পবিত্র লাইলাতুল কদরের দোয়া ও ফজিলত

পবিত্র লাইলাতুল কদরের দোয়া ও ফজিলত

মহান আল্লাহ তাআলা রমজান মাসের শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে মুমিন বান্দার জন্য রেখেছেন ফজিলত পূর্ণ রাত। যাকে পবিত্র কোরআনের ভাষায় বলা হয় ‘লাইলাতুল কদর’।

এ রাতে মহান আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআন নাজিল করেছেন। আর এ রাতের ফজিলত বর্ণনা করতে গিয়ে মহান আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন-

سورة القدر:

إِنَّآ أَنزَلۡنَـٰهُ فِى لَيۡلَةِ ٱلۡقَدۡرِ

وَمَآ أَدۡرَٮٰكَ مَا لَيۡلَةُ ٱلۡقَدۡرِ

لَيۡلَةُ ٱلۡقَدۡرِ خَيۡرٌ۬ مِّنۡ أَلۡفِ شَہۡرٍ۬

تَنَزَّلُ ٱلۡمَلَـٰٓٮِٕكَةُ وَٱلرُّوحُ فِيہَا بِإِذۡنِ رَبِّہِم مِّن كُلِّ أَمۡرٍ۬

سَلَـٰمٌ هِىَ حَتَّىٰ مَطۡلَعِ ٱلۡفَجۡرِ

বাংলা উচ্চারণঃ ইন্না আনযালনাহু ফী লাইলাতিল কাদরি, ওয়ামা আদরাকা মা লাইলাতুল কাদরি, লাইলাতুল কাদরি খাইরুম মিন আলফি শাহর, তানাযযালুল মালাইকাতু ওয়াররূহ, ফিহা বিইযনি রাব্বিহিম মিন কুল্লি আমরিন, সালামুন হিয়া হাত্তা মাতলাইল ফাজর।

> আমি একে (কোরআন) অবর্তীণ করেছি লাইলাতুল কদরে।

> (হে রাসূল!) আপনি কি লাইলাতুল কদর সম্বন্ধে জানেন?

> লাইলাতুল কদর হল এক হাজার মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ।

> তাদের পালনকর্তার নির্দেশক্রমে এতে (এ রাতে) প্রত্যেক কাজের জন্য ফেরেশতাগণ এবং রূহ (জিবরিল আলাইহিস সালাম) অবর্তীণ হন।

> শান্তিময় সেই রাত; যা ফজর উদয় পর্যন্ত অব্যহত থাকে। (সূরা কদর)

এ রাতের ইবাদতের ব্যাপারে প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) স্ত্রী-পরিবারসহ সারা জেগে থেকে ইবাদত-বন্দেগিতে অতিবাহিত করতেন। তিনি রমজানের শেষ দশকের ইবাদতের মতো এতো বেশি পরিশ্রম অন্য সময় করতেন না।

মহান আল্লাহ তাআলা এ রাতকে বরকতময় রাত হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন। পবিত্র কোরআনে এসেছে- “নিশ্চয় আমি ইহা (কোরআন) কে এক বরকতময় রাতে নাজিল করেছি।” (সুরা দুখান : আয়াত ৩)

এ রাতের বরকতের ফজিলত বর্ণনায় প্রিয় নবী ঘোষণা করেন, “যে ব্যক্তি ঈমানের সঙ্গে সাওয়াবের আশায় এ (লাইলাতুল কদরে) রাতে ইবাদত-বন্দেগি করে, তার আগের সব ছোট গোনাহ মাফ হয়ে যায়।”

পবিত্র কোরআন ও হাদিসের ঘোষণা অনুযায়ী এ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে লাইলাতুল কদর তালাশ করা মুসলিম উম্মাহর জন্য একান্ত জরুরি। এ রাতের সন্ধান করতে প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন-

“তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান কর।”

তাই শুধুমাত্র রমজানের ২৭ তারিখ লাইলাতুল কদর উদযাপন না করে শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে তা অনুসন্ধান করা উচিত।

হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা অন্য হাদিসে বর্ণনা করেন, “তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাত্রিগুলোতে লাইলাতুল ক্বদর অনুসন্ধান কর।”

হাদিসের ঘোষণার প্রেক্ষিতে মুসলিম উম্মাহর উচিত, রমজানের শেষ দশকের ২১, ২৩, ২৫, ২৭ ও ২৯ তারিখ রাতে লাইলাতুল কদর তালাশ করা।

এ রাতের বিশেষ দোয়া-

উম্মুল মুমিনিন হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন, তিনি রাসূলুল্লাহ (সা.) থেকে জানতে চান। হে আল্লাহর রাসুল! আমি যদি জানতে পারি যে, কোন রাতটি লাইলাতুল কদর; তাহলে তখন আমি কোন দোয়াটি পাঠ করব?

প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তুমি বল-

اَللَّهُمَّ اِنَّكَ عَفُوُّ تُحِبُّ الْعَفْوَ فَاعْفُوْ عَنَّا

উচ্চারণ :

আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আ`ফুওয়ুন; তুহিব্বুল আ`ফওয়া; ফা`ফু আন্না।’

অর্থ :

হে আল্লাহ! আপনি ক্ষমাশীল; ক্ষমা করতে ভালো বাসেন; অতএব আমাকে ক্ষমা করে দিন। (মুসনাদে আহমাদ, ইবনে মাজাহ, তিরমিজি, মিশকাত)

এক কথায় পবিত্র লাইলাতুল কদরের রাতের সব ইবাদতই আল্লাহ তাআলা কবুল করেন। আর এ রাতের সব ইবাদতই ফজিলতপূর্ণ। এ রাতে নফল নামাজ, পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, জিকির-আজকার, তাসবিহ-তাহলিল, দোয়া-দরূদ, তাওবা-ইসতেগফারের গুরুত্ব অনেক বেশি।

তাই মহান আল্লাহর ক্ষমা ও জাহান্নামের আগুন থেকে মুক্তি লাভে লাইলাতুল কদরের উদ্দেশ্যে রমজানের বেজোড় রাতগুলো জেগে উল্লেখিত ইবাদত-বন্দেগির মাধ্যমে অতিবাহিত করার জরুরি।

মহান আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআন ও সুন্নায় ঘোষিত মর্যাদাবান রাত লাইলাতুল কদরে ইবাদত বন্দেগির মাধ্যমে মুসলিম উম্মাহকে পরকালের কামিয়াবি ও জাহান্নামের আজাব থেকে মুক্তির তাওফিক দান করুন। আমিন।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*

সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট