যে কারণে ছেলেদের রান্না না জানলে নয়

যে কারণে ছেলেদের রান্না না জানলে নয়

বাংলাদেশের সমাজে অলিখিত নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে রান্না শুধুমাত্র নারীদের কাজ। পুরুষেরা রান্নাঘরে বসে রান্না করলে যেন মান-সম্মান সব চলে যাবে। অনেক পুরুষই মনে করেন রান্নাঘর সম্পর্কিত সব ধরণের কাজ শুধুমাত্র মেয়েদের জন্য। কিন্তু বড় বড় হোটেল বা রেস্টুরেন্টগুলোতে ছেলেরা কি রান্না করছে না? করছেন। এরপরও ভুল না ভাঙলে জেনে নিন জরুরী কিছু কারণ যার জন্য ছেলেদের রান্না জানা উচিত।

টাকা বাঁচায়: ভেবে দেখুন তো মাত্র ১ বেলা বাইরে খেতে কতো টাকা লাগে? একটু ভালোমন্দ নয়, সাধারণ খাবার, সাধারণ একটি রেস্টুরেন্টে বসে খেতে গেলেই পকেট থেকে বেড়িয়ে যায় অনেক টাকা। মাস শেষে এই অংকটা দাঁড়ায় হাজারের ঘরে। এর চেয়ে রান্না করা শিখে ফেলুন না। নিজের পছন্দ মতো উপকরণ কিনে প্রতি বেলা বেশ কম খরচেই খেতে পারবেন।

ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে: আপনি যখন রাঁধতে জানবেন তখন কিন্তু বাইরের ভাজাপোড়া অস্বাস্থ্যকর খাবারটা একটু কমই খাওয়া হবে। হুটহাট বাইরে গিয়ে তেলে ভাজা খাবার কম খাবেন। এতে করে প্রভাব পড়বে আপনার দেহের উপর, ওজনের উপর। ওজনটা বিশেষ করে ভুঁড়িটা কমিয়ে রাখতে পারবেন।

স্বাস্থ্য ঠিক রাখে: বাইরে রেস্টুরেন্টে খাওয়া মানে অস্বাস্থ্যকর খাবার নিজের পেটে ঢোকানো। সাজানো গোছানো রেস্টুরেন্টগুলোর রান্নাঘরে ঢুকে দেখেছেন কখনো? নিশ্চিত করে বলা যায় একবার ঢুকলে দ্বিতীয়বার সে রেস্টুরেন্টে খাওয়ার ইচ্ছা হবে না। বাসায় বসে নিজেই রান্না করে নিলে স্বাস্থ্যটাকে ঠিক রাখতে পারবেন। ছোটোখাটো অনেক রোগ থেকে মুক্তি পাবেন।

মানসিক চাপ মুক্ত থাকা যায় অনেকটা সময়: রান্না করা কিন্তু একটি শিল্পের পর্যায়ে পড়ে। নিজের মানসিক চাপ দূর করার জন্য মনোযোগ অন্যদিকে ঘুরিয়ে নিতে রান্না করার বিকল্প নেই। এছাড়াও বেশ কিছু খাবারের সুঘ্রাণ কিন্তু মস্তিষ্ক রিলাক্স করতে বেশ সহায়ক। সুতরাং রান্নার মাধ্যমে নিজের মানসিক চাপটা ভুলে থাকতে পারবেন অনেকটা সময়।

প্রেমিকা/ স্ত্রীকে সারপ্রাইজ দেওয়া যায়: মেয়েরা কিন্তু ছেলেদের এই গুনটি অনেক বেশিই পছন্দ করেন। তাই যদি একটুআধটু রান্না করতে জানেন, তাহলে সময় সুযোগে প্রেমিকা/স্ত্রীকে সারপ্রাইজ দিতে পারবেন। এছাড়াও দুজন দুজনকে সাহায্য করে সংসার জীবনটা ভালোই কাটিয়ে দিতে পারবেন।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট