মেসি-রোনালদোকে টপকে ফিফার বর্ষসেরা লুকা মদ্রিচ

মেসি-রোনালদোকে টপকে ফিফার বর্ষসেরা লুকা মদ্রিচ

ইতিহাসের পাতায় সব সময় লেখা থাকে বিজয়ীদের গল্প। সে অধ্যায়ে এবার নতুন নাম লুকা মদ্রিচ। গেল ১০ বছর ধরে যা ব্যক্তিগত সম্পদে পরিণত হয়েছিলো মেসি-রোনালদোর, সেখানে এবার ব্যত্যয়। লন্ডনের রয়্যাল ফেস্টিভ্যাল হল তাই আলোকিত হলো ক্রোয়াট রূপকথায়।

লুকা মদ্রিচের হাত ধরে যে এবার নতুন কিছু হতে চলেছে তার আভাস পাওয়া গিয়েছিল, উয়েফা বর্ষসেরা অ্যাওয়ার্ডেই। রোনালদো আর মো. সালাহকে পেছনে ফেলে তিনি লিখেছিলেন বিজয়ের গল্প। কনফেডারেশনের পরিধি টপকে সেটা এবার রং ছড়ালো বিশ্ব মঞ্চে।

ইংল্যান্ড ছেড়ে ২০১২ সালে রিয়ালের জার্সি চেপে স্পেনে পাড়ি জমান মদ্রিচ। তখন থেকে অদ্যাবধি যত সাফল্যগাথা আছে মাদ্রিদিনস্তাদের, তার অন্যতম রুপকার এই মিডফিল্ডার। তাতে কি, তিনি যে ছিলেন পাদপ্রদীপের আলোয়। সে আধার ঠেলে লুকা জ্বললেন বিশ্ব আসরে। যার স্বীকৃতি এই ক্রোয়াট পেলেন বোদ্ধাদের থেকে।

এ তো গেলো লুকা বন্দনা। সেরা হওয়ার দৌড়ে খুব যে পেছনে ছিলেন রোনালদো তা নয়। বরং প্রতিদ্বন্দ্বীদের ঘারে শ্বাস ফেলে লড়েছেন সি আর সেভেন। সমান পাঁচ পুরষ্কার নিয়ে যে অর্জন ভাগ করে নিতে হচ্ছে মেসির সঙ্গে, সুযোগ এসেছিল, সেখানে একক রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করার। তবে গ্যালাকটিকোদের হয়ে গেল মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ট্রফিসহ চারটি মেজর শিরোপাও এবার তাকে এনে দিতে পারেনি বিশ্ব সেরার স্বীকৃতি।

২০০৭ থেকে এই তালিকায় লিওনেল মেসি। ১১ বছর পর এবার নেই ক্ষুদে যাদুকর। সেই দিক থেকে নিজেকে ভাগ্যবান ভাবতেই পারেন মো সালাহ। লিভারপুলের হয়ে ৪৪ গোলে কাটিয়েছেন দুর্দান্ত এক মৌসুম। দলকে টেনে তুলেছিলেন ইউসিএল ফাইনালে। তবে ইনজুরির কালো থাবায় নিজেকে মেলে ধরা হয়নি বিশ্বকাপে। তাই এই মিশরীয়কে সন্তুষ্টি কুড়াতে হচ্ছে ফিফা দ্যা বেস্টের শর্ট লিস্ট থেকেই।

কে কত শতাংশ ভোট পেয়েছেন
১. লুকা মদ্রিচ-২৯.০৫%
২. ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো-১৯.০৮%
৩. মোহাম্মদ সালাহ- ১১.২৩%
৪. কিলিয়ান এমবাপ্পে ১০.৫২%
৫. লিওনেল মেসি-৯.৮১%
৬. আন্তনিও গ্রিজম্যান-৬.৬৯%
৭. ইডেন হ্যাজর্ড-৫.৬৫%
৮. কেভিন ডি ব্রুইনে-৩.৫৪%
৯. রাফায়েল ভারানে-৩.৪৫%
১০. হ্যারি কেন-০.৯৮%

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট