বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের সেমিতেই স্বপ্নভঙ বাংলাদেশের

বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের সেমিতেই স্বপ্নভঙ বাংলাদেশের

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সেমিফাইনালে স্বপ্নভঙ্গ হলো বাংলাদেশের। শক্তিশালী ফিলিস্তিনের বিপক্ষে আজ ২-০ গোলে হার দেখে স্বাগতিকরা। কক্সবাজার স্টেডিয়ামে নির্ধারিত ৯০ মিনিট পর্যন্ত এক গোলে পিছিয়ে ছিল বাংলাদেশ। ইনজুরি সময়ে দ্বিতীয় গোলে ফাইনাল নিশ্চিত করে ফিলিস্তিন।

আগের ফর্মেশনে বদল এনে বুধবার ৪-১-৪-১ ফর্মেশন নিয়ে মাঠে নেমেছে স্বাগতিক দল, একাদশে পরিবর্তন এসেছে চারটি। বাদ পড়েছেন ডিফেন্ডার রহমত মিয়া ও সুশান্ত ত্রিপুরা এবং ফরোয়ার্ড তৌহিদুল আলম সবুজ ও রবিউল হাসান। আগের ম্যাচে বিশ্রাম পাওয়া ডিফেন্ডার ওয়ালী ফয়সাল ও বিশ্বনাথ ঘোষ, মিডফিল্ডার জামাল ভূঁইয়া এবং ফরোয়ার্ড মাহবুবুর রহমান সুফিল ফিরলেও গোলের দেখা পায়নি লাল-সবুজ দল।

শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফিলিস্তিন অষ্টম মিনিটে এগিয়ে যায়। মুসাব মাত্তাতের কর্নার থেকে হেডে লক্ষ্যভেদ করেন মোহাম্মদ বালাহ। দুই মিনিট পর জোনাথন জরিল্লার কর্নার থেকে আব্দাললতিফের হেড ফিরে আসে ক্রসবারে লেগে।

পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ আপ্রাণ চেষ্টা করেছে ম্যাচে ফেরার। ১৩ মিনিটে মাশুক মিয়া জনির জোরালো শট ফিরিয়ে দিয়েছেন গোলকিপার। ২১ মিনিটে আবার সুযোগ। পাল্টা আক্রমণ থেকে নাবীব নেওয়াজ জীবন বল বাড়িয়েছেন মাহবুবুর রহমান সুফিলের উদ্দেশে। তবে বল সুফিলের কাছে যাওয়ার আগে পেয়ে যান ফিলিস্তিনের তামের সালেহ। সালেহ গোলকিপারকে ব্যাক পাস দিতে চেয়েছিলেন, কিন্তু সুফিল বলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে শট নেন পোস্ট লক্ষ্য করে। সে যাত্রা  ডিফেন্ডার মুসাব বাত্তাত বাঁচিয়ে দেন ফিলিস্তিনকে।

২৮ মিনিটে আবার হতাশা, বিপলুর ক্রস থেকে সুফিল হেড করতে পারেননি। বিরতির ঠিক আগে দুটো সুযোগ নষ্ট করেছে বাংলাদেশ। প্রথমবার ওয়ালীর ক্রসে জীবন কানেক্ট করতে পারেননি। পরেরবার সুফিলের পাস থেকে জীবনেরই কোনাকুনি শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়েছে।

দ্বিতীয়ার্ধে দুই দলের সামনেই সুযোগ এসেছে গোল করার। ৫৮ মিনিটে বিশ্বনাথের চিপ থেকে জীবন হেড করতে পারেননি। এরপর টানা তিনটি কর্নার পেলেও গোলের দেখা পায়নি বাংলাদেশ। গোলকিপার আশরাফুল ইসলাম রানাও বাঁচিয়ে দিয়েছেন স্বাগতিকদের। ওদেই দাব্বাঘ ও খালেদ সালেমের দুটো জোরালো শট  ঠেকিয়ে দিয়েছেন তিনি। ৮৮ মিনিটে বাতরান ইসলামের গড়ানো শট চলে যায় সাইডবার ঘেঁষে। ইনজুরি সময়ে পর পর দুটি কর্নারে আশা জেগেছিল দর্শকদের মনে, কিন্তু কাজ হয়নি। বরং শেষ মুহূর্তে ‘আনমার্কড’ সামেহ মারাবার জোরালো ভলি বিদায় নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশের।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট