বিদায় নিল মোস্তাফিজের মুম্বাই

বিদায় নিল মোস্তাফিজের মুম্বাই

টার্গেটা চ্যালেঞ্জিংই ছিল। তবে বাঁচা-মরার ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স যে প্লে-অফে উঠার দৌড়ে শেষ ম্যাচে কিছু একটা করে দেখাবে সেটা শুরু থেকেই মনে হচ্ছিল। খেলোয়াড়দের শরীরী ভাষাও সেরকমই ছিল। কিন্তু শেষটা ভালো হল কই?

আইপিএলের চলতি আসরে নিজেদের শেষ ম্যাচে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের কাছে ১১ রানে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছে মোস্তাফিজের মুম্বাই। যদিও এ জয়ে দিল্লির কিছু যায় আসে না। কারণ, তারা আরও আগেই ছিটকে গেছে।

রোববার ঘরের মাঠে টস জিতে আগে ব্যাটিং করে দিল্লি। রিশভ পান্টের ফিফটিতে নির্ধারিত ওভারে ৪ উইকেটে ১৭৪ রান তোলে ডেয়ারডেভিলসরা। ইন্ডিয়ান্সরা ৩ বল হাতে রেখেই ১৬৩ রানে গুটিয়ে গেছে।

শুরুতে এভিন লুইসের ৪ চার ও ৪ ছক্কায় ৩১ বলে ৪৮ রানের ইনিংসে লড়াইয়ে ছিল মুম্বাই। কিন্তু কিষান ৫, পোলার্ড ৭, রোহিত ১৩, ক্রুনাল ৪ রানে ফিরলে ধাক্কা খায় সফরকারীরা। হার্দিকের ১৭ বলে ২৭ এর পর কাটিংয়ের ইনিংসে সম্ভাবনা জাগলেও জয় ছোঁয়া হয়নি ইন্ডিয়ান্সদের।

এর আগে বাঁচা-মরার ম্যাচে মোস্তাফিজকে নিয়ে নামে মুম্বাই। টানা ৬ ম্যাচ খেলে একাদশের বাইরে ছিটকে যাওয়া মোস্তাফিজুর রহমান ফিরে উইকেটের দেখা পাননি। টাইগার বাঁহাতি পেসার ৪ ওভারে খরচ করেছেন ৩৪ রান।

মোস্তাফিজের ফেরার দিনে ক্রুনাল পান্ডিয়া দারুণ বল করেছেন, ২ ওভারে ১১ রানে এক উইকেট। বুমরাহ ৪ ওভারে ২৯ রানে একটি উইকেট পান।

পান্ট ৬৪ রানের ইনিংস খেলেন ৪৪ বলে, ৪টি করে চার-ছক্কায়। ম্যাক্সওয়েল ২২ রান করেন। শেষদিকে ঝড় তোলেন অভিষেক শর্মা ও বিজয় শঙ্কর। ১০ বলে ১৫ রানে অপরাজিত থাকেন শর্মা। আর ৩ চার ২ ছয়ে ৩০ বলে অপরাজিত ৪৩ রানের অবদান শঙ্করের।

শনিবার সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে হারিয়ে কেকেআর প্লে-অফে চলে যায়, ১৬ পয়েন্টে তারা থাকছে টেবিলের তিনে। হায়দরাবাদ ১৮ পয়েন্টে আগেই শীর্ষে আছে। ১৬ পয়েন্টে দুইয়ে চেন্নাই। তারা শেষ ম্যাচে খেলবে পাঞ্জাবের বিপক্ষে। রাজস্থান রয়্যালসের ১৪ পয়েন্ট, কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের ১২ পয়েন্ট। লিগ পর্বের শেষ ম্যাচের পরই প্লে-অফে কে কার প্রতিপক্ষ নিশ্চিত হবে।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট