সরাসরি সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল দেখুন…

সরাসরি সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী  চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল দেখুন…

ভারতের বিপক্ষে ঘরের মাঠে ঠিক ৮ মাস আগে সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জয়ের উল্লাসে মেতেছিল বাংলাদেশ। এ টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় আসরেও ঠিক সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে এখন মারিয়া মান্ডার দল। আজও শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচে লাল-সবুজদের প্রতিপক্ষ সেই ভারত। স্বাভাবিকভাবেই জুনিয়র টাইগ্রেস ফুটবলের লক্ষ্য প্রতিপক্ষকে হারিয়ে যেভাবেই হোক নিজেরদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখা।

ম্যাচটি সরাসরি দেখা যাবে এই লিঙ্কে….. https://mycujoo.tv/video/bhutan-football?id=23589

নিজেদের মাঠে সাফের প্রথম আসরে গেল ডিসেম্বরে ফাইনালে ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। তার আগে ঐ টুর্নামেন্টের প্রাথমিক পর্বেও প্রতিবেশি দেশটির বিপক্ষে লাল-সবুজ প্রতিনিধিরা জিতেছিল ৩-০ গোলে। যে কারণে আজ ভুটানের থিম্পুর চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা ৭টায় শিরোপা ধরতে রাখতে কিছুটা হলেও এগিয়ে থাকছে গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা।

এর আগে চলতি আসরে গ্রুপ পর্বে পাকিস্তানকে ১৪-০ গোলে ও নেপালকে ৩-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে উঠেছিল বাংলাদেশ। এরপর ভুটানকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করে নেয় জুনিয়র টাইগ্রেসরা।

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নসশিপের দ্বিতীয় আসরের ফাইনালে উঠার আগে দাপুটে ফুটবল খেলেছে মেয়েরা। প্রতিপক্ষের জালে এখন পর্যন্ত গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যরা করেছে ২২ গোল। এর বিপরীদে কোন গোল হজম করতে হয়নি লাল-সবুজের কিশোরীদের। অন্যদিকে প্রতিপক্ষের জালে ভারত করেছে ১৫ গোল। হজম করেছেন একটি। তবে প্রতিবেশীর চেয়ে পারফরমেন্সের দিক দিয়ে কিন্তু এগিয়ে আছে বাংলাদেশই।

শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে নামার আগে দারুণ আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ কোচ গোলাম রব্বানী। শুক্রবার অনুশীলন শেষে এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘যেভাবে আমরা সাত মাস ধরে প্রস্তুতি নিয়েছি, এ প্রতিযোগিতার গ্রুপ পর্ব এবং সেমি-ফাইনাল মিলিয়ে তিন ম্যাচে যেভাবে খেলেছি, ফাইনালে সেভাবেই নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে চাই। শিরোপা জয়ের জন্য এ ম্যাচে আমরা আমাদের সর্বোচ্চটুকু দিব। যখন আমরা এ প্রতিযোগিতায় খেলতে এসেছিলাম, তখন এটাই আমাদের লক্ষ্য ছিল।’

সেমি-ফাইনালে স্বাগতিক ভুটানকে হারিয়ে আরও আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছেন গোলরক্ষক মাহমুদা আক্তার। ভারত ম্যাচেও গোলপোস্ট আগলে রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তিনি। এ নিয়ে এ গোলরক্ষক বলেন, ‘সেমি-ফাইনালে স্বাগতিক ভুটানের বিপক্ষে বড় ব্যবধানে জিতে ফাইনালে ওঠায় আমি ভীষণ খুশি। এখন আমরা সেরাটা দিয়ে শিরোপা জয়ের জন্য আরও সিরিয়াস। একজন গোলরক্ষক হিসেবে গত তিন ম্যাচের মতো ফাইনালেও আমি পোস্ট রক্ষা করব।’

চলতি সাফে দুর্দান্ত খেলছেন তহুরা খাতুন। আজও সেই ধারা ধরে রাখতে তৈরি তিনি। শুক্রবার অনুশীলন শেষে আজকের ম্যাচে নিজের লক্ষ্যের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা ফাইনালে উঠেছি। এখন আমরা আবারও শিরোপা উঁচিয়ে ধরার জন্য ভারতের বিপক্ষে শতভাগ দিব। যত দ্রুত সম্ভব আমি ফাইনালে গোল করতে চাই, যে কাজটা আমি দলের হয়ে এ প্রতিযোগিতার গত ম্যাচগুলোতে করেছি।’

এদিকে শিরোপা ধরে রাখার মিশনে অধিনায়ক মারিয়া মান্ডার চাওয়া সতীর্থরা যেন ভারতকে চাপে রেখে গোল করেন। এ ব্যাপারে তিনি বলেছেন, ‘এটা আমাদের ফাইনাল ম্যাচ; আমরা প্রস্তুত এবং একটা দল হয়ে ভারতকে হারিয়ে শিরোপা জেতার জন্য সর্বোচ্চটা দিতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। আমরা শুরু থেকে ভারতকে চাপ দিব এবং যত দ্রুত সম্ভব গোল করার চেষ্টা করব। যদিও ভারত ভালো দল এবং তাদের কিছু অভিজ্ঞ খেলোয়াড় আছে। কিন্তু আমাদের লক্ষ্য ফাইনাল জেতা এবং আরও একবার বাংলাদেশের জন্য ট্রফি জেতা।’

সাফের গত আসরে বাংলাদেশের কাছে হেরে শিরোপার স্বপ্ন ভঙ হয়েছিল ভারতের। তা ভালো করেই মনে রেখেছে দলটি। তাইতো আজ চিরচেনা প্রতিপক্ষের বিপক্ষে আরো একটি শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচের আগে দারুণ সতর্ক প্রতিবেশি দেশটি। তবে ওসব নিয়ে একবারেই ভাবছেন না মারিয়া মান্ডারা। তারা চাইছেন নিজেদের সেরাটা দিয়ে আবারো সাফের শিরোপা উল্লাসে মাততে।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট