পাকিস্তান বিশ্বাসঘাতক, পিছন থেকে ছুরি মেরেছে: বিরল উষ্মা আমেরিকার

পাকিস্তান বিশ্বাসঘাতক, পিছন থেকে ছুরি মেরেছে: বিরল উষ্মা আমেরিকার

পাকিস্তানকে এ বার বিশ্বাসঘাতক বলল আমেরিকা। মার্কিন কংগ্রেসের সদস্য তথা বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটির প্রভাবশালী কর্তা টেড পো-এর কথায়, পাকিস্তান এমন একটি দেশ, যারা পিছন থেকে ছুরি মারে। দীর্ঘ দিনের মিত্র পাকিস্তানকে ‘বেনেডিক্ট আর্নল্ড অ্যালায়ি’ (বাংলা প্রবচনে মিরজাফর) বলে আখ্যা দিয়েছেন মার্কিন আইনসভার নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের এই সদস্য। পাকিস্তানকে প্রদেয় ৩৫ কোটি ডলারের সামরিক সহায়তা আটকে দেওয়ার যে সিদ্ধান্ত প্রতিরক্ষা সচিব জেমস ম্যাটিস নিয়েছেন, এক টুইট বার্তায় সেই সিদ্ধান্তের প্রশংসাও করেছেন তিনি।

টেড পো পাকিস্তান সম্পর্কে যে মন্তব্য করেছেন, তা হাল্কা ভাবে নেওয়ার মতো নয়। চলতি মাসেই মার্কিন কংগ্রেসে পেশ করা রিপোর্টে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রশাসন জানিয়েছিল, পাকিস্তান ‘সন্ত্রাসবাদীদের নিরাপদ স্বর্গ’। তার কিছু দিনের মধ্যেই আমেরিকার প্রতিরক্ষা মন্ত্রক জানিয়ে দেয়, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়ার জন্য পাকিস্তানকে যে অর্থসাহায্য দেওয়ার কথা ছিল, তা আমেরিকা দেবে না। কারণ দীর্ঘ দিন ধরে আমেরিকার কাছ থেকে বিপুল অর্থসাহায্য নিয়েও পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ করেনি। এ বার এল টেড পো-এর কড়া বয়ান। আমেরিকার বৈদেশিক সম্পর্ক কমিটির অধীনে যে ‘সন্ত্রাসবাদ, পরমাণু অস্ত্র প্রসার রোধ এবং বাণিজ্য’ সাব-কমিটি রয়েছে, পো তার চেয়ারম্যান। তিনি প্রতিরক্ষা সচিবের সিদ্ধান্তের প্রশংসা করে একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছেন।  মঙ্গলবার সকালে তিনি সেই বিবৃতি টুইটও করেছেন।

আমেরিকার কাছ থেকে বিপুল অঙ্কের অর্থসাহায্যও নেব, সন্ত্রাসবাদীদেরও আশ্রয় দেব— পাকিস্তানের এই নীতি আর সহ্য করা হবে না। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই খুব স্পষ্ট করে এ কথা বুঝিয়ে দিচ্ছেন ট্রাম্প। ছবি: এএফপি।

টেড পে-এর মন্তব্য, “পিছন থেকে ছুরি মারা রাষ্ট্র পাকিস্তান আদৌ হাক্কানি নেটওয়ার্কের মতো সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করেছে কি না, তা খতিয়ে দেখার অধিকার প্রতিরক্ষা সচিবের রয়েছে।” পাকিস্তানকে যে ৩৫ কোটি ডলারের অর্থসাহায্য দেওয়ার কথা ছিল, তা না দিয়ে জেমস ম্যাটিস যথাযথ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলেও ।

শুধু ‘পিছন থেকে ছুরি মারা রাষ্ট্র’ বলে ক্ষান্ত হননি প্রভাবশালী মার্কিন কংগ্রেস সদস্য। তিনি পাকিস্তানকে ‘বেনেডিক্ট আর্নল্ড অ্যালায়ি’ বলেও আক্রমণ করেছেন। বেনেডিক্ট আর্নল্ড আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে অত্যন্ত ঘৃণিত একটি নাম। সেই যুদ্ধে আর্নল্ড মার্কিন বাহিনীর অন্যতম সেনাপতি ছিলেন। কিন্তু গোপনে তিনি প্রতিপক্ষ ব্রিটিশদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলতেন এবং পরে বিশ্বাসঘাতকতা করে ব্রিটিশ বাহিনীতে যোগও দিয়েছিলেন। সেই থেকে ‘বেনেডিক্ট আর্নল্ড’ নামটি আমেরিকায় ‘বিশ্বাসঘাতক’ শব্দের সমার্থক। ঠিক যেমন ‘মিরজাফর’ নামটি বাংলায় বিশ্বাসঘাতকতার সমার্থক। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আমেরিকার সুর গত কয়েক বছর ধরেই চড়ছিল। কিন্তু টেড পো এ বার যে ভাষায় পাকিস্তানকে আক্রমণ করলেন, পাক-মার্কিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ইতিহাসে তা বেশ বিরল।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট