সঙ্গী যখন কাজ পাগল

সঙ্গী যখন কাজ পাগল

যেকোনো কারণেই নারী-পুরুষের সম্পর্কে টানাপোড়েন হতে পারে। তার মধ্যে একটি হলো সঙ্গীর কাজপাগল স্বভাব। অনেক সময় সঙ্গীর অতিরিক্ত কাজপাগল স্বভাবের কারণে সম্পর্কে তিক্ততার সৃষ্টি হয়। কারণ কাজপাগল মানুষেরা নিজের সঙ্গীর প্রতি একটু কমই নজর দিয়ে থাকেন। তিনি যে ইচ্ছে করে আপনার দিকে নজর কম দিচ্ছেন তা কিন্তু নয়। তার কাছে কাজটাই অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তবে এ কাজের প্রতি বেশি মায়া থাকার কারণেই অনেক বেশি অবহেলার স্বীকার হন তার সঙ্গী। তখন না চাইলেও সম্পর্কে চলে আসে তিক্ততা। এ অবস্থা পরিবর্তন করতে কাজপাগল মানুষটি এবং তার সঙ্গী দুজনকেই একটু সচেতন হতে হবে একে অপরের প্রতি। বুঝতে হবে একে অপরকে, তবেই সম্পর্ক টিকে থাকবে।

প্রথমেই জেনে রাখুন সঙ্গীর কাজ করার ধরণ। তার কাছে অতিরিক্ত ঘ্যান ঘ্যান করবেন না। আপনার সঙ্গী আর দশজন সাধারণ মানুষ থেকে আলাদা এ সত্যটি মেনে নিন। তাকে অতিরিক্ত বিরক্ত করলেই যে তিনি কাজ ছেড়ে আপনার দিকে নজর দেবেন এমনটি কিন্তু হবে না। ২. তার কাজের ধরণ বোঝার চেষ্টা করুন। তিনি যদি কর্পোরেট জগতে কাজ করেন তাহলে আপনি তার সাথে কর্মক্ষেত্রেই কিছুটা সময় ব্যয় করার চেষ্টা করুন। নিজেকে একটু হলেও মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করুন তার এ কাজপাগল মনোভাবের সাথে।

সঙ্গীকে মনে করিয়ে দিন আপনার প্রয়োজনের কথা। ছুটির দিনে তাকে কাজ রাখতে নিষেধ করে দিন এবং তাকে এ বিষয়টি মেনে চলার জন্য বলুন। অন্যান্য দিন কাজের পেছনে পাগল থাকলে কিছু বলবেন না। এতে তিনি নিজে থেকেই ছুটির দিন আপনার জন্য সময় বের করে নেবেন।কখনোই তার কাজের সাথে নিজের গুরুত্বটা তুলনা করতে যাবেন না। এতে মন খারাপ করে হাল ছেড়ে দেবেন আপনি নিজেই। তার কাছে কাজ পছন্দের কিন্তু তাই বলে আপনি তার জীবনে গুরুত্ব রাখেন না তা কিন্তু নয়।তিনি কিছু করবেন তার জন্য আশা করে বসে থাকবেন না, বরং আপনিই সারপ্রাইজ দিন তাকে। প্ল্যান করুন তাকে নিয়ে। আপনাকে এতোটা করতে দেখে তিনিও উৎসাহী হবেন আপনার জন্য কিছু করার।

কখনোই তার ঘাড়ে জোর করে দায়িত্ব চাপাতে যাবেন না। অনেকে মনে করেন সংসারের দায়িত্ব চাপিয়ে দিলে তিনিই সময় বের করে নেবেন। কিন্তু উল্টোটাই ঘটতে দেখা যায় বেশি। অনেক বেশি তালগোল পাকিয়ে ফেলে বিরক্তবোধ করবেন তিনি।তাকে বোঝার চেষ্টা করুন। অতিরিক্ত কাজ করতে তার যে খুব ভালো লাগছে তা মনে করার কোনোই অর্থ নেই। তিনি হয়তো নিজের পরিবার এবং আপনার ভবিষ্যতের কথা ভেবেই কাজ করছেন।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট