ভিনগ্রহবাসীর আগমনে খুশি হবে মানুষ!

ভিনগ্রহবাসীর আগমনে খুশি হবে মানুষ!

পৃথিবীতে ভিনগ্রহের অধিবাসী বা এলিয়েনরা মানুষের মারাত্মক বিপদ ঘটতে পারে বলে সতর্ক করছেন অনেকেই। তবে সাম্প্রতিক এক গবেষণা বলছে ভিন্ন কথা। বিজ্ঞানীদের দাবি, ভিনগ্রহবাসীরা পৃথিবীতে আসলে মানুষ নাকি খুশিতেই তাদের স্বাগত জানাবে।

সুইজারল্যান্ড থেকে প্রকাশিত ‘ফ্রান্টিয়ার্স অব সাইকোলজি’ সাময়িকীতে সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গবেষণারয় উল্লেখ করা হয়, ভিনগ্রহবাসীরা পৃথিবীতে এলে মানুষ খুশিমনে তাদের স্বাগত জানাবে। গবেষণাটি করেছেন অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক। যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের অস্টিনে আজ রোববার আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য অ্যাডভান্সমেন্ট অব সায়েন্সের সম্মেলন শুরু হওয়ার কথা। এই সম্মেলনে অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক মাইকেল ভারনামের ভিনগ্রহবাসী নিয়ে তাঁর নেতৃত্বে পরিচালিত একটি পরীক্ষার ফল উপস্থাপন করার কথা রয়েছে। আর এই পরীক্ষাতেই পাওয়া গেছে এমন তথ্য।

বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং আগেই মানুষকে সতর্ক করে বলেছেন, এলিয়েনদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তারা মানুষের অবস্থান জানিয়ে দেবে। ঠিকানা চিনে পরে এলিয়েনরা এসে মানুষকে পদানত করার চেষ্টা করবে। কিন্তু সাম্প্রতিক গবেষণায়, গবেষকরা বলছেন মানুষ বাস্তবে হলিউডের মুভির মতো মানুষের সঙ্গে সংঘাতও বাঁধবে না এলিয়েনদের। বরং এলিয়েনদের আগমনে খুশি হবে মানুষ।

মাইকেল ভারনাম বলেন, আমরা যদি পৃথিবীর বাইরের মহাবিশ্বের অন্য কোনো প্রাণীর মুখোমুখি হই তাহলে আমরা আশাবাদী হতে পারি। আমরা এতদিন এসব বিষয়ে নানা ধরনের অনুমান করা সংবাদ পেয়েছি। কিন্তু এ বিষয়ে কোনো গবেষণা হয়নি। এ গবেষণার যে ফলাফল পাওয়া গেছে তা খুবই ভালো। মানুষ খুবই আগ্রহী যে, অন্য গ্রহের প্রাণীরা কেমন হবে এটি জানতে। আর এ বিষয়টিতে মানুষ খুবই ইতিবাচক।

গবেষকরা দাবি করছেন, এলিয়েনদের দেখা পাওয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। কারণ মহাবিশ্বে এত বিপুলসংখ্যক জীবনধারণের মতো গ্রহ রয়েছে যে সেখানে প্রাণী বাস করা কঠিন নয়।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট