ম্যানচেস্টারকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে রিয়াল

ম্যানচেস্টারকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে রিয়াল

ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে জিতে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে উঠেছে রিয়াল মাদ্রিদ। ঘরের মাঠ বার্নাব্যুতে ইংলিশ জায়ান্টদের ১-০ গোলে হারিয়েছে গ্যালাকটিকোরা। রিয়ালের জয়ে দুই বছর পর ফাইনালে আরেকটি মাদ্রিদ-ডার্বির মঞ্চ প্রস্তুত হলো। আগামী ২৮ মে ইতালির মিলানে হবে ফাইনাল ম্যাচ।

দুই বছর আগে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে হারিয়ে দশম চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। আগের দিন বায়ার্ন মিউনিখকে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে অ্যাটলেটিকো।

গত সপ্তাহে ম্যানসিটির মাঠে প্রথম লেগ শেষ হয়েছিল গোলশূন্যভাবে। ফলে দ্বিতীয় লেগে রিয়ালের হিসাব ছিল নূন্যতম ১-০ গোলে জয়। কাঁটায় কাঁটায় হিসেব করে সেই এক গোলে জিতেই ১১তম চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের শেষ মঞ্চে উঠল জিনেদিন জিদানের দল।

ফিরতি লেগের শুরু থেকে দুই দলই ছিল খুব সতর্ক। আক্রমণে ওঠার চেয়ে রক্ষণদুর্গ সামলাতেই বেশি ব্যস্ত ছিল তারা। ১৪ মিনিটে প্রথম সুযোগ আসে রিয়ালের সামনে। তবে ডান দিক থেকে নেওয়া দানিয়েল কারভাহালের দারুণ ক্রস থেকে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর জোরালো হেড চলে যায় ক্রসবারের অনেক ওপর দিয়ে।

ছয় মিনিট পরই অবশ্য সেই হতাশা দূর হয় ভক্তরের। কারভাহালেরই চমৎকার থ্রু ধরে দুর্দান্ত চিপ করেছিলেন গ্যারেথ বেল। বল বেলের গায়ের সঙ্গে লেগে থাকা ফার্নান্দোর পায়ে লেগে, দিক পরিবর্তন করে চলে যায় জালে।

৩৬ মিনিটে আবার ম্যানসিটির জালে বল পাঠিয়েছিল রিয়াল। কিন্তু রিয়াল অধিনায়ক সার্জিও রামোসের বল জালে পাঠালেও অফসাইডের কারণে বাতিল হয় গোল।

৪৪ মিনিটে সমতা প্রায় নিয়েই এসেছিল ম্যানসিটি। কিন্তু ফার্নান্দিনিয়োর শট সাইডবার ঘেঁষে বেরিয়ে গেলে এক গোলের লিড নিয়ে বিরতিতে যায় রিয়াল মাদ্রিদ।এগিয়ে থাকলেও দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে রিয়ালের আক্রমণেরই বেশি ঝাঁঝ ছিল। কিন্তু ৫০ ও ৫৪ মিনিটে রোনালদো ও লুকা মদ্রিচ দুটি সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করে হতাশ করেন সমর্থকদের।

এরপর আর তেমন আক্রমণ করেনি রিয়াল। আক্রমণের চেয়ে রক্ষণ সামলাতেই বেশি মনোযোগ দিয়েছে তারা। ম্যানসিটিও প্রতিপক্ষের আঁটোসাটো রক্ষণদুর্গে ফাটল ধরাতে পারেনি। তাই এক গোলের জয় নিয়ে ফাইনালে চলে যায় রেকর্ড ১০ বারের চ্যাম্পিয়নরা।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট