পেঁয়াজ বিমানে উঠে গেছে, আর চিন্তা নাই: প্রধানমন্ত্রী

পেঁয়াজ বিমানে উঠে গেছে, আর চিন্তা নাই: প্রধানমন্ত্রী

পেঁয়াজের মূল্যের ক্রমাগত উর্ধ্বগতি মোকাবিলায় পেঁয়াজ বিমানের কার্গোতে করে আমদানি করা হচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, পেঁয়াজ বিমানে উঠে গেছে, আর চিন্তা নাই।

শনিবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত স্বেচ্ছাসেবক লীগের তৃতীয় ত্রি-বার্ষিকী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পেঁয়াজের একটি সংকট দেখা দিয়েছে, এটি মোকাবিলা করায় আমরা দেশের বাইরে থেকে পেঁয়াজ আমদানি করছি। কিন্তু হঠাৎ করে পেঁয়াজের দাম এত কেনো বেড়ে গেলো সেটা দেখা হচ্ছে। আমি তদন্ত করে দেখতে বলেছি। কেউ মজুদ করে পেঁয়াজের দাম বাড়াচ্ছে কিনা।

তিনি আরও বলেন, অনেক সময় প্রাকৃতিক অবস্থার কারণে পেঁয়াজের উৎপাদন কম হয়ে থাকে। আমরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করে থাকি। বন্যার কারণে সেখানেও পেঁয়াজের উৎপাদন কম হয়েছে। সেখানে একটি রাজ্য বাদে সব রাজ্যেই পেঁয়াজের দাম বেশি। ওই রাজ্যে কম কারণ তারা তাদের উৎপাদিত পেঁয়াজ বাইরের রাজ্যগুলোতে বিক্রি করে না।

পেঁয়াজের মজুদদারদের সতর্ক করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পেঁয়াজ চলে আসছে। আর মাত্র এক-দুই দিন। এরপর যারা মজুদ করেছে, তারা কি করে দেখতে চাই। এটা বেশি দিন রাখা যায় না, পচে যায়। শুনছি অনেকে নষ্ট পেঁয়াজ শুকানোর চেষ্টা করছেন।

দুর্নীতির টাকায় কেউ বিলাসী জীবন যাপন করলে জণগণ তা মেনে নেবে না মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা মাদক, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখব। অসৎ পথে উপার্জনের বিরিয়ানি থেকে সৎ পথের নুন ভাত ভালো।

তিনি বলেন, এই দুর্নীতিবাজরা যেন আর ক্ষমতার আসতে না পারে, সেজন্য দেশের মানুষকে সতর্ক করতে হবে। দুর্নীতিবাজরা যেন আর ক্ষমতায় আসতে না পারে।

এসময় তিনি বলেন। আমাদের মূল নীতি হচ্ছে কেউ পেছনে থাকবে না। দেশের কোনো মানুষ পেছনে পড়ে থাকবে না। এদেশ দারিদ্রমুক্ত হলে, দারিদ্র বিক্রি করে যারা চলতো তাদের আঁতে ঘা লাগে, তারা অপপ্রচার করে। কেউ যেন অপপ্রচারের বিভ্রান্ত না হয় সেই দিকটা আমাদের সকলের মাথায় রাখতে হবে।

আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে সরকার গৃহীত আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য যা যা করণীয় তা আমরা করে যাচ্ছি এবং করে যাবো। এমন একটা সময় ছিলো যখন মানুষ এক বেলা খেতে পেত না, এটা খুব বেশি দিন আগের কথা নয়। ১০-১১ বছর আগের কথাটিই আপনারা চিন্তা করুন তখন দেশের অবস্থা কী ছিলো, এখন আর সেই অবস্থা নাই।

তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি ২৩টা উপজেলায় ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহের উদ্বোবধন আমরা করলাম এবং ৭টি নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্র আমরা করলাম। সেখানে একটি উপজেলা একদম দুর্গম এলাকা, সেখানকার এক বোন বললেন তার গ্রামে তিনি বিউটিফিকেশনের কাজ করেন। এই বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে বলে তার কাজ আরও সহায়ক হবে। মাননীয় স্পিকার আপনি চিন্তা করেন, গত এক দশকে মানুষেয় জীবন যাত্রার কতোটা পরিবর্তন ঘটেছে।

প্রধানমন্ত্রী যোগ করেন, একটা ইউনিয়নে সেখানেও বিউটিফিকেশনের কাজ হয়। একটি মেয়ে সেই কাজ করে তার খাবার মতো উপার্জন করছে। আমাদের গৃহিত পদক্ষেপের সুফলটা যে গ্রামগঞ্জে পৌঁছে গেছে। সেটাই হচ্ছে বড় কথা।

এসময় তিনি আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের রাজনীতি কথা তুলে ধরে বলেন: আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে আইয়ুব খান, জিয়া, এরশাদ, খালেদা করেছেন ষড়যন্ত্র করেছে, কিন্তু পারেনি। কিন্তু আমাদের কিছু করতে পারেনি। কারণ, আওয়ামী লীগের শেকড় বাংলাদেশের মানুষের মাঝে।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
ডেস্ক রিপোর্ট

সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
What is the capital of Egypt ? ( Cairo )