বাংলাদেশি শিশুর ইসলামি জ্ঞানে অবাক বিশ্ব (ভিডিও)

বাংলাদেশি শিশুর ইসলামি জ্ঞানে অবাক বিশ্ব (ভিডিও)

শিশুটির নাম ফাতিমা মাসুদ। বয়স মাত্র দুই বছর। এখনো ঠিক মতো কথা বলতে পারে না।

তবে আশ্চের্যের ব্যাপার হলো তাঁকে ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে যে প্রশ্ন করা হচ্ছে তার সব উত্তর দিয়ে যাচ্ছে। ফাতিমাকে প্রশ্নগুলো করছে তার বড় বোন মারইয়াম মাসুদ।

ফাতিমা যে কঠিন কঠিন প্রশ্নগুলোর জবাব দিচ্ছে তা অনেক প্রাপ্ত বয়স্ক মুসলিমও ভালভাবে জানে না। শিশুটির উত্তর থেকে তার জ্ঞানের গভীরতা সহজেই অনুমেয়।

ইসলামের পাঁচটি ভিত্তি সম্পর্কেও জ্ঞান রাখে ফাতিমা। ঠিক করে কথা না বলতে পারা ফাতিমা কালিমা তাইয়্যেবা, ঘুমাতে যাবার দোয়া ও জ্ঞান বৃদ্ধির দোয়া শিখে ফেলেছে।

বিসমিল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ, ইনশাআল্লাহ কখন বলতে হয় জানে এই শিশু।

সামাজিক মাধ্যমে এ ভিডিওটি এখন বেশ ভাইরাল। ফেসবুকে ইতিমধ্যে ভিডিওটি ৫২ লক্ষ ২৫ হাজার বার দেখে ফেলেছে বিশ্ব।

কমেন্টে প্রশংসায় ভাসছে এ দুই বোন।

এ সহোদরের মতো সন্তানের বাব- মা হওয়া ভাগ্যের ব্যাপার বলে উল্লেখ করছেন অনেকে। ভিডিওটির প্রথমে দেখা যায়, মারইয়াম তার দুই বছর বয়সী বোনকে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে।

এটাই ফাতিমার প্রথম সাক্ষাৎকার উল্লেখ করে মারইয়াম ফাতিমাকে প্রশ্ন করে, আমাদের সৃষ্টিকর্তা কয়জন?

কোনো সময় না নিয়েই ফাতিমা উত্তর দেয় – একজন।

আমাদের সৃষ্টিকর্তার নাম কি?

আল কোরআন কার প্রেরিত?

সবকিছু কে সৃষ্টি করেছেন?

এসব প্রশ্নের উত্তরে ফাতিমা জানায় – আল্লাহ দ্য অলমাইটি (সর্বশক্তিমান আল্লাহ)।

সাক্ষাৎকারের শেষের দিকে আল কোরআনের সবচেয়ে ছোট সুরা আল কাওসার পুরোটা পাঠ করে শুনায় ফাতিমা।

ভিডিও দেখে অনেকে বলছেন, এ ধরনের চর্চার মাধ্যমে শিশুরা নৈতিক শিক্ষা লাভ করবে এবং তাদের ভবিষ্যত জীবনে প্রতিভা বিকাশের পথ প্রশস্থ হবে।

কেউ বলছেন, প্রত্যেক মুসলিম পরিবারের শিশুদের এমন চর্চা অব্যাহত থাকলে আগামী ২০ বছর পরে এ দেশের সামাজিক চিত্র রূপকথার মতই হবে।

মুসলিম জাতি হিসাবে সব বাবা-মায়ের উচিত এভাবে ইসলামিক শিক্ষা দিয়ে বাচ্চাদের গড়ে তোলা মন্তব্য করে এই দুই বোনকে উদাহরণ হিসাবে ভিডিওটি শেয়ার করেছেন অনেকে।

রমজান মাসে রোজা রাখার ব্যাপারেও জ্ঞান রাখে মারইয়ামের বোন ফাতিমা।

ফাতিমা ও মারইয়ামের পরিচয় সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যায়নি। এ দুই শিশু বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকা নিবাসী বলে জানিয়েছেন নেটিজনরা।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট