বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চায় ইইউ

বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চায় ইইউ
বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায় ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। বুধবার রাতে সফররত ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের এ কথা জানান। বিএনপির গুলশান কার্যালয়ে এ বৈঠক হয়।

ফখরুল বলেন, ‘তারা (ইইউ) বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চায়। সব দল অংশ নিক এটা তারা চায়। ভোটাররা যাতে ভোট দিতে পারে, তাদের মতামত যেন প্রকাশ করতে পারে সে বিষয়টা সম্পর্কে পরিষ্কার করে তারা বলেছে।’

তিনি জানান, খালেদা জিয়ার রায় ও কারাগারে যাবার বিষয়টি ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিদলকে অবহিত করেছে বিএনপি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সভায় দেশের বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থা, দেশনেত্রীর মামলার রায় এবং বর্তমানে গণতন্ত্রের যে অবস্থা রয়েছে সে বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। দেশনেত্রীর রায়ের বিষয়টি আমরা তাদেরকে অবহিত করেছি।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এই রায়টি আগামী নির্বাচনে অন্তরায় হবে কি না সেই বিষয়টা তারা দেখছেন।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘একটা জিনিস আপনাদেরকে বুঝতে হবে। বেশিরভাগ পশ্চিমা দেশ আইন, আইনের শাসন, বিচার, বিচার বিভাগ ও রায় এগুলোর বিষয়ে নিজস্ব নর্মস-ভ্যালু পোষণ করে। তাদের পক্ষে বাংলাদেশের বিষয়গুলো বুঝতে কষ্ট হয়। বেগ পেতে হয়। তাদের যে কালচার আর আমাদের দেশের যে অবস্থা তারা তা মেলাতে পারে না। এটা হচ্ছে বাস্তবতা। এ কারণে হয়তোবা তারা দেখছে, বলছে আমরা অবজার্ভ করছি।’

মির্জা আলমগীর বলেন, ‘অবজারভার পাঠানোর জন্য নির্বাচন কমিশন তাদেরকে চিঠি দিয়েছে, তারা পাঠাবেন কি পাঠাবেন না- প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন না হলে সাধারণরত নির্বাচনী পর্যবেক্ষক তারা পাঠান না। গতবার (দশম সংসদ নির্বাচন) তারা পাঠাননি।’

তিনি বলেন, ‘এই বিষয়গুলো খুব পরিষ্কার যে, ২০১৪ সালের নির্বাচনের পরেও গোটা বিশ্বের যে প্রতিক্রিয়া ছিল, তারা বলেছে যে, একটা ফ্রড ইলেকশন হয়েছে এবং নির্বাচনটা গ্রহণযোগ্য নয়। এখনো তারা আশা করে যে, ইনক্লুসিভ ইলেকশন হবে। সেজন্য তারা কাজ করছে। নির্বাচন কমিশনসহ বিভিন্ন স্টেক হোল্ডারদের সাথে তারা কথা-বার্তা বলছেন।’

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক