বেনজেমা যখন নায়ক, ডি মারিয়া যখন চালক

বেনজেমা যখন নায়ক, ডি মারিয়া যখন চালক

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ছবি খুব জনপ্রিয়। সাদাকালো যুগের। সেখানে সবাই নাৎসি স্যালুট দেওয়ায় ব্যস্ত, এর মাঝেও অসীম সাহসী এক ব্যক্তি দুহাত বুকের কাছে রেখে নিজের প্রতিবাদ জানিয়ে দিচ্ছেন। বিস্ময়কর হলো, সেই অসীম সাহসী ব্যক্তিকে দেখলে কার্লো আনচেলত্তি ভাবতে বাধ্য সবাই। যেন টাইম মেশিনে চড়ে বায়ার্ন মিউনিখ কোচ চলে গিয়েছিলেন সে যুগে।

যুগে যুগে এমন ‘লুক অ্যালাইক’ অনেক এসেছে। যে শব্দের বাংলা করতে গেলে একটু রম্য করে বলতে হয়, এ যেন ছোটবেলায় মেলায় হারিয়ে যাওয়া ভাই! ফুটবলের বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তার কারণেই হয়তো ফুটবলারদেরই এমন ‘হারিয়ে যাওয়া ভাই’দের খোঁজ বেশি করে মেলে…

জার্মান মিডফিল্ডের একসময়ের মেরুদণ্ড মাইকেল বালাক ও ‘দ্য মার্শিয়ান’খ্যাত ম্যাট ডেমন।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাবেক স্ট্রাইকার বারবাতোভ ও ‘দ্য গডফাদার-৩’-এর অভিনেতা অ্যান্ডি গার্সিয়া।

অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়াকে তো চেনানোর কিছু নেই, অন্যজন ফর্মুলা ওয়ানের সেবাস্তিয়ান বুয়েমি।

বাঁয়ে ইতালির বিশ্বকাপজয়ী ফুটবলারটি তো আন্দ্রে পিরলো। যদি দাবি করেন, আপনি ডানের ব্যক্তিকে চেনেন না, তবে সাবধানে চলাফেরা করুন! ভারতের রজনীকান্তও যে শিশু চাক নরিসের কাছে!

পাওলো ওসভালদো, ইতালিয়ান স্ট্রাইকার। ওসভালদো মাত্র ৩১ বছরেই অবসরে চলে গেলেও জেসন মমোয়া কিন্তু ‘গেম অব থ্রোনস’-এর ‘খাল দ্রোগো’ হয়ে এখন ‘অ্যাকুয়াম্যান’ হয়ে ত্রিশূলে ধার দিচ্ছেন।

সাবেক আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড ডিয়েগো মিলিতোকে আর্জেন্টিনার র‍্যাম্বো (সিলভেস্টার স্ট্যালন) বলাই যায়!

ক্রোয়েশিয়ার ইভিচা ওলিচ যেন জেমস বন্ড (ড্যানিয়েল ক্রেগ)!

একজন ‘ট্রান্সফরমার’ নায়ক শিয়া লেবফ, অন্যজন?

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট