নিজামীর ফাঁসি বহাল, রিভিউ খারিজ

নিজামীর ফাঁসি বহাল, রিভিউ খারিজ

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামীর রিভিউ (পুনর্বিবেচনা) আবেদন খারিজ করে দিয়ে ফাঁসির রায় বহাল রেখেছেন দেশের সর্বোচ্চ আদালত।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহার নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

বেঞ্চের অপর সদস্যরা হলেন বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

এর আগে, মঙ্গলবার নিজামীর করা রিভিউ আবেদনের ওপর উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ রায় ঘোষণার জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন।

এদিকে, রিভিউ খারিজের ফলে একাত্তরের হত্যা, ধর্ষণ এবং বুদ্ধিজীবী গণহত্যার মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর আমিরের মত্যুদণ্ড কার্যকরে আর কোনো আইনি বাধা থাকল না বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

এখন নিয়ম অনুযায়ী নিজামী নিজেদের কৃতকর্মের জন্য অনুশোচনার কথা জানিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইতে পারেন। আর এ বিষয়ের নিষ্পত্তি হলেই ফাঁসি কার্যকর করবে সরকার।

এর আগে, একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালে পাবনায় হত্যা, ধর্ষণ এবং বুদ্ধিজীবী গণহত্যার দায়ে ২০১৪ সালের ২৯ অক্টোবর নিজামীকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। চলতি বছর ৬ জানুয়ারি আপিল বিভাগ মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন। আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হওয়ার পর গত ২৯ মার্চ দায়ের করা ৭০ পৃষ্ঠার রিভিউ আবেদনে মোট ৪৬টি যুক্তি তুলে ধরে সব দণ্ড থেকে খালাস চান তিনি।

প্রসঙ্গত, নিজামী হলেন বাংলাদেশের মন্ত্রিসভায় দায়িত্ব পালন করা তৃতীয় ব্যক্তি এবং পঞ্চম যুদ্ধাপরাধী, যার সর্বোচ্চ সাজার রায় কার্যকরের পর্যায়ে এসেছে। পাবনা-১ আসন থেকে তিনবার সাংসদ নির্বাচিত হওয়া নিজামীকে ২০০১ সালে মন্ত্রিত্ব দেন খালেদা জিয়া। প্রথমে দুই বছর তিনি কৃষি মন্ত্রীর দায়িত্বে থাকলেও বিএনপি জোট সরকারের পরের তিন বছর শিল্পমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। আর সে সময়েই ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন উলফার জন্য পাচারের পথে চট্টগ্রামে ১০ ট্রাক অস্ত্র ধরা পড়ে, যে মামলার রায়ে গতবছর নিজামীকে মৃত্যুদণ্ড দেয় আদালত।

 

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক