সংসদ ভেঙে নির্বাচনের দাবি ঐক্যফ্রন্টের: কাদের

সংসদ ভেঙে নির্বাচনের দাবি ঐক্যফ্রন্টের: কাদের

সংসদ ভেঙে দিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন দেয়ার দাবি জানিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের করা সরকারের নির্ধারিত মেয়াদ শেষে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন এবং ১০ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদ গঠনের প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে তাদের সাত দফা দাবি বেশ কিছু দাবি মানা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সরকারি দলের মুখপাত্র সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।বুধবার (৭ নভেম্বর) জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে দ্বিতীয় দফা সংলাপ শেষে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা জানান।

তিনি বলেছেন, নির্বাচন পিছিয়ে দিতে এটা তাদের বাহানা। কিন্তু আমরা সংবিধানের বাইরে যাবো না। নির্বাচন পেছানোর সুযোগ নেই। গত সাত দিনে যত সংলাপ হয়েছে সেসব বিষয় নিয়ে আগামীকাল বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানাবেন।

আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের সাথে রাজনৈতিক দলগুলোর বৈঠক বা ডায়ালগ শেষ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আগামীকাল ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণা হলে নির্বাচনের প্রস্তুতির সাথে সাথে আলোচনা এগিয়ে যেতে পারে তবে ‘ডায়ালগ শেষ’ বলে সাফ জানিয়ে দেন ওবায়দুল কাদের।

নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দেওয়ার আহ্বান মেনে নেওয়া হয়নি জানিয়ে তিনি বলেছেন, এটা এখন কোথাও থাকে না। তবে নির্বাচনে সেনা মোতায়েন থাকবে। তারা নির্বাচন কমিশনের প্রয়োজন অনুযায়ী স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে কাজ করবে।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিতীয় দফা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপ শেষ হয়। বুধবার (৭ নভেম্বর) বেলা ২টার দিকে এ সংলাপ শেষ হয়।

সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সংলাপে অংশ নিতে গণভবনে প্রবেশ করে গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রতিনিধি দল। সংলাপে অংশ নিচ্ছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ১১ নেতা। মঙ্গলবার (৬ নভেম্বর) রাতে ওই ১১ নেতার নাম আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে পাঠায় ঐক্যফ্রন্ট।

সংলাপে সরকারের পক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ছিলেন, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মতিয়া চৌধুরী, মোহাম্মদ নাসিম, ওবায়দুল কাদের, অ্যাডভোকেট আনিসুল হক, ডা. দীপু মণি, ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ, স ম রেজাউল করিম, রাশেদ খান মেনন ও হাসানুল হক ইনু।

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ১১ সদস্যের প্রতিনিধিদল এ সংলাপে অংশ নিচ্ছে। তারা হলেন- আ স ম আব্দুর রব, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মোস্তাফা মোহসীন মন্টু, সুব্রত চৌধুরী, মাহমুদুর রহমান মান্না, এসএম আকরাম, আব্দুল মালেক রতন ও সুলতান মোহাম্মদ মুনসুর আহমেদ।

ছোট পরিসরে সংলাপের জন্য গত রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি দেয় ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগের সভাপতি কার্যালয়ে তা পৌঁছে দেন ঐক্যফ্রন্ট নেতা আ আ ম শফিক উল্লাহ ও জগলুল হায়দার আফ্রিক।

এর আগে গত শনিবার রাতে মতিঝিলে গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে স্বল্প পরিসরে সংলাপ চেয়ে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট