সংলাপ শেষে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা যা বললেন

সংলাপ শেষে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা যা বললেন

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১৪ দলীয় জোটের ২৩ নেতার সঙ্গে সংলাপে অংশ নেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ২০ নেতা। ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্ব দেন ড. কামাল হোসেন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলটির জ্যেষ্ঠ কয়েকজন নেতা।

ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেন বলেছেন ‘আমরা প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে গণভবনে গিয়েছিলাম। আমাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ ছিল। প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টার মতো আমরা সেখানে ছিলাম। আমাদের নেতারা সবাই বক্তব্য দিয়েছে। তারা তাদের নানা ধরনের অভিযোগের কথা বলেছেন। সরকারের বিভিন্ন বিষয়ে উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন। এরপর প্রধানমন্ত্রী বেশ লম্বা বক্তব্য দিয়েছেন। তবে আমরা সে বক্তব্যে বিশেষ কোনও সমাধান পাই নি।’

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপ শেষে ড.কামাল হোসেন তার বেইলি রোডের বাসায় সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘সভা সমাবেশের বিষয়ে একটি ভালো কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। এ বিষয়ে গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী কথা বলবেন।’

সভা-সমাবেশের বিষয়ে গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ঢাকাসহ সারা দেশে রাজনৈতিক দলগুলোর সভা সমাবেশ করতে কোনও বাধা থাকবে না। তিনি সেটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বলে দিয়েছেন। সভা সমাবেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সহযোগিতা করবে।

তিনি বলেন, সংলাপের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী সূচনা বক্তব্য দিয়েছেন। এরপর বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাত দফা দাবি উত্থাপন করেছেন।

এসময় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘আমরা আলোচনায় সন্তুষ্ট নই। প্রধানমন্ত্রী রাজনৈতিক মামলার তালিকা চেয়েছেন।’

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কোনও কথা হয়েছে কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী কোনও সুনির্দিষ্ট কথা বলেননি।’ তিনি বলেছেন এ বিষয় নিয়ে ভবিষ্যতে আলাপ-আলোচনা হতে পারে।

সংলাপ নিয়ে বিএনপি আশাবাদী কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি খুব সন্তুষ্ট নেই।

আমরা তফসিলের ব্যাপারে বলেছি। তিনি বলেছেন, তাদের দেওয়ার এখতিয়ার নেই। তফসিল দেওয়ার এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের।

আস ম আব্দুর বর বলেন, আমরা সাত দফা দিয়েছি, মানা না মানা দায়িত্ব হলো সরকারের। আমাদের কর্মসূচি আমরা দিয়েছি, সেটা অব্যাহত থাকবে।

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে সংলাপে অংশ নিয়েছেন, বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, সহ-সভাপতি তানিয়া রব, সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, এসএম আকরাম, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, ডাকসু’র সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ ও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আ ব ম মোস্তফা আমিন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, গণফোরামের জগলুল হায়দার আফ্রিক, আওম সফিক উল্লাহ, মোতাব্বের খান।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সংলাপে অংশ নিয়েছেন, দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, মো. আবদুর রাজ্জাক, কাজী জাফর উল্যাহ, রমেশ চন্দ্র সেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, দীপু মনি, আবদুর রহমান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, দফতর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ, আইনবিষয়ক সম্পাদক শ ম রেজাউল করিম, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট