ভিজে যাওয়া আসবাব শুকাবেন যেভাবে…

ভিজে যাওয়া আসবাব শুকাবেন যেভাবে…

বর্ষায় জলাবদ্ধতা খুবই পরিচিত চিত্র। তবে এবারের মৌসুমে পরিস্থিতি যেন একটু বেশিই খারাপ হচ্ছে। ভারী বর্ষণে রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ার পাশাপাশি অনেকের বাড়ির ভেতরও ঢুকে পড়ছে পানি। এতে যেমন চলাচলে ও থাকার কষ্ট হচ্ছে। তেমনি নষ্ট হচ্ছে কষ্টের উপার্জনে তৈরি আসবাবগুলো।

দেখা যাচ্ছে, বৃষ্টির পানি সরে গেলেও কাঠের তৈরি আসবাবের ভিজে ভাব থেকেই যাচ্ছে। এমনকি অনেক সময় ফাঙ্গাস বা ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে নষ্টও হচ্ছে শখের জিনিসগুলো। এমন অবস্থায় যা করতে হবে:

দ্রুত শুকাতে হবে

পানি সরে যাওয়ার পর ভেজা আসবাব যত দ্রুত সম্ভব শুকিয়ে ফেলতে হবে। আসবাব মেঝে থেকে সরিয়ে শুকিয়ে নিতে হবে। আলমারি, র‍্যাক যদি খোলা যায়, তবে খুলে শুকিয়ে নিতে হবে। অনেক সময় আসবাবের নিচে পানি জমে থাকে। এদিকে লক্ষ রাখতে হবে। জমে থাকা পানি না মুছলে কাঠ পচে যেতে পারে।

সাদা দাগ দূর করতে

বেশ কিছু সময় পানিতে ভিজে থাকলে আসবাব সাদা সাদা দাগ দেখা যায়। এই সাদা দাগগুলো সাধারণত অগভীর হয় এবং শুধু ওপরের স্তর বা কাঠের বাইরের আবরণকে প্রভাবিত করে। এটা পালিশ করে ঠিক করা যায়। তবে সময় ও অর্থের কথা ভাবলে ঘরোয়া পদ্ধতি ব্যবহার করেও দাগ দূর করা যেতে পারে।

বাসায় কাপড় ইস্তিরি করার আয়রন দিয়ে এই সাদা দাগ দূর করার সম্ভব। সঙ্গে একটি বড় শুকনো মোটা তোয়ালে প্রয়োজন হবে। তোয়ালেটি আসবাবের সাদা হয়ে যাওয়া অংশে চেপে ধরতে হবে, মাঝারি অথবা কম তাপে আয়রনটি ওই টাওয়েলের ওপর দিয়ে কাঠে কয়েক সেকেন্ড চেপে ধরতে হবে। এই তাপে বাড়তি আর্দ্রতা তোয়ালে শুষে নেবে। দাগ যাওয়া না পর্যন্ত এটি করতে হবে।

এ ছাড়া মেয়োনিজ বা পেট্রোলিয়াম জেলি ঘষেও সাদা দাগ দূর করা যায়। এগুলোর মধ্যে যে তেল থাকে, তা এই দাগ মুছে ফেলার চাবিকাঠি। এগুলোতে কাজ না হলে আরেক উপায় আছে। টুথপেস্ট এবং বায়োকার্বনেট সোডার একটি মিশ্রণ তৈরি করে কাঠের সাদা হয়ে যাওয়া অংশে লাগিয়ে দিতে হবে। অল্প সময়ের মধ্যেই নরম কাপড় দিয়ে মুছে নিতে হবে।

কালো দাগ দূর করতে

অনেক সময় পানি কাঠে ঢুকে যায়। ভেজা কাঠে কালো কালো দাগ হয়। এগুলো সাদা দাগের চেয়ে দূর করা কঠিন। কারণ, ফাঙ্গাস কাঠের ভেতর পর্যন্ত চলে যাওয়ার লক্ষণ এটি। এ ক্ষেত্রে কাঠের কারিগরের সাহায্য নিতে হবে।

পার্টিক্যাল বোর্ড ফার্নিচারের ক্ষেত্রে নিচের কয়েকটি উপায় প্রয়োগ করে দেখা যেতে পারে—

১. যতক্ষণ পর্যন্ত ভেজা মনে হবে, ততক্ষণ পর্যন্ত শুকনো তোয়ালে দিয়ে মুছতে হবে।

২. আসবাবের সঙ্গে লাগানো স্ক্রু বা পেরেক, স্ক্রুড্রাইভার বা হাতুড়ি দিয়ে খুলে নিতে হবে। এরপর বোর্ডগুলো খুলে শুকনো তোয়ালে দিয়ে মুছে নিতে হবে।

৩. খোলা বোর্ডগুলো শুকনো জায়গায় রেখে বাতাসে শুকাতে হবে। প্রয়োজন হলে সাত দিন পর্যন্ত শুকাতে হবে।

৪. বোর্ডগুলো শুকানোর জন্য চুল শুকানোর মেশিনও ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে দ্রুত শুকিয়ে যাবে বোর্ডগুলো।

৫. শুকানোর পর বোর্ডগুলোতে আবার পেরেক বা স্ক্রু লাগানোর আগে দুদিন শুকনো জায়গায় রেখে দেখতে হবে ভেজা ভাব থাকে কি না। সূত্র: ইবে, হাংকার ডট কম।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট