মেসি-রোনালদোহীন মর্যাদার এল ক্লাসিকো আজ

মেসি-রোনালদোহীন মর্যাদার এল ক্লাসিকো আজ

ফুটবল দুনিয়ার ধ্রুপদী এক লড়াইয়ের নাম ‘এল ক্ল্যাসিকো’। প্রতি বছর রিয়াল মাদ্রিদ বনাম বার্সেলোনার এ লড়াই দেখার জন্য অপেক্ষায় থাকেন সারা দুনিয়ার ফুটবলভক্তরা। এমনকি ক্লাব ফুটবল নিয়ে কম আগ্রহ থাকা লোকজনও তীর্থের কাকের মতো চেয়ে থাকে এই একটি লড়াইয়ের জন্য। এ লড়াই যেন ‘বিনা যুদ্ধে নাহি দেব সূচ্যগ্র মেদিনী।’ কেউ কাউকে তিল পরিমাণ ছাড় দিতে নারাজ।

জয়-পরাজয় ছাপিয়ে এটি আভিজাত্য ও অহঙ্কারের প্রতীক। তাই সবকিছু জেতার পরও এল ক্ল্যাসিকো না জিততে পারলে পূর্ণতা পায় না সাফল্য। আজ আরো একবার ন্যু ক্যাম্পে রাত ৯টা ১৫ মিনিটে এল ক্ল্যাসিকোতে শ্রেষ্ঠত্ব প্রদর্শনে নামবে রিয়াল ও বার্সা।

তবে লা লিগার এ ম্যাচ কিছুটা হলেও বর্ণহীন হয়েছে দুই দলের দুই সেরা তারকার অনুপস্থিতির কারণে। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো এবং লিওনেল মেসি ছাড়া গত কয়েক বছর এল ক্ল্যাসিকো ছিল অকল্পনীয়।

২০০৭ সালের পর এবারই এই প্রথম এল ক্ল্যাসিকোতে থাকছেন না মেসি কিংবা রোনালদো! এ দুজনের কারণে ‘ক্ল্যাসিকো’র উত্তেজনা আরো কয়েক গুণ বেড়ে গিয়েছিল। তবে এ মৌসুমের শুরুতেই জানা গিয়েছিল এবারের ‘এল ক্ল্যাাসিকো’তে থাকছেন না রোনালদো। তিনি যে রিয়ালেই নেই!

গত দলবদলে রিয়াল ছেড়ে পাড়ি জমিয়েছেন জুভেন্টাসে। তবে রোনালদো না থাকলেও মেসি থাকায় কিছুটা হলেও উত্তেজনা অবশিষ্ট ছিল। কিন্তু কয়েক দিন আগে ম্যাচ খেলার সময় হাতে আঘাত পেয়ে মেসিও ছিটকে গেছেন ‘ক্ল্যাসিকো’ থেকে। এরপর এ হাইভোল্টেজ ম্যাচের জৌলুস যেন মিইয়ে গেছে। ২০০৯ সালের পর থেকে মুখোমুখি লড়াই চালিয়ে আসছেন সময়ের দুই সেরা তারকা মেসি ও রোনালদো।

লা লিগায় ২০০৯ সালের পর থেকে এ দুজন ১৮ বার নিজেদের মুখোমুখি হয়েছেন। যেখানে মেসির ১০ জয়ের বিপরীতে রোনালদোর জয় চার ম্যাচে। এ সময়ের মধ্যে মেসি গোল করেছেন ১২টি এবং ‘সিআর সেভেনের’ গোলসংখ্যা ৯টি। এছাড়া সবমিলিয়ে ৩৫ ম্যাচে একে অন্যের বিপক্ষে খেলে মেসি জয় পেয়েছে ১৬ ম্যাচে, রোনালদোর জয় ১০ ম্যাচে।

অবশ্য মেসি-রোনালদো না থাকায় কিছুটা আলো কমলেও এল ক্ল্যাসিকোর গুরুত্ব এখনো আগের মতোই। বিশেষ করে লিগ টেবিল অনেকটাই নিয়ন্ত্রিত হয় এ ম্যাচ দিয়ে। এবারের ‘ক্ল্যাসিকো’ সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ নিয়ে আসছে রিয়াল কোচ হুলেন লোপেতেগির জন্য। এমনকি গুঞ্জন আছে এ ম্যাচে হারলে বিদায়ও নিতে হতে পারে তার। এর আগে টানা পাঁচ ম্যাচে জয়হীন থাকার পর সর্বশেষ ম্যাচে জয়ে ফিরেছে তারা। এমনকি জয়হীন থাকার সে সময় গোলখরার নতুন এক লজ্জার রেকর্ডও গড়েছে ‘লস ব্লাঙ্কোস’রা। বর্তমানে রিয়ালের অবস্থান টেবিলের ৭ নম্বরে। একমাত্র এল ক্ল্যাসিকোতে জয়ই পারে রিয়ালকে আবারো উজ্জীবিত করে লড়াইয়ে ফিরিয়ে আনতে।

এ ম্যাচে অবশ্য চোটের দিক থেকে কিছুটা স্বস্তিতেই আছে রিয়াল। দলের সেরা তারকাদের প্রায় সবাইকে পাচ্ছে তারা। বেনজেমার সঙ্গে স্ট্রাইকিং লাইনে দেখা যেতে পারে ইসকো ও গ্যারেথ বেলকে। তবে ইসকোকে জায়গা পেতে লড়াই করতে হবে স্বদেশী অ্যাসেনসিওর সঙ্গে।

সবমিলিয়ে অবশ্য রিয়ালের চেয়ে বেশি সুবিধাজনক অবস্থাতেই আছে বার্সেলোনা। মাঝে একটু পথ হারালেও আবারো তারা ফিরে এসেছে জয়ের ধারায়। তবে বার্সার জন্য বড় দুঃসংবাদ মেসির চোটে পড়া। অবশ্য মেসিকে ছাড়াই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ম্যাচে ইন্টার মিলানকে হারিয়েছে তারা। তাই এ ম্যাচে রিয়ালের বিপক্ষে ঘরের মাঠে মানসিকভাবে এগিয়েই থাকবে বার্সা। বর্তমানে লিগ টেবিলেও শীর্ষে বার্সা।

আজকের ম্যাচেও তাদের একমাত্র লক্ষ্য জয়। কিন্তু এল ক্ল্যাসিকোতে শেষ পর্যন্ত ফেভারিট বলে কিছু হয় না। দিন শেষে যারা চাপ সামলাতে পারবে, জয়ের হাসি তারাই হাসবে।

এল ক্ল্যাসিকোতে এখন পর্যন্ত মুখোমুখি পরিসংখ্যানে বার্সার চেয়ে এগিয়েই আছে রিয়াল। ২৩৯ ম্যাচে মুখোমুখি হয়ে ৯৫টিতে জিতেছে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সার জয় ৯৩ ম্যাচে। ড্র হয়েছে অন্য ৫০টি। লা লিগায়ও এগিয়ে রিয়াল। ১৭৭ ম্যাচে রিয়ালের জয় ৭২টি, বার্সার জয় ৭০টি এবং ড্র হয়েছে অন্য ৩৫টি ম্যাচ।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট