বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে হিসেবে আমি অনেক দায়িত্বশীল: সাফা কবির

বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে হিসেবে আমি অনেক দায়িত্বশীল: সাফা কবির

অনলাইনের সহস্র ছেলের ক্রাশ তিনি, এই সময়ের সম্ভাবনাময় মডেল ও অভিনেত্রী। মুঠোফোনে কথা হচ্ছিলো ‘সাফা কবিরের’ সঙ্গে, তার মুক্তির অপেক্ষায় থাকা স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘দেয়াল’ ও অনান্য বিষয় নিয়ে। তারই চুম্বকাংশ তুলে ধরা হলো ডাকপিয়ন২৪ এর পাঠকদের জন্য।

ডাকপিয়ন২৪: কেমন আছেন আপনি?

সাফা কবির: ভাল আছি।

ডাকপিয়ন২৪: সম্প্রতি আপনি অভিনয় করেছেন ‘দেয়াল’ নামের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবিতে। ‘দেয়াল’এর গল্প আর এতে আপনার ক্যারেক্টার নিয়ে শুনতে চাই?

সাফা কবির: দেয়ালে এর গল্পটা এখনই বলছিনা, আমি চাই স্বল্পদৈর্ঘ্যটি মানুষ দেখুক। ইতিমধ্যে মিউজিক ভিডিওটা দেখছে মানুষ, এক কথায়  মিউজিক ভিডিওটা যে রকম গল্পটাও ঠিক সে রকম। আর আমার চরিত্রটা হচ্ছে, এখানে আমি খুবই সাধারন ঘরের সাধারন একটা মেয়ে। মেয়েটার অনেক স্বপ্ন তার বিয়ে নিয়ে। সে যাকে ভালবাসে তাকে সে বিয়ে করতে চায়। আর মেয়েটা সাঁজ-গোঁজ খুবই কম করে। সে তার সব সাঁজ গোঁজ বাঁচিয়ে রাখে বিয়ের জন্য, তার বিয়ের দিন মন ভরে সাজবে সে আশায়। সে যাকে ভালবাসে তার কখনও চাকরী হয়না। মেয়েটা অপেক্ষায় থাকে তার কবে চাকরী হবে।  ছেলেটা বাসায় এসে তার মাকে বলবে, তাকে বিয়ে করবে। সে অপেক্ষায় দিন গুনতে থাকে মেয়েটি।

ডাকপিয়ন২৪: সহশিল্পী হিসাবে তৌসিফ কেমন?

সাফা কবির: তৌসিফ ভাই খুবই ভাল, খুবই লক্ষী একটা ছেলে। খুবই রেসপন্সসিবল একটা ছেলে। তার সাথে আমার প্রথম কাজ হয় ‘অল টাইম দৌড়ের উপর’ টেলিফিল্মে।  যেখানে ওর সাথে আমার কোন সিকুয়েন্স ছিল না, তারপরও সেখান থেকে আমার সাথে তার পরিচয় হয়। এরপর তৌসিফের সাথে আমার সবচেয়ে বেশি সিঙ্গেল নাটকে কাজ করা হয়েছে। সামহাউ স্কিনে আমার আর তৌসিফের জুটিটা দেখতে দর্শকরা খুব বেশি পছন্দ করে। আর ডিরেক্টরও কেনও জানি আমার আর তৌসিফের পেয়ারটা বেশি করে।

feat_02-safa

ডাকপিয়ন২৪: আপনার অভিনয়ে জীবনের শুরুটা কিভাবে?

সাফা কবির: শুরুটা হয়েছে ‘অল টাইম দৌড়ের উপর’ থেকে। যেটার নির্মাতা আদনান আল রাজিব। আমি কখনো চিন্তা করিনি  আমি নাটক করবো বা টিভির সামনে কাজ করবো।  ওটা খুব শখের একটা কাজ ছিলো।  তারপরে কিভাবে করে যেন টেলিকম অপারেটর এয়ারটেলের কিছু টিভিসির কাজ করা হয়।  বেশ কিছু দিন আমি মডেলিংও করি। তখনও আমি তখনও শিউর ছিলাম না  আমি অভিনয় করবো, ক্যামেরার সামনে কাজ করবো। তখন আশপাশ থেকে কাছের মানুষেরা বলতো, তুমি অভিনয়টা কর, তুমি পারবে। আমি ভাবতাম আমিতো করতে চাই-ই না, আমাকে কেন মানুষ এমন জোরাজোরি  করছে। আস্তে আস্তে অভিনয়টা করতে ভাল লাগতে শুরু করলো। অভিনয় করতে যেয়ে বুঝলাম এটাও তো একটি ফ্যামিলির মত, এখানেও তো মজা লাগে। আমার কাছে মনে হয় মডেলিং এর থেকে অ্যাকটিংটা বেশী ইন্টারেষ্টিং। মডেলিং হলো ছবি তোলা, কিন্তু এ্যাকটিং হচ্ছে নিজেকে পুরোপুরি এক্সপ্রেস করার মাধ্যম। এই দিক থেকেও আমার মনে হচ্ছিল আমি অভিনয়টা করতে চাই। সেখান থেকে আস্তে আস্তে একটু একটু  সিরিয়াস হতে হতে আজকে আমি এখানে। অ্যাকটিংটা সিরিয়াস নিয়েছি লাস্ট এক বছর থেকে, এরআগে আমি অ্যাকটিং নিয়ে একদমই সিরিয়াস ছিলাম না।

ডাকপিয়ন২৪: কী ধরনের চরিত্রে অভিনয় বেশি করতে চান?

সাফা কবির: আমি সব ধরণের চরিত্রেই অভিনয় করতে চাই। এমন কিছু নাই যে এই ধরণের অভিনয়টা বেশি করতে চাই। তবে মানুষ আমাকে খুব প্রেমের নাটক, রোমান্টিক নাটকে বেশি দেখছে। কিন্তু আমি চাই যে মানুষ আমাকে ডিফারেন্ট ক্যারেকটার নিয়েও চিন্তা করুক।

ডাকপিয়ন২৪: পছন্দের অভিনেতা এবং অভিনেত্রী?

সাফা কবির: পছন্দের তো অনেকেই আছে। স্পেসেফিক কারো নাম বলে অন্যদের মনে কষ্ট দিতে চাইনা।

ডাকপিয়ন২৪: ডিপ্লোমেটিক উত্তর! আচ্ছা, এখন পর্যন্ত যে নাটক ও স্বল্পদৈর্ঘ্য গুলো করেছেন সেগুলোর কোনটিকে আপনি সেরা কাজ মনে করেন?

সাফা কবির: আমার মনে হয় আমার প্রত্যেক পরের কাজটা এর আগেরটা থেকে আরও ভালো হয়েছে। আমি আশা করছি  ‘দেয়াল’ সামনে আসছে সেটা আরও ভাল হবে। তবে সত্যি বলতে এখন পর্যন্ত আমি আমার সেরাটা নিজের চোখে খুঁজে পাই নি। তবে আমি খুবই হোপফুল ‘দেয়াল’ অনেক  ভাল হবে।

ডাকপিয়ন২৪: গল্প,সহশিল্পী,পরিচালক নাকি বাজেট/প্রযোজক কোনটাকে বেশি গুরুত্ব দেন একটা কাজ করার ক্ষেত্রে?

সাফা কবির: সবকিছু! এটা হচ্ছে একটা প্যাকেজ, একটা ছাড়া আরেকটা ইনকম্পিলিট। কোনটা বাদ দিতে পারবেন না, সব কিছু  থাকতে হবে।

ডাকপিয়ন২৪: একজন শিল্পীর সবচেয়ে বড় গুণ কি থাকা উচিত?

সাফা কবির: একজন শিল্পীর সবেচেয় বড় গুণ থাকা উচিত ধৈর্য্য, পেশেন্স।

ডাকপিয়ন২৪: এবারে ঝটপট দুটো ব্যক্তিগত প্রশ্ন, বাবা-মায়ের ‘মেয়ে’ হিসেবে সাফা কেমন?

সাফা কবির: বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে হিসেবে সাফা অনেক দায়িত্বশীল। আমি আমার বাবা মায়ের অনেক প্রিয় একটা ‘বাচ্চা’!  বিকজ আমি তাদের একমাত্রই বাচ্চা! আমি বাসার মধ্যে অনেক চুপচাপ, না মানে সবখানেই আমি চুপচাপ।  আমি সবার সাথে মিশিনা আর যার সাথে মিশি তার সাতে প্রাণ খুলে মিশি। আমাকে সবাই বলে যে একটু বাবলি টাইপের।

ডাকপিয়ন২৪: এবারে প্রশ্ন নম্বর দুই, ‘গার্লফেন্ড’ হিসেবে সাফা কেমন?

সাফা কবির: গার্লফ্রেন্ড হিসেবে আমি কিভাবে বলবো আমি কেমন। তবে আমার মনে হয়, আমার অনেক ধৈর্য্য।

feat_03-safa

ডাকপিয়ন২৪: বর্তমান ব্যস্ততা কি নিয়ে?

সাফা কবির: আমার দুইটা সিরিয়াল যাচ্ছে অনএয়ারে। একটা হচ্ছে ‘সুপার গার্ল’ জিটিভিতে। আরেকটা হচ্ছে ‘থ্রি  সিস্টার’ বাংলাভিশনে। আর চ্যানেল আই এরজন্য একটা নাটক আসবে  আর নাগরিক টিভি এর জন্য একটা কাজ আসবে। এছাড়াও ভ্যালেন্টাইন্স ডে নিয়ে কথা চলছে। আর এছাড়াও প্রত্যেক রবিবারে আমি এফডিসিতে একটা শো করি, ওটাও করছি।

ডাকপিয়ন২৪: তাহলে খুব ব্যস্ততার মধ্যেই সময় কাটছে সাফার। ফিউচার নিয়ে ক্যারিয়ার প্লানিং?

সাফা কবির: আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রতিদিন চেঞ্জ হয়। নেক্সট আমি জানি না,আমি কি করবো। তবে যেটা আমার মাথায় এখন আছে তা হলো অভিনয়টা খুব ভালভাবে করতে চাই আমি। এটা নিয়ে আমার সব চিন্তা-ভাবনা এখন। অনেক ডিফারেন্ট ক্যারেক্টার করতে চাই আমি, পরে যেনো আপসোস না থাকে যে আল্লাহ যে আমি এটা কেন করতে পারলাম না! আমার তো টাইমটা শেষ হয়ে গেলো, আমার তো বয়স শেষ হয়ে গেলো, এ রকম জেনো আপসোস না থাকে।  আমি তো বুড়ি হয়ে গেলাম, এটা  কেন করতে পারলাম না, এরকম যেনো না হয়।

ডাকপিয়ন২৪: এবারে বিপিএল আপনাকে খুলনা টাইটান্সের জার্সিতে দেখা গেছে, এ নিয়ে যদি কিছু বলতেন?

সাফা কবির: আমরা খেলা দেখতে গিয়েছিলাম। ওদেরকে সাপোর্ট করেছি মাঠে থেকে, এইতো।

ডাকপিয়ন২৪: পাঠকদের উদ্দেশ্যে কিছু বলার থাকলে?

সাফা কবির: সবার উদ্দেশ্যে এটাই বলতে চাই, শুধু আমি না সব অভিনেতা-কলাকুশলীরাই বলতে চাইবে, মিডিয়ায় আমরা অনেক কষ্ট করে কাজ করি। হয়তোবা দর্শকরা এটাও ভাবতে পারে টিভিতে একটা মেয়ে মেকআপ করে, সাঁজ-গোঁজ করে কথাই তো বলছে বা অভিনয় আর কত করছে! হ্যাঁ, হ্যাঁ খুব সুন্দর অভিনয় করছে।

জিনিসটা কিন্ত এখানেই শেষ না।  এই অভিনয় এর পেছনে কিন্তু অনেক গল্প থাকে। যেমন আমি গত কুরবানির ঈদে একটা নাটকের কাজ করার জন্য ঢাকার বাইরে মানিকগঞ্জে দুই দিন শুটিং এ গিয়েছিলাম। সেখানে যাবার পর টানা দুইটা দিন আমার একশ দুই ডিগ্রি জ্বর। সকাল থেকে রাত আমি যতই মেডিসিন খাচ্ছি, যতই কিছু করছি কিছুতেই জ্বর নামাতে পারছি না। ডিরেক্টর একটা টাইমে আমাকে দেখে বলছে সাফা এবারের শুটিংটা তুমি বাদ দেও কেননা তোমাকে দেখে আমার নিজেরই খারাপ লাগছে।

আমি চাই আমার দর্শকদেরকে ডিফারেন্ট কিছু দিতে, সুন্দর কিছু দেখাতে। ওই কষ্টটা নিয়ে কিন্তু আমি কাজটা করেছি। যেহেতু আমরা এত কষ্ট করে কাজ করি, সেহেতু আপনারা অবশ্যই আমাদের কাজগুলো দেখবেন।

কয়েকদিন আগে আমাদের সমাবেশ হয়েছিল যে বিদেশী সিরিয়াল এসে আমাদের সিরিয়াল এর গুরুত্ব কমে যাচ্ছে। এখানে আমি বলবো না যে আপনারা ওটা দেখতে পারবেন না।  দেখুন, কেন দেখবেন না! দুনিয়াতে সবার সব কিছু দেখা উচিৎ।  কিন্তু তাই বলে আমাদের দেশীয় কাজ দেখবেন না এটা হয়না।  আপনারা আমাদেরকে আমাদের কাজ নিয়ে ফিডব্যাক দেবেন। আমাদের সবকিছুই আপনাদের জন্য। আপনারা যদি না থাকেন হয়তোবা আমি সাফা কবির হতে পারবো না, হয়তোবা সামনে আগাতে পারবো না।

ডাকপিয়ন২৪: শেষ প্রশ্ন,অভিনেত্রী হিসেবে নিজেকে দশে কত দেবেন?

সাফা কবির: এই প্রশ্নের আমার কাছে কোন উত্তর নাই। আমি নিজেকে কখনও জাজ করতে পারবো না। আমি আমাকে যেই ভাবে দেখতে চাই সেটা আমি এখনও ফুলফিল করতে পারি নি। তবে এই জাজিংটা আমার দর্শকরাই আমাকে দিতে পারবে, যারা আমাকে দেখে। আমি এটা বলতে পারবোনা।

আগামী ১৩ই ডিসেম্বর অনলাইনে মুক্তি পাচ্ছে সাফা কবির অভিনীত ‘দেয়াল’। ছবিটির অনলাইন পার্টনার ডাকপিয়ন২৪.কম।

ছবিঃ এমএইচ কানন

সম্পর্কিত সংবাদ
রায়হানুল হক (রুবেল)