মেসিকে তেভেজের অনুরোধ, ‘যেও না’

মেসিকে তেভেজের অনুরোধ, ‘যেও না’

সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বকাপে আশানুরূপ পারফরম্যান্স করতে পারেনি আর্জেন্টিনা। প্রত্যাশা মেটাতে পারেননি দলের বড় তারকা লিওনেল মেসিও। আর তার পরেই অনেকেই আর্জেন্টিনায় মেসির শেষ দেখে ফেলেছেন। ভাবছেন হয়তো অবসরই নিবেন এ বার্সেলোনা তারকা। কিন্তু মেসিকে এখনও আর্জেন্টিনার প্রয়োজন বলেই মনে করেন কার্লোস তেভেজ।

২০০৬ বিশ্বকাপ থেকে ২০১৪ বিশ্বকাপ পর্যন্ত আর্জেন্টিনা দলে মেসির সঙ্গে কাঁধে কাঁধ রেখেই খেলেছেন তেভেজ। যদিও রাশিয়া বিশ্বকাপে হোর্হে সাম্পাওলির দলে জায়গা হয়নি তার। তবে মেসিকে চেনেন ও জানেন অনেক দিন থেকেই। এছাড়া বর্তমানে আর্জেন্টিনা দলের অবস্থাও দেখছেন তিনি। তাই সব দিক বিবেচনা করেই বলেছেন, জাতীয় দল ছাড়ার সময় এখনও হয়নি মেসির।

বিশ্বকাপের ব্যর্থতা ভুলে মেসিকে নিজের উপর বিশ্বাস বাড়ানোর তাগিদ দিলেন তেভেজ। ইএসপিএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘আমাদের তাকে (মেসি) প্রয়োজন, কারণ সে আর্জেন্টিনার প্রাণ। যতদিন সে ফুটবল খেলবে ততদিন তার আর্জেন্টিনার সঙ্গে থাকা উচিৎ। কারণ আর্জেন্টিনার বড় একজন প্রতিমূর্তি। তাকে অবশ্যই দায়িত্ব নিতে হবে।’

রাশিয়া শেষ ষোলোতেই হারের পর অনেকটাই ভেঙে পড়েন মেসি। তবে ভেঙে না পরে নিজেকে নিয়ে ভাবার কথাই বললেন তেভেজ, ‘আমার মনে হয় লিওর (মেসি) নিজেকে নিয়ে ভাবা উচিৎ। তার ভাবা উচিৎ যদি কোন বিষয় তাকে সুখী না করতে পারে, কিছুতে তৃপ্তি না পায় তাহলে আর্জেন্টিনা দলের নেতৃত্বের কাজটা খুব কঠিন হয়ে যাবে। এবং নিজেকে চ্যাম্পিয়ন দেখাও কঠিন।’

এর আগে কোপা আমেরিকার ব্যর্থতার পর অবসর নিয়ে ফেলেছিলেন মেসি। নিজে ভালো খেললেও সতীর্থদের ব্যর্থতার ভারটা নিতে হয় তাকেই। সবার অনুরোধে আবার ফিরে আসেন জাতীয় দলে। কিন্তু সতীর্থরা তাকে সাহায্য করতে আবারো ব্যর্থ। তেভেজের ভাষায়, ‘আমরা তাকে খুশি না করতে পেরে অনেক সময় নষ্ট করেছি। এবং তার লক্ষ্যে পৌঁছানর মতো কিছু দিতে পারেনি। আমরা তাকে আরামদায়ক করতে যেভাবে সাহায্য করেছি সেটা ভুল ছিল।’

তাই মেসিকে মাথা ঠাণ্ডা রেখে ভাবার কথাই বললেন তেভেজ। দেশের স্বার্থে নিজেকে ধরে রাখার আর্তিই ঝরে তেভেজের কণ্ঠে, ‘একজন খেলোয়াড় এবং একজন আর্জেন্টাইন হিসেবে আমি তাকে বলব, আমাদের তাকে প্রয়োজন। তাকে এখন বিশ্রাম নিতে হবে, মাথা ঠাণ্ডা রাখতে হবে। মাঠে দায়িত্ব গ্রহণ করার জন্য ভালো থাকতে হবে।’

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ