ভোরে হাঁটুন হেমন্তের শীতল বাতাসে

ভোরে হাঁটুন হেমন্তের শীতল বাতাসে

প্রকৃতিতে শীতের আমেজ শেষের সময়ে। বসন্তের শীতল হাওয়া বইতে শুরু করেছে। বসন্তের শুরুতে ভোরে কাঁথা মুড়ি দিয়ে ঘুমাতেই বেশি ভালো লাগে। কিন্তু স্বাস্থ্যসচেতনদের কাছে প্রাতর্ভ্রমণের জন্য আদর্শ যেন অল্প অল্প শীতের ভোর। শীতের রোদ গ্রীষ্মের মতো প্রখর থাকে না বলে অস্বস্তি কম হয় এবং অনেকক্ষণ হাঁটলেও ক্লান্তি ভর করে না। এই মিষ্টি রোদ শরীরে প্রয়োজনীয় ভিটামিন ‘ডি’-এর জোগান দেয়, যা ক্যালসিয়াম ধরে রেখে হাড় মজবুত রাখতে সাহায্য করে। ভোরের স্নিগ্ধ বাতাসে নিয়মিত হাঁটার অভ্যাস আপনাআপনিই কমিয়ে দেবে আপনার শরীরের মেদ।

ভোর ছয়টার আগেই রমনায় লোকজনের আনাগোনা শুরু হয়। প্রাতর্ভ্রমণে আসা লোকজন সাড়ে ৬৮ একর আয়তনের রমনা পার্ককে ঘিরে দেন কয়েক চক্কর। ৮১২ মিটার লেকবেষ্টিত পার্কটিতে প্রাতর্ভ্রমণে আসা লোকজনের উপস্থিতি দেখা যায় সকাল ১০টায়ও।

প্রতিদিনের কাজের চাপে পিষ্ট শরীর ও মনকে শান্ত করে তোলে সকালের হাঁটা। সেই সঙ্গে সারা দিনের কাজের জন্য নতুন করে প্রস্তুত হওয়ার শক্তি জোগায়। ব্যাংক কর্মকর্তা আজহার আলী বলেন, ‘সকালবেলা হাঁটার ফাঁকে সারা দিনের কর্মপরিকল্পনা ঠিক করে নিতে পারি। মনে মনে সেগুলোর একটা তালিকা বানিয়ে ফেলি।’

কেউ হাঁটছেন একা, কেউ জোগাড় করে নিয়েছেন হাঁটার সঙ্গী। অনেককে দেখা গেল কানে হেডফোন গুঁজে একান্ত মনে হাঁটছেন। আবার দু-তিনজনের ছোট ছোট দলকে দেখা গেল কয়েক চক্কর দিতে। মোহাম্মদপুর থেকে চন্দ্রিমা উদ্যানে হাঁটতে এসেছেন ষাটোর্ধ্ব চার ব্যক্তি। বললেন, কয়েকজন হলে গল্প করতে করতে হাঁটা যায়।

পুরুষদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে হাঁটছিলেন নারীরাও। শুধু যে বয়স্ক ও রোগীরা হাঁটছেন এমন নয়। অনেক অল্পবয়সী, সুস্থ-সবল মানুষও হাঁটতে এসেছেন। নিয়মিত হাঁটতে হাঁটতে অনেকের মাঝেই তৈরি হয়েছে বন্ধুত্ব।

পরামর্শ: সকালের চেয়ে বিকেলে হাঁটা বেশি ভালো। বিকেলে আমাদের শরীরের তাপমাত্রা বেশি থাকে, মাংসপেশিগুলোর নড়াচড়া স্বাচ্ছন্দ্যে হয়। কিন্তু অধিকাংশ সময় দেখা যায়, যাঁরা বিকেলে হাঁটেন তাঁরা অনিয়মিত। নানা কারণে বিকেলে হাঁটা হয়ে ওঠে না। সপ্তাহের সাত দিন না হলেও অন্তত পাঁচ দিন ৩৫ থেকে ৪০ মিনিট করে হাঁটা উচিত। শীতের দিনের জন্য হাঁটার সময়-ধরন বদলের কোনো প্রয়োজন নেই। যাঁদের অ্যাজমা, হৃদ্রোগ রয়েছে তাঁরা বিকেলে হাঁটতে পারেন। হাঁটলে ঘাম হবেই, ঘাম মোছার জন্য সঙ্গে তোয়ালে রাখতে পারেন।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট