মুখোমুখি পরবাসিনী “রিত মজুমদার”

মুখোমুখি পরবাসিনী “রিত মজুমদার”

রিত মজুমদার। জন্ম কলকাতায় হলেও বেড়ে উঠা মুম্বাইতে। সেখানেই পড়াশোনা। অভিয়ের শুরুটাও সেখান থেকে। নিজের প্রতিভাকে শুধু ভারতের মধ্যেই সীমাবদ্ধ করে রাখেননি বরং কাজ করেছেন ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশেও।সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে তার অভিনীত নির্মাতা স্বপন আহমেদ পরিচালিত  বাংলাদেশের প্রথম সায়েন্স ফিকশন চলচ্চিত্র “পরবাসিনী” । পরবাসিনী নিয়ে কথা হয় ছবিটির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করা রিত এর সাথে। সাক্ষাতকারটি গ্রহন করেছেন ফরিদুল আহসান সৌরভ। ডাকপিয়ন২৪ এর পাঠকদের জন্য তারই চুম্বক অংশ এখানে তুলে ধরা হল।

গত ৫মে মুক্তি পেয়েছে  পরবাসিনী এই মুভিতে দর্শক রিত মজুমদারকে কি চরিত্রে পাচ্ছেন?

এখানে দর্শক আমাকে দেখতে পাবে মূলচরিত্র পরবাসিনী রুপে। যে একই সাথে ভিনগ্রহের এজেন্ট এবং সিআইএ এজেন্ট অর্ণবের প্রাক্তন প্রেমিকা পরবাসিনী স্পেস রিসার্চ কন্সপাইরেসি এর অন্যতম সাক্ষীও ।

এটি রিতের কততম ফিচার ফিল্ম? এর আগে কি বাংলা মুভিতে কাজ করা হয়েছে আপনার?

এটি আমার ৫ম চলচ্চিত্র। বাংলা ছবিতে এর আগে কাজ করা হয়নি, তবে পরবাসিনীর আগের সর্বশেষ ছবিটি ইতালি, ফ্রান্স, রাশিয়া, পর্তুগাল, মেক্সিকো এবং যুক্তরাষ্ট্রসহ বহু দেশের চলচ্চিত্র উত্‍সবে প্রশংসিত ও সমাদৃত হয়। এছাড়াও কয়েক মাস আগে “A Scandall” নামে বলিউডে আমার অভিনীত একটি ছবি মুক্তি পায়।

11060039_1584035055173935_7859587713799041749_n

পরবাসিনীতে কাজ করার অভিজ্ঞতা যদি শেয়ার করতে বলা হয় তাহলে কোন দিকটি প্রাধান্য পাবে বেশী?

অভিজ্ঞতা থেকে বলতে গেলে তো বলর ভালোলাগার অনেক স্মৃতিই জড়িয়ে আছে। তবে আমি পরবাসিনীর শ্যুটিংয়ে আমাদের ইউরোপে অভিনয়ের দিনগুলোকেই বেশী মিস করব।

পরবাসিনী নিয়ে প্রত্যাশা এবং এখন পর্যন্ত এর প্রাপ্তি নিয়ে যদি কিছু বলতেন?

চলচ্চিত্রপ্রেমীদের একটি দল অবশ্যই এই সিনেমাটি পছন্দ করবে। এবং এটিকে বাংলা চলচ্চিত্রের ইতিহাসে ভিন্ন এক অধ্যায়সৃষ্টির প্রচেষ্টা হিসেবেই দেখবে। বাংলাদেশের ছবিতে অভিনয় করাটা একটি ভিন্ন অভিজ্ঞতা আমার জন্য।

এই ছবির শ্যুটিংয়ে আপনার কোন বিষয়টিকে চ্যালেঞ্জিং বলে মনে হয়েছে?

একশন সিক্যুয়েন্স গুলো খুব চ্যালেঞ্জিং ছিল আমার জন্য।

 দর্শকদের ঠিক কোন কারনটির জন্য সিনেমাটি হলে দেখতে যাওয়া উচিত বলে আপনি মনে করেন?

আমি সত্যিই জানিনা দর্শক এটিকে কিভাবে নেবে। তবে প্রত্যেকটি গল্পের ভেতরই একটি গল্প থাকে। হয়ত সেরকম একটি গল্প দেখতেই দর্শক প্রেক্ষাগৃহে যাবে।

ছবির প্রচারনায় পোস্টারে ঊর্বষী রোতেলাকে ফোকাস করা নিয়ে পরিচালকের সাথে আপনার যে ভুল বোঝাবুঝির কথা শোনা যায় সেটি নিয়ে যদি কিছু বলতেন?

এ ব্যাপারে আমি এখনও হতাশ। নৈতিকভাবে এটি আমার সাথে অন্যায় হয়েছে। পরিচালক হিসেবে স্বপন আহমেদকে আমি শ্রদ্ধাকরি কিন্তু মুভিটি রিলিজের পুর্বের এ ঘটনাগুলো আমাকে আহত করেছে। ঊর্বশী রোতেলা কে মুভির পোস্টারে প্রমোট করায় আমার কোন আপত্তি নেই। কিন্তু প্রধান চরিত্র হিসেবে আমার ছবি পোস্টারে ব্যবহার করাটা উচিত ছিল বলে মনে হয়। পোস্টার যদি শুধুমাত্র ছবির বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যেই করা হয় তবে বলিউডের সব অফিশিয়াল পোস্টারে তাহলে আইটেম ড্যান্সাররাই প্রাধান্য পেত।

ছবির অন্যতম প্রধান চরিত্র হয়েও পরবাসিনীর অধিকাংশ পোষ্টারে ছিলোনা রীতের ছবি

ছবির অন্যতম প্রধান চরিত্র হয়েও পরবাসিনীর অধিকাংশ পোষ্টারে ছিলোনা রীতের ছবি

রিতের বর্তমান ব্যস্ততা কি নিয়ে?

একটি ইংলিশ প্রজেক্ট এবং ইন্টারন্যাশনাল ওয়েব সিরিজ নিয়ে বর্তমানে ব্যস্ত থাকা হচ্ছে।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ফরিদুল আহসান সৌরভ