রিয়াল ছেড়ে চেলসিতে মোরাতা

রিয়াল ছেড়ে চেলসিতে মোরাতা

শেষ পর্যন্ত রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে দিলেন আলভারো মোরাতা। যোগ দিলেন ইংলিশ ক্লাব চেলসিতে। এক সময় তার ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দেয়ার কথা চলছিল। কিন্তু সেটা হয়নি। চেলসির সঙ্গে আনুষ্ঠাতিক চুক্তি এখনো সম্পন্ন না হলেও তার ক্লাবটিতে যোগ দেয়ার বিষয়টি ইতিমধ্যে চূড়ান্ত হয়ে গেছে। মোরাতা ইতিমধ্যে রিয়ালের সতীর্থদের কাছ থেকে বিদায় নিয়েছেন। প্রাক মৌসুম প্রীতি ম্যাচ খেলতে রিয়াল মাদ্রিদ এখন যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে দলের সঙ্গে ছিলেন মোরাতা। বুধবারও দলের সবার সঙ্গে অনুশীলন করেন। কিন্তু এই শেষ।

এদিন অনুশীলনের আগেই তিনি জানতেন, আজ তার রিয়ালের শেষ দিন। অনুশীলন শেষে রিয়ালের অন্য সব খেলোয়াড়দের কাছ থেকে বিদায় নেন তিনি। গ্যারেথ বেল, ইসকো ও কারভাহালদের কাছ থেকে বিদায় নেয়ার সময় চোখ পানিতে ভরে ওঠে মোরাতার। ঠোঁট চেপে গোমড়া মুখে সবার হাতে হাত মেলান। রিয়ালের একাদশে জায়গা নিয়ে যার সঙ্গে সবচেয়ে বেশি লড়াই সেই ইসকোর সঙ্গে ছবিও তোলেন তিনি। পরে ড্রেসিং রুমে সবার কাছ থেকে বিদায় নেন। তখন তার চোখে ছিল পানি। এমন কি চেলসির উদ্দেশ্যে বিমান ধরার জন্য বিমানবন্দরেও মোরাতার মুখ ছিল মলিন।

অনেকটা ক্ষোভ নিয়েই স্বাপ্নের ক্লাব রিয়াল ছাড়লেন মোরাতা। ক্লাবটির যুব দলে খেলেছেন তিনি। পরে খেলেছেন ‘বি’ দলে। ২০১০ সালে সিনিয়র দলে অভিষেক হয় তার। খেলেন ২০১৪ সাল পর্যন্ত। কিন্তু একাদশে সুযোগ পেতেন খুব কম। পাঁচ বছরে খেলেন মাত্র ৫২ ম্যাচ। করেন ১১ গোল। এরপর তাকে ধারে (লোন) দেয়া হয় ইতালির ক্লাব জুভেন্টাসের কাছে। দুই মৌসুম খেলেন ইতালিয়ান সিরি আ’য়।

২০১৬-১৭ মৌসুমের শুরুতে তাকে ফিরিয়ে আনে রিয়াল। কিন্তু এই মৌসুমটাও জিনেদিন জিদানের প্রথম একাদশে তাকে খুব একটা দেখা যায়নি। যখনই সুযোগ পেয়েছেন সেটাকে দারুণভাবে কাজে লাগিয়েছেন। অধিকাংশ ম্যাচে বদলি হিসেবে নেমেও গত মৌসুমে ৪৩ ম্যাচে ২০ গোল করেছেন তিনি। কিন্তু তবুও জিদানের মন পাননি মোরাতা। তাকে বিক্রি করে দেয়ার গুঞ্জণ ওঠে গত মৌসুমের শেষ দিক থেকেই। ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তার প্রতি প্রবল আগ্রহ দেখায়। হোসে মরিনহো তাকে নেয়ার জন্য ৯০ মিলিয়ন পাউন্ড পর্যন্ত বাজি ধরেন বলে খবরে জানা যায়। কিন্তু মোরাতা সেখানে যাননি। যদিও বিষয়টি নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেন ম্যানইউর কোচ হোসে মরিনহো। মোরাতাকে তিনি অনেক পছন্দ করেন বলে জানান। কিন্তু সে ম্যানইউতে যোগ না দেয়ায় হতাশ হন তিনি।তার ম্যানইউতে যোগ না দেয়ার কারণ রয়েছে। রিয়াল মাদ্রিদে তিনি নিয়মিত হতে পারেননি তারকার ভিড়ে। ম্যানইউতে গিয়ে সেই সমস্যায় পড়তে চাননি তিনি। ইনজুরি আক্রান্ত জøাতান ইবরাহিমোভিচের সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করেনি ম্যানইউ।

তবে এখন শোনা যাচ্ছে, তাকে নাকি মরিনহো আরো এক মৌসুম রেখে দেবেন। এছাড়া সম্প্রতি এভারটন থেকে বেলজিয়ান স্ট্রাইকার রোমেলু লুকাকুকে দলে ভিড়িয়েছে ম্যানইউ। এতে আরেকজন স্ট্রাইকার হিসেবে সেখানে যেতে চাননি মোরাতা। তাই শেষ পর্যন্ত ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন চেলসিতে যোগ দিলেন তিনি। স্বপ্নের ক্লাব রিয়ালের প্রতি তার যে ক্ষোভ সেটা তার কথায় স্পষ্ট বুঝা গিয়েছে। তিনি আর কখনো রিয়ালে ফেরার ইচ্ছা নেই বলে জানালেন মোরাতা।

বলেন, ‘মাদ্রিদের মতো ক্লাবে খেলতে পারা ভাগ্যের ব্যাপার। আমি যতদিন ফুটবল খেলব ততদিন এই মুহূর্তগুলো মনে রাখব। সতীর্থ ও কোচ জিদানকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। তারা আমার জন্য অনেক কিছু করেছেন। সুন্দর কিছু স্মৃতি নিয়েই ক্লাব ছাড়ছি। তবে মনে হয় না- রিয়াল মাদ্রিদে আর কখনো ফেরবো। আমার জন্য বিষয়টা কঠিন হবে।’ চেলসি তাকে ঠিক কী পরিমাণ অর্থে দলে ভেড়াচ্ছে তা এখনো পুরোপুরি স্পষ্ট নয়।

তবে স্প্যানিশ ও বৃটিশ মিডিয়া জানাচ্ছে, তার পরিমাণ ৭৫ মিলিয়ন পাউন্ড। যদি এটা সত্যি হয় তাহলে স্পেনের ফুটবল ইতিহাসে সবচেয়ে দামি খেলোয়াড় মোরাতা। রিয়ালের কোচ জিনেজিদ জিদানের ওপরও যে মোরাতার কিছু ক্ষোভ রয়েছে সেটা স্পষ্ট হলো তার কথায়। এছাড়া চেলসির কোচ অ্যান্তনিও কন্তে তার ওপর আস্থা রখেন বলে জানালেন তিনি। এই কোচের অধিনেই এক সময় জুভেন্টাসে খেলতেন তিনি।

বিষয়গুলো নিয়ে মোরাতা বলেন, ‘আমি খুবই খুশি। আমি চেলসিতে যাচ্ছি। দীর্ঘদিন ধরে তারা আমাকে পছন্দ করে। আমি এমন এক ক্লাবে যোগ দিচ্ছি যারা আমাকে সম্মান করে। যে দলের কোচ আমার ওপর আস্থা ও বিশ্বাস রাখেন। এটা একজন ফুটবলারের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। গত মৌসুমটা আমার জন্য একটু অদ্ভুত ছিল। অনেক কিছুই হয়েছে যা হওয়ার কথা ছিল না। তবে শেষ পর্যন্ত ঈশ্বরের ইচ্ছায় আমি চেলসিতে যাচ্ছি।’

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট