছর ধরে রোনালদোকে ব্যক্তিগতভাবে চিনি। কথাগুলো শুধু তার নির্দোষ দাবির জন্য বলছি না।

আমি জানি, মানুষ হিসেবে সে কতটা ভালো। আমার নিজের পক্ষ থেকে, পর্তুগিজ ফুটবল ফেডারেশনের পক্ষ থেকে রোনালদোর প্রতি পূর্ণ সমথর্ন জানাচ্ছি। বাইরে দুঃসময় পার করলেও মাঠে ঠিকই গোল করে চলেছেন রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক এই তারকা ফুটবলার। শনিবার নিষেধাজ্ঞা থেকে ফিরে উদিনেসের বিপক্ষে ম্যাচেও গোল করেছেন তিনি।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট