বঙ্গবন্ধুর খুনি নূরের তথ্য প্রকাশে কানাডার আদালতে রায়

বঙ্গবন্ধুর খুনি নূরের তথ্য প্রকাশে কানাডার আদালতে রায়

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি নূর চৌধুরীর স্ট্যাটাস (যে অবস্থায় বসবাস করছেন) জানতে চেয়ে বাংলাদেশের আবেদন পুনর্বিবেচনা করতে হবে, জানালেন কানাডার উচ্চ আদালত। এই খবর দিয়েছে দেশটির গণমাধ্যম।

এই ঘাতকের তথ্যের গোপনীয়তার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের ‘জুডিশিয়াল রিভিউয়ের’ আবেদন মঞ্জুর হয়েছে। কানাডা সময় মঙ্গলবার (বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোরে) অটোয়ার অন্টারিওর ফেডারেল আদালত ওই রায় দেয়।

ফেডারেল আদালতের বিচারক জেমস ডব্লিউ ওরেইলি জানান, নূর চৌধুরীর অভিবাসন সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশে জনস্বার্থের ব্যাঘাত ঘটবে না। সুতরাং তার বিষয়ে বাংলাদেশকে তথ্য না দেওয়ার সিদ্ধান্ত কানাডা সরকারকে পুনর্বিবেচনা করতে হবে।

নূর চৌধুরী কানাডায় কীভাবে আছেন এবং বহিষ্কার ঠেকাতে তার ‘প্রি-রিমুভাল রিস্ক অ্যাসেসমেন্টের’ (পিআরআরএ) আবেদন কী পর্যায়ে আছে সে বিষয়ে বাংলাদেশকে কানাডা কোনো তথ্য দিচ্ছে না- এ অভিযোগ করে গত বছর জুন মাসে ‘জুডিশিয়াল রিভিউয়ের’ (বিচারবিভাগীয় পর্যালোচনা) আবেদনটি করা হয়। কানাডার আদালতে করা এ আবেদন নিয়ে গত মার্চে শুনানি হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা কীভাবে কানাডায় বসবাস করছেন, সেই অভিবাসন সংক্রান্ত তথ্য দেশটির সরকারের কাছে চেয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু আইনে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত কাউকে প্রত্যর্পণে বাধা থাকায় কানাডা সরকার ‘জনস্বার্থ রক্ষার’ যুক্তি দিয়ে তথ্য প্রকাশ না করার সিদ্ধান্ত জানিয়েছিল।

ঢাকার আবেদন মঞ্জুর করে উচ্চ আদালত বলেন, কানাডা কর্তৃপক্ষ ও নূর চৌধুরী বাংলাদেশকে তথ্য না দেওয়ার বিষয়ে যেসব যুক্তি তুলে ধরেছেন তা গ্রহণযোগ্য নয়। গোপনীয়তা আইনেও এসব যুক্তি খাটে না।

বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় দণ্ডিতদের মধ্যে পাঁচজনের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। পলাতক আছেন খন্দকার আবদুর রশিদ, এ এম রাশেদ চৌধুরী, শরিফুল হক ডালিম, এসএইচএমবি নূর চৌধুরী, আবদুল মাজেদ ও রিসালদার মোসলেম উদ্দিন খান।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট