বিএনপি কি পাগলা কুকুর, প্রশ্ন কাদেরের

বিএনপি কি পাগলা কুকুর, প্রশ্ন কাদেরের

বিএনপির উদ্দেশে করে ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘পাগলা কুকুর কামড়ালে জলাতঙ্ক রোগের সৃষ্টি হয়। আমি জানতে চাই বিএনপি কি পাগলা কুকুর? আগামী জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশে কোনো রাজনৈতিক সংকটের সৃষ্টি হলেও সরকার গৃহীত কোনো প্রকল্পের কাজ বন্ধ থাকবে না বলেও জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার রাজধানীর কাওলায় এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণকাজ পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। এসময় বিএনপিকে নিয়ে আওয়ামী লীগ আতঙ্কিত নয় বলেও জানান ওবায়দুল কাদের।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বাড়ি দখলে রাখতে চেয়েছে, সেই ভুয়া ব্যারিস্টারের কথায় বাংলাদেশের তরুণরা বিভ্রান্ত হবে না, একটা বাড়ির লোভে মৃত ব্যক্তির নামে ভুয়া কাগজ আদালতে জমা দেয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘নয় বছরের নয়টা মিনিট রাস্তায় দাঁড়াতে পারেনি বিএনপি। আন্দোলন করতে পারেনি। কোটার ওপর ভর করে থাকতে পারেনি, ছাত্রছাত্রীদের ওপর ভর করে থাকতে পারেনি, নিরাপদ সড়কের ওপর ভর সেখানেও ব্যর্থ, অবশেষে বিদেশিদের কাছে নালিশ করা শুরু করেছে। আজকে ফখরুল সাহেব বেপরোয়া ড্রাইভারের মতো বেপরোয়া হয়ে গেছেন।’

এসময় সেতুমন্ত্রী আরো বলেন, ‘রাজনৈতিক সংঘাতে কোনো প্রজেক্টের কাজ বন্ধ থাকবে না। প্রজেক্ট প্রজেক্টের পথে চলতে থাকবে। এখানে কোনো রাজনীতি নেই। এখানে যারা রাজনীতি করে তারা দেশকে ভালোবাসে না। সরকার আসবে, সরকার যাবে তাই বলে কি কাজ থাকবে না। এই কাজ তো থাকবেই। আওয়ামী লীগ এবার না আসলে এ কাজ শেষ থাকবে না? এই কাজ তো দেশের কাজ।’

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের অগ্রগতি তুলে ধরে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘শুরুতে কাজটিতে গতি দিতে পারছিলাম না। ফান্ডিং ছিল না। কাজটা এখন দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। আপনারা জানেন, এটা কুড়িল, বনানী, মহাখালী, তেজগাঁও, মগবাজার, কমলাপুর, সায়দাবাদ, যাত্রাবাড়ী হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালি পর্যন্ত পর্যন্ত ৪৬ দশমিক ৬৩ কিলোমিটার পর্যন্ত যাবে।’

তিনি বলেন, ‘তিন ধাপে এ কাজটি বাস্তবায়ন হবে। প্রথম ধাপে বিমানবন্দর রেল স্টেশন থেকে বনানী রেল স্টেশন পর্যন্ত মোট সাড়ে ৭ কিলোমিটার সড়ক হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে ২৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। কিছুদিন আগে আমি এটি দেখতে এসেছিলাম। তখন খুবই হতাশ হয়েছিলাম। তবে এখন আমরা আশাবাদী, কাজটি গতি পাচ্ছে।’

দ্বিতীয় ধাপে বনানী রেল স্টেশন থেকে বড় মগবাজার রেলক্রসিং পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার সড়ক এবং তৃতীয় ধাপে বড় মগবাজার রেলক্রসিং থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম হাইওয়ের কুতুবখালী পর্যন্ত বাকি সড়কের কাজ হবে বলে জানান মন্ত্রী।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘একইসঙ্গে প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজগুলো আগামী ২০২০ সালের অক্টোবরের মধ্যে উদ্বোধন করা হবে।’

রাজনৈতিক পরিবেশ খারাপ হলে কাজ থেমে যাবে কি না— এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমাদের সব কাজই আগামী নির্বাচনকে ঘিরে নয়, আমাদের কাজগুলো পরবর্তী প্রজন্মের জন্য। নির্বাচনের জন্য কাজগুলো শেষ করতে হবে- এমন কোনো কমিটমেন্ট আমাদের নেই।’ তাই সামনে নির্বাচনকে ঘিরে কোনো রাজনৈতিক সংকট তৈরি হলেও কোনো উন্নয়ন কাজ থেমে থাকবে না বলে জানান তিনি।

কাদের বলেন, এটা দেশের কাজ। দেশের কাজ কখনও থেমে থাকবে না। এ রাজনীতি যারা করে, তারা দেশকে ভালবাসে না। সরকার আসবে, সরকার যাবে। কাজ তো থেমে থাকবে না। আওয়ামী লীগ যদি সামনের নির্বাচনে আসতে না পারে, তাহলে কি কাজ চলবে না? কাজ নিয়ে মনে হয় রাজনীতির প্রশ্নই আসে না।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*

সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট