সারাদেশে পালিত হচ্ছে মহান স্বাধীনতা দিবস

সারাদেশে পালিত হচ্ছে মহান স্বাধীনতা দিবস

স্বল্পোন্নত দেশের গ্রুপ (এলডিসি) থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জন করেছে বাংলাদেশ। আর এই অর্জনের পটভূমিতে এবার ভিন্ন আঙ্গিকে যথাযথ মর্যাদায় সারাদেশে পালিত হচ্ছে ৪৮তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। সকাল ৮টায় সারাদেশে একযোগে গাওয়া হয় জাতীয় সংগীত। জাতীয় পতাকা উত্তোলন, কুচকাওয়াজ ও শিশু কিশোরদের শরীর চর্চা প্রদর্শন করা হয়। আয়োজন করা হয় বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো

সাভার প্রতিনিধি জানান, সোমবার ভোর থেকে জাতির বীর সন্তানদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে সর্বস্তরের মানুষের ঢল নামে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে। ভোর ৫টা ৫০ মিনিটে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ও ৫ টা ৫২ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্মৃতিসৌধের ভেতরে প্রবেশ করেন। এর কিছু সময় পরই তারা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে প্রধানমন্ত্রী দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তাদের শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়েই শুরু হয় স্মৃতিসৌধে ফুল দেওয়ার আনুষ্ঠানিকতা। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী স্মৃতিসৌধ এলাকা ত্যাগ করার পর জনসাধারনের জন্য খুলে দেওয়া হয় স্মৃতিসৌধের মূল ফটক। সকাল সাড়ে নয়টার দিকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

চট্টগ্রামের কোর্টহিলে ভোর ৫টা ৫৮ মিনিটে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে স্বাধীনতা দিবসের সূচনা হয়। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে শুরু করে সর্বস্তরের মানুষ। সিলেট নগরীর চৌহাট্টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে, সূর্যোদয়ের সাথে সাথে পতাকা উত্তোলন করা হয়।

পরে শহীদ মিনারে ফুল দেয় বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। খুলনায় স্বাধীনতা দিবসের প্রথম প্রহরে, গল্লামারী বধ্যভূমিতে ফুল দিয়ে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণ করেছে বিভিন্ন সংগঠন। এছাড়া বগুড়া, রাজশাহী, বরিশাল, গোপালগঞ্জ, মেহেরপুর, নড়াইলসহ সারাদেশেই চলছে নানা কর্মসূচি।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক